২১ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মির্জাগঞ্জে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সার্জেন্ট গোলাম কিবরিয়া মিকেল

মির্জাগঞ্জে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সার্জেন্ট গোলাম কিবরিয়া মিকেল

সংবাদাদা, মির্জাগঞ্জ, পটুয়াখালী ॥ বরিশাল বিশ^বিদ্যালয় সংলগ্ন বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের কর্নকাঠী এলাকায় দায়িত্ব পালনকালে কাভার্ডভ্যানের চাপায় নিহত ট্রাফিক সার্জেন্ট মোঃ গোলাম কিবরিয়া মিকেলের তৃতীয় জানাযা নামাজ শেষে তার গ্রামের বাড়ি মির্জাগঞ্জের সুবিদখালী সরদার বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে দাদা দাদীর কবরের পাশে সমাহিত করা হয়েছে।

বেলা ১০টা ১৭ মিনিটে নিহত সার্জেন্ট গোলাম কিবরিয়া মিকেলের লাশ বহনকারী এ্যাম্বুলেন্স উপজেলার সুবিদখালীতে পৌঁছলে তার সহপাঠী, আত্মীয় স্বজনসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার শোকার্ত মানুষের কান্নায় পরিবেশ ভারী হয়ে ওঠে। সার্জেন্ট গোলাম কিবরিয়া মিকেলকে শেষ বারের মতো এক নজর দেখতে আসা সহপাঠী, আত্মীয় স্বজন ও বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের ঢল নামে। আজ বুধবার বেলা ১১টায় সুবিদখালী সরকারী রহমান ইসহাক পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে পটুয়াখালী পুলিশ সুপার মোঃ মাঈনুল হাসান পিপিএম এর নেতৃত্বে গার্ড অব অনার প্রদান শেষে তার জানাযা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে গতমঙ্গলবার বিকেল ৫টায় ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে তার প্রথম জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। রাজারবাগ পুলিশ লাইনে জানাযার নামাজ শেষে ঐদিন বিকেলেই পুলিশের লাশবাহী ফ্রিজিং গাড়ীতে তার মরদেহ নিয়ে আসা হয় শেষ কর্মস্থল বরিশালে। সকাল ৮টায় বরিশাল পুলিশ লাইনে তার দ্বিতীয় জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। বরিশালে জানাযার নামাজ শেষে লাশবাহী ফ্রিজিং গাড়ীতে তার মরদেহ নিয়ে আসা হয় তার জন্মস্থান মির্জাগঞ্জের সুবিদখালীতে। তার লাশ গ্রহণ করতে ও রাষ্ট্রীয় সম্মান জানাতে পটুয়াখালী-১ আসনের সংসদ সদস্য সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট মোঃ শাহজাহান মিয়া, পটুয়াখালী জেলা পুলিশ সুপার মোঃ মাঈনুল হাসান পিপিএম, পটুয়াখালী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মোঃ খলিলুর রহমান মোহন মিয়া, পটুয়াখালী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট গোলাম সরোয়ার,উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক মোঃ গাজী আতাহার উদ্দীন, মির্জাগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খাঁন মোঃ আবু বকর সিদ্দিকী, মির্জাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সরোয়ার হোসেন ও মির্জাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মাছুমুর রহমান বিশ^াস সহ বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তা, স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন। জানাজা শেষে দুপুর পৌনে বারোটার সময়ে উপজেলার পশ্চিম সুবিদখালীর গ্রামের নিজ বাড়িতে তাঁর লাশ পৌছলে স্বজনদের আহাজারিতে এক হৃদয়বিদরক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। তাঁর দাদা-দাদীর কবরের পাশেই তাকে সমাহিত করা হয়।