১৯ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ধ্বংসের প্রতিবেদনে সন্তুষ্ট হাইকোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সারাদেশে ১৫৮ ওষুধ প্রস্তুতকারী কোম্পানির সাড়ে ৩৬ কোটি টাকার মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ধ্বংস সংক্রান্ত স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতিবেদন পেয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে হাইকোর্ট। এ সময় আদালত বলেছে, ওষুধে উৎপাদন, মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ ও মূল্য বড় করে থাকতে হবে। যেন ভিজিবল হয়। অনেকে আবার ইংরেজী বোঝেন না। কিন্তু আমাদের ওষুধ রফতানি হয়। তাই বাংলা ও ইংরেজীতে এগুলো থাকতে হবে। এদিকে রিড ফার্মার ভেজাল প্যারাসিটামল সিরাপ খেয়ে ২৮ শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় মামলা করার সময় গাফিলতি থাকায় সাময়িক বরখাস্ত হওয়া তৎকালীন ওষুধ তত্ত্বাবধায়ক শফিকুল ইসলাম ও আলতাফ হোসেনের ঔষধ প্রশাসনের চাকরিতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আদালত। অন্যদিকে জোর করে বা প্রলোভন দেখিয়ে যদি প্রসাদ খাওয়ায় তাহলে সেটা অন্যায়। তবে আমরা কোন ধর্মীয় বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে চাই না। বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চগুলো এ আদেশ প্রদান করেছে।

সাড়ে ৩৬ কোটি টাকার মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ধ্বংস সংক্রান্ত স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতিবেদন পেয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে হাইকোর্ট। অধিদফতরের প্রতিবেদন দাখিলের পর বৃহস্পতিবার বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। ওই প্রতিবেদনে দেশের বিভিন্ন জেলায় সাড়ে চার হাজার ফার্মেসি পরিদর্শন করে ১৫২ মামলা ও মোট এক কোটি টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে বলেও তথ্য রয়েছে। আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এবিএম আলতাফ হোসেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার। ভোক্তা অধিকারের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী কামরুজ্জামান কচি।

শুনানিকালে আদালত বলে, এ কাজ প্রশংসনীয়। তবে এটা চলামান রাখতে হবে। জনসাধারণ, ব্যবসায়ী ও উৎপাদনকারী সবাইকে সচেতন হতে হবে। এছাড়া ওষুধের পাতায় (স্ট্রিপ) স্পষ্ট ও বড় হরফে বাংলা ও ইংরেজী লেখায় মেয়াদ, উৎপাদনের তারিখ ও মূল্য লেখার ব্যবস্থা রাখার বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে বলেছে আদালত। আইনজীবী কামরুজ্জামান কচি বলেন, ‘আইন অনুসারে এটা চলমান প্রক্রিয়া। সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করার বিধান রয়েছে।

ঔষধ প্রশাসনের দুই পরিচালকের চাকরিতে নিষেধাজ্ঞা ॥ রিড ফার্মার ভেজাল প্যারাসিটামল সিরাপ খেয়ে ২৮ শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় মামলা করার সময় গাফিলতি থাকায় সাময়িক বরখাস্ত হওয়া তৎকালীন ওষুধ তত্ত্বাবধায়ক শফিকুল ইসলাম ও আলতাফ হোসেনের ঔষধ প্রশাসনের চাকরিতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন হাইকোর্ট। ফলে তারা এখন আর ড্রাগ ইনস্টিটিউশনে চাকরি করতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন রিটকারী আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। তবে ঔষধ প্রশাসন ছাড়া অন্য কোন প্রতিষ্ঠানে তাদের পদায়ন করা যাবে। দু’জনের একজন এখন ঔষধ প্রসাশনের উপ-পরিচালক ও অপরজন সহকারী পরিচালক হিসেব কর্মরত।

প্রসাদ খাইয়ে স্কুলে মন্ত্রপাঠ করানো অন্যায় ॥ ইসকন নামে হিন্দু ধর্মালম্বীদের একটি এনজিও চট্টগ্রামের স্কুলে স্কুলে প্রসাদ খাইয়ে শিক্ষার্থীদের ‘হরে কৃষ্ণ হরে রাম’ মন্ত্রপাঠ করানোর বিষয়টি হাইকোর্টের নজরে আনা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার বিষয়টি নজরে আনেন। এ সময় তিনি একটি দৈনিকে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন পড়ে শোনান। হাইকোর্ট বলেন, একটা এনজিও স্কুলে খাবার বিতরণ করতে পারে। কিন্তু জোর করে বা প্রলোভন দেখিয়ে যদি প্রসাদ খাওয়ায় তাহলে সেটা অন্যায়। তবে আমরা কোন ধর্মীয় বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে চাই না। এর আগে শব-ই-বরাত নিয়েও আমরা হস্তক্ষেপ করিনি।