১৯ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সরকারের পতন ঘটিয়ে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা হবে

 সরকারের পতন ঘটিয়ে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা হবে
  • চট্টগ্রামে বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশে ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ আইনী প্রক্রিয়ায় দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া মুক্ত না হওয়ায় রাজপথে কঠোর আন্দোলন সংগ্রামের প্রস্তুতি নিতে কর্মী- সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এই সরকারের পতন ঘটিয়ে নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন করে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা হবে।

শনিবার বিকেলে চট্টগ্রামের কাজির দেউড়ি দলীয় কার্যালয় প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি কথাগুলো বলেন। বিএনপির মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা কোন মামলাই নয়। শুধু তাকে আটক রাখার জন্য মামলা সাজানো হয়েছে। ৩৬ মামলা দায়ের হয়েছে বিএনপির চেয়ারপার্সনের বিরুদ্ধে। তিনি খুবই অসুস্থ, ঠিকমতো হাঁটতে পারছেন না। তাকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। আইনী প্রক্রিয়ায় মুক্ত না হওয়ায় তিনি খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজপথের আন্দোলনে নেমে আসার জন্য তৃণমূলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানান।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় এই মহাসমাবেশে বক্তব্য রাখেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, বরকত উল্লাহ বুলু, মোঃ শাহজাহান, মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন, আবদুল আউয়াল মিন্টু, গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী এবং কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতৃবৃন্দ। সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির সভাপতি ডাঃ শাহাদাত হোসেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এ সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়। তাই তাদের জবাবদিহিতাও নেই। সারাদেশে বন্যা হচ্ছে। কিন্তু সেখানে তাদের কাউকে দেখা যাচ্ছে না। দমন-নিপীড়নের মুখে অসংখ্য মামলায় জর্জরিত বিরোধীদলের নেতাকর্মীরা এলাকায় থাকতে পারছেন না। সরকার গণতন্ত্রকে ভয় পায়, জনগণকে ভয় পায়। তাই অবৈধভাবে ক্ষমতায় থাকতে চায়। দেশে উন্নয়নের জোয়ার বইছে বলে সরকার যা প্রচার করছে তার সমালোচনা করে তিনি বলেন, এদেশ এখন ঋণের দেশ। ভেতরে ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে। ব্যাংকগুলোতে লুটপাট হচ্ছে।

ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন বলেন, এ সরকার গণতন্ত্র হত্যাকারী। খালেদা জিয়াকে তারা জেলে বন্দী করেছে ভোট চুরি করে ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য। খালেদা বন্দী থাকলেও জনগণ ধানের শীষে ভোট দেয়ার জন্য প্রস্তুত ছিল। তা বুঝতে পেরেই সরকার আগের রাতেই ভোট চুরি করেছে। এ সরকারকে একটি অস্বাভাবিক সরকার উল্লেখ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ৩৫ কেন্দ্রীয় নেতা বসে আছেন, কর্মীরা দেশ পরিচালনা করছেন।

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেন, আইনী প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেও আমরা ব্যর্থ হয়েছি। এমতাবস্থায় রাজপথ ছাড়া কোন বিকল্প নেই। তিনি বলেন, পুলিশকে সামাজিক নিরাপত্তার কাজে ব্যবহার না করে সরকার ব্যবহার করছে বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের দমনে।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, এ সরকারই অবৈধ। তাহলে এ সরকারের কাছে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে লাভ নেই। আন্দোলনের মাধ্যমে এ সরকারের পতন ঘটিয়ে খালেদা জিয়া এবং গণতন্ত্রকে মুক্ত করা হবে।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, সরকার খালেদা জিয়াকে কারাগারে বন্দী রেখেছে ইচ্ছামতো লুটপাট করার জন্য। খালেদা জিয়া থাকলে তা করতে দেবেন না। মুক্তিযুদ্ধ করেছি একটি গণতান্ত্রিক ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের জন্য। নেত্রীর মুক্তির দাবিতে যে কর্মসূচী দল থেকে আসবে তা বাস্তবায়নে প্রস্তুত থাকার জন্য তিনি নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।

চট্টগ্রামে বিএনপির মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে ছিল দলটির ব্যাপক প্রস্তুতি।

জনআতঙ্কে ভুগছে সরকার - ফখরুল ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, সরকার জনআতঙ্কে ভুগছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শনিবার দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ অভিযোগ করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, জনগণ নয় বরং আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও প্রশাসন যন্ত্রকে কব্জায় নিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতায় টিকে থাকতে চায় বর্তমান সরকার। তারা বিএনপিসহ দেশের সকল বিরোধী দলগুলোর মূলোৎপাটনের মাধ্যমে নব্য বাকশালী শাসন বলবত রেখে জনগণকে শাসন ও শোষণ করতে চায়। দেশব্যাপী জনগণের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টির জন্য হত্যা, গুম, অপহরণ ও নারী-শিশুদের ওপর নির্যাতনের মতো ভয়ঙ্কর মানবতাবিরোধী ঘটনা ঘটাচ্ছে। বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে যাতে দুঃশাসানের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে না পারে সেজন্যই তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে গ্রেফতারের মাধ্যমে কারাগারে বন্দী করে রাখার মতো অপকৌশলের আশ্রয় নিয়েছে সরকার।

আন্দোলনে গণতন্ত্র মুক্ত করেই ঘরে ফিরব- দুদু ॥ দেশে এখন গণতন্ত্র নেই মন্তব্য করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আন্দোলন শুরু হয়েছে। আন্দোলনে খালেদা জিয়া ও গণতন্ত্র মুক্ত করেই আমরা ঘরে ফিরব। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জিয়া পরিষদ আয়োজিত প্রতীকী অনশন কর্মসূচীতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।