২০ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চাক্তাই খাল ও বন্দর লালদিয়ার চরে উচ্ছেদ অভিযান

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ চট্টগ্রাম মহানগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে গৃহীত মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন কাজের আওতায় সোমবার শুরু হয়েছে চাক্তাই খালের ওপর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান। এ অভিযানে সরানো হবে বহুতল ভবনসহ প্রায় তিন শ’ স্থাপনা। এদিকে, একইদিনে কর্ণফুলী নদীপাড়ের লালদিয়া এলাকায় অভিযান শুরু করেছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। সেখানে পনেরো একর জায়গায় গড়ে তোলা হবে টার্মিনাল।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (চউক) সূত্রে জানানো হয়, মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সহায়তায় সোমবার চাক্তাই খাল থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু হয়েছে। চউকের স্পেশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল আলম চৌধুরী এ অভিযান পরিচালনা করেন। পাঁচ দশমিক ৮৮১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে এ খালের আট একরেরও বেশি জায়গা বেদখল হয়ে আছে। সেখানে বেআইনীভাবে গড়ে উঠেছে বহুতল ভবন ও পাকা, সেমিপাকাসহ প্রায় তিন শ’ স্থাপনা। জলাবদ্ধতা নিরসনে বাস্তবায়নাধীন মেগা প্রকল্পের জন্য সকল অবৈধ স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়া হবে। চউকের নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক আহমেদ মঈনউদ্দিন জানান, চাক্তাই খালের পর পর্যায়ক্রমে মহানগরীর তেরোটি খালকে দখলমুক্ত করা হবে। উচ্ছেদ করা হবে সকল বেআইনী স্থাপনা। আগামী দুই মাসের মধ্যে খাল দখলমুক্ত করার লক্ষ্যে অভিযান শুরু করা হয়েছে। উল্লেখ্য, চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসনে বাস্তবায়নাধীন রয়েছে পাঁচ হাজার ৬১৬ কোটি ৫০ লাখ টাকার প্রকল্প। তিন বছর মেয়াদে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। প্রকল্পের প্রথম ধাপে রয়েছে ৩৬০ খাল থেকে মাটি অপসারণ এবং তিন শ’ কিলোমিটার নতুন ড্রেন নির্মাণ। খালগুলো খনন, খালের পাশে ১৭৬ কিলোমিটার রিটেইনিং ওয়াল নির্মাণ, ৮৫ কিলোমিটার সড়ক এবং ৪২ সিল্ট ট্রেপ (বালি জমার স্থান) এবং এরসঙ্গে সংশ্লিষ্ট আরও কিছু কার্যক্রম এ মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নে ২০১৮ সালের ৯ এপ্রিল বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করে চউক।