২৪ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পতনরোধে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিনিয়োগকারীদের স্মারকলিপি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ শেয়ারবাজারের অব্যাহত পতনরোধে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্মারকলিপি জমা দিয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। এতে ১৫ দফা দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখার আহ্বান করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা ৫০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রবেশ করেন বিনিয়োগকারীদের একটি প্রতিনিধিদল। তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে দায়িত্বরত রুহুল আমিনের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দায়িত্বরত রুহুল আমিনের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন।

এর আগে একইদিনে ঢাক স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে দুপুর ২টায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন শুরু করে বিনিয়োগকারীরা। বিক্ষোভ ও মানববন্ধন শেষে ৩টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উদ্দেশে রওনা হয় প্রতিনিধিদলটি। বিক্ষোভে বিনিয়োগকারীরা বলেন, শেয়ারবাজারকে কিছু কুচক্রী মহল লুটপাট করার জায়গা হিসেবে নিয়েছে। তারা মনে করে শেয়ারবাজার থেকে টাকা লুটপাট করলে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কিছুই করার থাকবে না। কারণ ব্যাংক থেকে টাকা নেয়ার ক্ষেত্রে যে সব বাধ্যবাধকতা থাকে বাজারে তা নেই। তাদের দাবিগুলো হলো : ইস্যু মূল্যের নিচে অবস্থান করা শেয়ারগুলো নিজ নিজ কোম্পানিগুলোর পরিচালনা পর্ষদকে ইস্যু মূল্যে শেয়ার বাইব্যাক করতে হবে। বাইব্যাক আইন পাস করতে হবে। এছাড়া ২ সিসি আইনের বাস্তবায়ন করতে যেসব কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ব্যক্তিগত শতাংশ, সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার নেই, ওইসব উদ্যোক্তা পরিচালক ও কোম্পানিগুলোকে শেয়ার ধারণ কতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। একইসঙ্গে প্লেসমেন্ট শেয়ারের অবৈধ বাণিজ্য বন্ধ করতে হবে এবং প্লেসমেন্ট শেয়ারের লকইন পিরিয়ড ৫ বছর করতে হবে।

পুঁজিবাজার স্থিতিশীল না হওয়া পর্যন্ত সকল প্রকার আইপিও, রাইট শেয়ার অনুমোদন দেয়া বন্ধ করতে হবে। খন্দকার ইব্রাহিম খালেদের তদন্ত কমিটির রিপোর্ট অনুযায়ী শেয়ারবাজার কারসাজির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে আইনের আওতায় এনে বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে। জেড ক্যাটাগরি এবং ওটিসি মার্কেট বলতে কোন মার্কেট থাকতে পারবে না। কোম্পানি আইনে কোথাও জেড ক্যাটাগরির ও ওটিসি মার্কেটের উল্লেখ নেই। পাবলিক ইস্যু রুলস ২০১৫ বাতিল করতে হবে।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া