১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বঙ্গবন্ধু ছিলেন জনগণের সেবক : আইন কমিশনের চেয়ারম্যান

বঙ্গবন্ধু ছিলেন জনগণের সেবক  :  আইন কমিশনের চেয়ারম্যান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আইন কমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি এ.বি.এম. খায়রুল হক বলেছেন , বঙ্গবন্ধু মনে করতেন তিনি দেশের শাসক ছিলেন না, তিনি ছিলেন দেশের জনগণের সেবক। আমরা যদি স্বীয় স্বীয় কর্তব্য নিষ্ঠার সাথে পালন করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে পারি তবেই বঙ্গবন্ধুর রক্তের ঋণ শোধ হবে। রবিবার আইন কমিশনের উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৪ তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভার সভাপতির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

সভায় কমিশনের সদস্য বিচারপতি এ.টি.এম. ফজলে কবীর, সচিব মীর রুহুল আমিন, মুখ্য গবেষণা কর্মকর্তা ফউজুল আজিম সহ কমিশনে কর্মরত সকল কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই বঙ্গবন্ধুসহ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে নিহত সকল শহীদদের বিদেহী আত্মার প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। উক্ত আলোচনা সভায় বক্তাগণ বঙ্গবন্ধুর জীবনাচরণ ও জীবন দর্শনের উপর বিশদ আলোকপাত করেন।

বিশেষ করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনে বঙ্গবন্ধুর অসামান্য ভূমিকা, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে যুদ্ধবিদ্ধস্ত বাংলাদেশের পুনর্গঠনে তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব, নব্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভে বিশেষ কুটনৈতিক সাফল্য, স্বাধীনতা অর্জনের পর দ্রুততম সময়ে বাংলাদেশকে আধুনিক একটি সংবিধান উপহার প্রদান প্রভৃতি বিষয়ে আলোচকবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর অবদান গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন।

বঙ্গবন্ধুর জীবনী ও রাজনৈতিক দর্শন সম্পর্কে ভবিষ্যত প্রজন্মকে সচেতন করার জন্য জাতীয় পাঠ্যক্রমে এ বিষয়সমূহ অন্তভুক্ত করার জন্য সভায় আহবান জানানো হয়। কমিশনের চেয়ারম্যান তাঁর বক্তব্যে এ দেশের আপামর জনগণের প্রতি বঙ্গবন্ধুর অকৃত্তিম ভালোবাসার বিভিন্ন দৃষ্টান্ত তুলে ধরেন। তিনি উল্লেখ করেন যে বঙ্গবন্ধু মনে করতেন তিনি দেশের শাসক ছিলেন না, তিনি ছিলেন দেশের জনগণের সেবক।

তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, আমরা যদি স্বীয় স্বীয় কর্তব্য নিষ্ঠার সাথে পালন করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে পারি তবেই বঙ্গবন্ধুর রক্তের ঋণ শোধ হবে। পরিশেষে সভায় অংশগ্রহণকারী সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্তৃক বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে দেশ ও জাতির কল্যাণে নিজেদের নিয়োজিত করার প্রতিশ্রুতি জ্ঞাপন করার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।