১৯ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ছেলে ধরা সন্দেহে নয়, ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৩ ব্যক্তিকে গণপিটুনী

ছেলে ধরা সন্দেহে নয়, ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ৩ ব্যক্তিকে গণপিটুনী

নিজস্ব সংবাদদাতা, হবিগঞ্জ ॥ ছেলে ধরা সন্দেহে হবিগঞ্জের উপজেলা শায়েস্তাগঞ্জের অলিপুর ইন্ডাষ্ট্রিয়াল এলাকায় উৎশৃংখল জনতার হাতে ৩ ব্যক্তিকে গণপিটুনি শিকার হয়েছেন। আশংকাজনক অবস্থায় প্রত্যেককে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এরা হলো, জেলার মাধবপুর উপজেলাধীন নোয়াপাড়া কাশিপুর গ্রামের বাসিন্দা তোরাব আলীর পুত্র মুখলেছ মিয়া (৩২), একই এলাকার রতনপুর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রহিমের পুত্র গিয়াস উদ্দিন (৩৩) ও বরিশাল জেলার উজিড়পুর উপজেলাধীন হাতিপুর গ্রামের বাসিন্দা শাহেদ মোল্লার পুত্র সিরাজুল ইসলাম (৩০)। পুলিশ এই ঘটনাটিকে ছেলে ধরার গুজব হিসেবে উল্লেখ করে বলছে, এটি নিছক ডাকাতি সংঘটিত করার পরিকল্পনা ছিল। জনতার কবল থেকে উদ্ধারকৃত ওরা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ডাকাতি করার জন্যই ঘোরাফেরা করছিল। এসময় জনতার হাতে পিটুনীর শিকার হয় তারা।

পুলিশ জানায়, গতকাল রবিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে ওই এলাকার ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক দিয়ে একটি সিএনজি অটো রিক্সা যোগে এই তিন ব্যক্তি ঘোরাফেরা করছিলেন। এসময় ওরা ছেলে ধরা এম সন্দেহ হলে জনতা তাদের পাকড়াও করে পিটুনী শুরু করে। এ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা চালায়। এসময় জনতার হাতে দুলাল আহমেদ নামে এক কনস্টেবলও আহত হন। পরবর্তীতে গুরুতর আহত উক্ত তিন ব্যক্তিকে জনতার রোষানল থেকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করায় পুলিশ। এদিকে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা এমন ঘটনা পূনরাবৃত্তি রোধে জনগণকে সচেতন হবার পরামর্শ দিয়ে বলেছেন, আইন হাতে তুলে না নিয়ে এমন কোন সমস্যা অনুভব করলে পুলিশকে খবর দিন। পুলিশই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবে। গণপিটুনীর সাথে জড়িত থাকলে সে যেই হোক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়া আহত ব্যক্তিদের পরিচয় ও তাদের কি উদ্দেশ্য ছিল তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।