২৪ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চুয়াডাঙ্গার ভারত সীমান্তে বাংলাদেশীর এক গরুর রাখালের মৃতদেহ উদ্ধার

চুয়াডাঙ্গার ভারত সীমান্তে বাংলাদেশীর এক গরুর রাখালের মৃতদেহ উদ্ধার

নিজস্ব সংবাদদাতা, চুয়াডাঙ্গা ॥ চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ঠাকুরপুর ভারত সীমান্তে আবদুল্লাহ (৩৫) নামের এক বাংলাদেশী গরুর রাখালের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। দামুড়হুদা মডেল থানার পুলিশ আজ বুধবার দুপুরে মৃতদেহটি উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

ঠাকুরপুর সীমান্তের ৮৯ ও ৯০ নম্বর প্রধান খুঁটির মধ্যবর্তী এলাকায় গত মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আবদুল্লাহ ঠাকুরপুর গ্রামের গল্লাপাড়ার গোলাম রসুলের ছেলে এবং পেশায় গরুর রাখাল।

নিহতের স্বজন ও প্রতিবেশীদের দাবী, ভারত থেকে গরু আনার সময় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) আবদুল্লাহকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। তবে বিজিবির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তদন্ত করে পুরো বিষয়টি জানানো হবে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, আবদুল¬াহ গরুর রাখাল ছিলো। জমিতে চাষাবাদের পাশাপাশি দীর্ঘদিন ধরে ভারত থেকে গরু নিয়ে এনে এলাকায় ব্যবসা করতো। ব্যক্তিগত জীবনে তার স্ত্রী রওশন আরা এবং প্রিয়া খাতুন (১৭) ও আশিকুল (১২) নামের দুই সন্তান আছে। সীমান্ত পথে গরু আনতে ভারতের উদ্দেশ্যে আবদুল¬াহ বাড়ি থেকে বের হয়। এদিন বুধবার সকালে গ্রামের মাঠে কয়েকজন কৃষক কাজ করতে গিয়ে তাঁর মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে বাড়িতে খবর দেয়। স্বজনেরা সকাল সাড়ে ৮ দিকে ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহটি বাড়িতে নিয়ে আসে। নিহতের চাচাতো ভাই আবদুল গণি ও প্রতিবেশী আসাদুল হকের দাবি, তাঁদের বিশ্বাস, বিএসএফ সদস্যরাই আবদুল্লাহকে পিটিয়ে হত্যা করেছে।

খবর পেয়ে দামুড়হুদা মডেল থানার পুলিশ পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুকুমার বিশ্বাস বলেন, নিহত ব্যক্তি একজন চিহ্নিত অবৈধ গরুর কারবারী। গরু পাচারের ঘটনায় দামুড়হুদা মডেল থানায় তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক মামলা আছে। বিএসএফের সদস্যরা তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করেছে, এ ব্যাপারে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে।

চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পরিচালক সাজ্জাদ সরোয়ার বলেন, আব্দুল্লাহকে কে বা কারা হত্যা করেছে, সে বিষয় নিশ্চিত না হয়ে মন্তব্য করা যাবে না।

নির্বাচিত সংবাদ