১৮ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভোলায় ঈদে মেহেদি রাঙাতে গিয়ে কিশোরী ধর্ষিত

  • বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২ ধর্ষক

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভোলা, ১৪ আগস্ট ॥ ভোলায় এক কৃষকের কিশোরী কন্যা ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীর আর ঈদের আনন্দ করা হলো না। ঈদের আগের রাতে মেহেদি দিয়ে হাত রাঙাতে গিয়ে সম্ভ্রম হারায় সে। তাকে হাত, পা ও মুখ বেঁধে পালাক্রমে নরপশু দুই যুবক ধর্ষণ করেছে। ভোলার আলোচিত বর্বর এই ঘটনাটি ঘটে ঈদ উল আজহার আগের রবিবার রাত ৮টার দিকে ভোলা সদর উপজেলার চর সামাইয়া ইউনিয়নের চর সিফলী গ্রামে। গুরুতর অবস্থায় বর্তমানে ওই কিশোরী বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনার ২ দিন পর বুধবার ভোরে ওই ধর্ষণ মামলার প্রধান ২ আসামি পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে।

নিহতরা হলেন- ভোলা সদর উপজেলার চর সামাইয়া ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের কামাল মিস্ত্রির ছেলে মোহরী মঞ্জুর আলম (৩০) ও সৈয়দ আহম্মেদের ছেলে আল আমিন (২৫)। এ সময় তাদের কাছ থেকে দেশীয় বন্দুক, বন্দুকের গুলি, গুলির খোসা ও ২টি বগি দা উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও তাদের সহযোগী একজনকে আটক করা হয়েছে। ধর্ষিতার পিতা সাংবাদিকদেও কাছে অভিযোগ করেন, এ ঘটনার সঙ্গে অনেকে জড়িত। ডিবি পুলিশের সদস্য রাসেল আসামিদের দিয়ে ইয়াবা বিক্রি করত।

ধর্ষিতার কৃষক পিতা ও তার পরিবারের সদস্যরা জানান, ঈদে তার আদরের দুই মেয়ের জন্য বাজার থেকে কসমেটিকসহ মেহেদি দেয়া হয়। রবিবার সন্ধ্যার দিকে তাদের বাবা গরু বিক্রির টাকা আনতে ভোলা শহরে যান। বাবা শহরে চলে যাওয়ার পর দুই বোন রাত ৮টার দিকে পার্শ্ববর্তী ঘরে থাকা আত্মীয় মাহাফুজের স্ত্রী লিজার কাছে হাতে মেদেহি দিয়ে সাজতে যায়। প্রতি ঈদেই তার কাছে সাজতে যায়।