২৪ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কক্সবাজারকে সাজাতে মাস্টারপ্ল্যান তৈরির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

কক্সবাজারকে সাজাতে মাস্টারপ্ল্যান তৈরির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
  • একনেকে পাঁচ হাজার ১৪২ কোটি ৬ লাখ টাকা ব্যয়ে আট প্রকল্প অনুমোদন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কক্সবাজারকে পরিকল্পিতভাবে সাজাতে একটি মাস্টারপ্ল্যান তৈরির জন্য কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রাকৃতিক দুর্যোগ তথা জলোচ্ছ্বাস থেকে কক্সবাজারকে রক্ষা করতে সমুদ্র তীরে প্রচুর ঝাউবন লাগানোর নির্দেশ দেন তিনি। এসময় ডিজেল ইলেকট্রিক মাল্টিপল ইউনিট (ডেমু) ট্রেন কিনতে নিষেধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে কেনা ডেমু ট্রেনগুলো যেহেতেু যাত্রীদের উপকারে আসেনি এবং অনেকগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে এই নির্দেশ দেন।

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এসব নির্দেশ দেন একনেক চেয়ারপার্সন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সভায় মোট ৮টি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়। ৮টি প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট খরচ ধরা হয়েছে ৫ হাজার ১৪২ কোটি ৬ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারী তহবিল থেকে ৪ হাজার ২৯ কোটি ৮১ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ১ হাজার ১২ কোটি ২৫ লাখ টাকা খরচ করা হবে।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনা সচিব নুুরুল আমিন। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য শামীমা নার্গিস এবং পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী। একনেক সভা শেষে পরিকল্পনা বিভাগের সচিব নূরুল আমিন প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা তুলে ধরে বলেন, আমাদের এতো সুন্দর পর্যটন এলাকা কক্সবাজারের জন্য একটি মাস্টারপ্ল্যান করতে বলেছেন। ৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত পৃথিবীর আর কোথাও নেই। তাই মাস্টাপ্ল্যান করতে বলেছে কর্তপক্ষকে এছাড়া আলাদাভাবে জেলা প্রশাসনও একটি মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করবে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আগে মাস্টারপ্ল্যান হবে তারপরই উন্নয়ন প্রকল্প নিতে হবে। এছাড়াও কক্সবাজারে বিদেশী পর্যটকদের জন্য আলাদা জোন করার কথা বলেছেন। বিভিন্ন দুর্যোগ থেকে রক্ষা পেতে সমুদ্র তীরে প্রচুর ঝাউগাছ রোপণের কথা বলেছেন।

এছাড়াও, ডিজেল ইলেকট্রিক মাল্টিপল ইউনিট (ডেমু) ট্রেন কিনতে নিষেধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক এবং ঢাকার মধ্যে শাটল ট্রেন চালুর জন্য ডেমু সংগ্রহ শীর্ষক একটি প্রকল্প উপস্থাপন করা হলে এ ডেমু ট্রেন না কেনার এ নির্দেশনাসহ আরও বেশ কিছু নির্দেশনা দেন বলে জানান পরিকল্পনা সচিব নুরুল আমিন।

সচিব জানান, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, প্রকল্পটি সংশোধন করে অন্য কোন ট্রেন কিনতে হবে। তবে তিনি ঢাকা থেকে কালিয়াকৈর পর্যন্ত ননস্টপ ট্রেন সার্ভিস চালু এবং অন্যান্য রুটে ট্রেনগুলো যাতে স্টেশন ধরে যায় সে ব্যবস্থা করারও নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ডেমু ট্রেন বাংলাদেশের উপযোগী নয়। নতুন করে আর ডেমু কেনা যাবে না। যেগুলো আছে, সেগুলো মেরামত করতে হবে। ডেমুর পরিবর্তে অন্য ট্রেন কিনতে হবে।

এর আগে, ২০ সেট ডিজেল ইলেক্ট্রিক মাল্টিপল ইউনিট বা ডেমু ট্রেন কিনে বিপাকে পড়ে রেলপথ মন্ত্রণালয়। প্রতিনিয়ত নতুন নতুন সমস্যা দেখা দিচ্ছে চীনের তৈরি এ বিশেষ ট্রেনে।

সভায় অনুমোদিত প্রকল্পগুলো হচ্ছে- কক্সবাজার নগরীর হলিডে মোড় বাজারঘাটা-লারপাড়া (বাসস্ট্যান্ড) প্রধান সড়ক সংস্কারসহ প্রশস্তকরণ প্রকল্প। এর খরচ ধরা হয়েছে ২৫৮ কোটি ৮২ লাখ টাকা। চট্টগ্রামের মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক স্থাপন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৬১ কোটি ৯০ লাখ টাকা। বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি-২ এর সহায়ক অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৩৪৪ কোটি ৯৩ লাখ টাকা।

পরিকল্পনা সচিব জানান কালিয়াকৈরে স্থাপিতব্য বঙ্গবঙ্গু হাইটেক পার্কে খেলাধুলা, বিনোদন এবং শপিংমল তৈরির নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া প্রত্যেক উপজেলায় একটি করে মিনি স্টেডিয়াম তৈরি করতে বলেছেন। সেসব স্টেডিয়াম কোন স্কুল, কলেজ বা মাদ্রাসার মাঠে নয়, আলাদা স্থানে, প্রয়োজনে উপজেলার বাইরে কোন স্থানে স্টেডিয়ামগুলো নির্মাণ করতে হবে। এসব স্টেডিয়ামের একদিকে গ্যালারি তৈরি করতে হবে। বাকি তিন দিক খোলা রাখতে হবে। যাতে মাঠের ভেতর কি হচ্ছে তা সাধারণ মানুষ দেখতে পারেন।

ঢাকা বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়ক প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ২ হাজার ৬০৬ কোটি টাকা। এ সময় সড়ক নির্মাণের ক্ষেত্রে যথাযথমান নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। পাবনা-নাটোর সিরাজগঞ্জ জেলায় ভূ-উপরিস্থিত পানির মাধ্যমে সেচ উন্নয়ন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৫৬০ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। পার্বত্য চট্টগ্রাম পল্লী উন্নয়ন প্রকল্প ৩য় সংশোধনী প্রল্পের খরচ ধরা হয়েছে ২২৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা। সভাসূত্র জানায়, প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, বন্য হাতির পথ রুদ্ধ করা যাবে না বরং হাতির খাবারের জন্য যে পথে হাতি চলাচল করে সেখানে কলাগাছসহ যে ধরনের গাছ খায় তা রোপণ করতে হবে। যাতে করে খাদ্যের জন্য বন্যহাতি লোকালয়ে এসে জীবনহানি বা সম্পদহানি না করতে পারে।

এছাড়া জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় ভেটেরিনারি পাবলিক হেলথ সার্ভিস জোরদারকরণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৭৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা। সভাসূত্রে জানা যায়, প্রকল্পটি অনুমোদনকালে প্রধানমন্ত্রী সঠিকভাবে মানসম্মত চামড়া সংগ্রহের নির্দেশ দিয়েছেন। জানা গেছে, কোরবানির সময় এই চামড়া বিশেষ গুরুত্ব বৃদ্ধি পায় তাই কোরবানি ঈদে গরুসহ অন্যান্য পশুর চামড়া সংগ্রহ যাতে সঠিকভাবে করা হয় সেজন্য কসাইদের প্রশিক্ষণ দেয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়াও এক্সপোর্ট কম্পিটিটিভনেস ফর জবস প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ১২ কোটি ১২ লাখ টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এই প্রকল্প অনুমোদনকালে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে সব পণ্য বিদেশে চাহিদা রয়েছে সেসব পণ্য রফতানির উদ্যোগ নিতে হবে। উদাহারণ দিয়ে বলেন পাটজাতদ্রব্য, ফার্নিচার, আলু ইত্যাদি আরও রফতানির বিষয়ে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এছাড়া একনেক সভায় উত্থাপিত হলেও দুটি প্রকল্প অনুমোদন পায়নি। সেগুলো হলো- রেলপথ মন্ত্রণালয়ের ‘বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক এবং ঢাকার মধ্যে শাটল ট্রেন চালুর লক্ষ্যে ডিইএমইউ (ডেমো) সংগ্রহ’ প্রকল্প এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের ‘নির্বাচিত ছয়টি উপজেলায় স্টেডিয়াম নির্মাণ’ প্রকল্প।

একনেক সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম, শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। এ ছাড়াও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও অনান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া