২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফিটনেসে উন্নতির জন্য সময় প্রয়োজন

ফিটনেসে  উন্নতির জন্য  সময় প্রয়োজন

মোঃ মামুন রশীদ ॥ দীর্ঘ ৮ মাস পর আবার ক্রিকেটারদের ফিটনেস টেস্ট নেয়ার সুযোগ পেয়েছেন স্ট্রেন্থ এ্যান্ড কন্ডিশনিং কোচ মারিও ভিল্লাভারায়ন। গত অক্টোবর থেকে টানা খেলার মধ্যে থাকায় জাতীয় দলের ও বাইরের ক্রিকেটারদের ফিটনেস দেখার সুযোগ হয়নি। সোমবার চার দিনব্যাপী কন্ডিশনিং ক্যাম্পের প্রথম দিন তিনি অবশেষে স্ক্রিনিং ও বিপ টেস্ট দেখেছেন ক্রিকেটারদের। এদিন সকালে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়াম ও ইনডোরে ২২ ক্রিকেটারের টেস্ট দেখার পর কিছুটা সন্তুষ্ট হলেও পুরোপুরি খুশি হতে পারেননি। কয়েকজনের ফিটনেস যথেষ্ট ভাল থাকলেও তিনি দাবি করেছেন উন্নতির প্রয়োজন রয়েছে সবারই। তবে সেজন্য ৪ দিন যথেষ্ট সময় নয়। ট্রেনার ভিল্লাভারায়ন জানিয়েছেন পুরোপুরি উন্নতির জন্য মূলত ৪ থেকে ৬ সপ্তাহের প্রয়োজন। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ব্যস্ততার কারণে সেই সময়টা পাওয়া সম্ভব নয়। সেজন্য স্কিল ক্যাম্প চলার সময়েই ফিটনেস নিয়ে কাজ করার সুযোগ বের করতে হবে।

বিশ্বকাপে বেশকিছু অপরিহার্য ক্রিকেটার ইনজুরি নিয়ে খেলা চালিয়ে গেছেন আবার অনেক ক্রিকেটারই ছোটখাটো ইনজুরিতে পড়েছেন। গত অক্টোবর থেকেই টানা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ততা ছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের। সে কারণে কন্ডিশনিং ক্যাম্প করার সুযোগ হয়নি। দীর্ঘ প্রায় ৮ মাস পর ভিল্লাভারায়ন ক্রিকেটারদের ফিটনেস পরখের সুযোগ পেয়েছেন সোমবার। দীর্ঘ ৩ ঘণ্টায় তিনি ২২ ক্রিকেটারকে দেখেছেন। এরপর ভিল্লাভারায়ন বলেন, ‘৮ মাস পর আবার আমরা খেলোয়াড়দের ফিটনেস পরীক্ষা করলাম। কারণ গত অক্টোবর থেকে অব্যাহতভাবে আমরা খেলে যাচ্ছি। এখন দেখার প্রয়োজন আসন্ন ক্রিকেট ব্যস্ততার আগে তারা কোন পর্যায়ে আছে। তাই আজ দেখা হয়েছে। আমি তাদের যে অবস্থা দেখেছি তাতে করে মোটামুটি সন্তুষ্ট, কিন্তু খুশি নই। কারণ, অনেক উন্নতি করার জায়গা আছে। এটা অবশ্য স্বাভাবিকভাবেই নিতে হবে, কারণ আমরা গত আট মাস ফিটনেসের পরীক্ষা নিতে পারিনি। তারা যে সেরা অবস্থানে থাকবে না এটাই স্বাভাবিক, কিন্তু খুব খারাপও নয় অবস্থা। সেদিক থেকে আমি সন্তুষ্ট।’ সাকিব আল হাসান ছুটিতে থাকায় তিনি যোগ দেননি, ১০ ক্রিকেটার ইমার্জিং দলের হয়ে ব্যস্ত তাই তারা প্রথম দিনের ক্যাম্পে ছিলেন না, সাব্বির রহমান বিয়ের জন্য আপাতত নেই, মাশরাফি বিন মর্তুজা ফিটনেস টেস্ট দেননি, পায়ে ব্যথা থাকার কারণে সৌম্য সরকারও পরীক্ষা দেননি। তবে ক্যাম্পের জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ঘোষিত ৩৫ ক্রিকেটারের তালিকায় না থাকলেও এদিন উপস্থিত ছিলেন পেস বোলিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

সবমিলিয়ে ২২ জন ছিলেন প্রথম দিনের ক্যাম্পে। বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের ম্যানেজার সাব্বির খান জানিয়েছেন সাকিব ক্যাম্পে যোগ দেবেন ২৫ আগস্ট। অর্থাৎ ততদিনে স্কিল ক্যাম্প শুরু হয়ে যাবে। প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো আজ আসার পরদিনই শেষ হবে কন্ডিশনিং ক্যাম্প। তারপর শুরু হবে ব্যাট-বলের স্কিল ক্যাম্প। যদিও ঐচ্ছিকভাবে কয়েকজন ক্রিকেটার ব্যাট-বলের অনুশীলনটাও করছেন। আনুষ্ঠানিকভাবে স্কিল ক্যাম্পের শুরুতেই সাকিব থাকতে পারছেন না সেটাও নিশ্চিত। কারণ ২৩ আগস্ট শুরু হতে পারে ব্যাট-বলের অনুশীলন ক্যাম্প। ৪/৫ দিন ডোমিঙ্গোর অধীনে সেই অনুশীলন হওয়ার পরই দল ঘোষণা হবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের দল। এ বিষয়ে নান্নু বললেন, ‘সবেমাত্র ফিটনেস ক্যাম্প শুরু হয়েছে। কোচ ডোমিঙ্গো আসার পর তিনি ক্রিকেটারদের দেখবেন, অনুশীলন চলবে তারপর আমরা দল ঘোষণা করব। সেই দলটা আমরা আগামী ২৮ আগস্ট দিতে পারি।’ কিন্তু এর আগে ক্রিকেটারদের ফিটনেসে যথেষ্ট উন্নতি সম্ভব হবে? মাত্র ৪ দিনের ক্যাম্প সেজন্য যথেষ্ট নয় বলে দাবি করেছেন ট্রেনার ভিল্লাভারায়ন। তিনি বলেন, ‘কিছু ছেলে আছে যাদের নিয়ে কিছু কাজ করতে হবে। আর কেউ কেউ আছে যথেষ্ট ভাল, কিন্তু তারপরও উন্নতির জায়গা আছে অবশ্যই। আমি নির্দিষ্টভাবে কারও কথা বলতে চাই না। সবাইকে নিয়েই উন্নতির জন্য কাজ করতে হবে। ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি না এটা (৪/৫ দিন) উন্নতির জন্য যথেষ্ট সময়। ছেলেদের আসলে প্রয়োজন ৪ থেকে ৬ সপ্তাহ সময়ের। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য আমরা জানি এত সময় পাওয়া সম্ভব নয়। আমরা সেজন্য স্কিল ক্যাম্পেও সুযোগ বের করে নিয়ে ফিটনেসের কাজ করতে পারি উন্নতির জন্য।’

ক্রিকেটারদের ফিটনেসে দ্রুত উন্নতিটা প্রয়োজন জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের। সাম্প্রতিক সময়ে খেলা ম্যাচগুলোয় দেখা গেছে ফিল্ডিংয়ে বেহাল অবস্থা। তবে ক্যাচ হাতছাড়া করার সঙ্গে ভিল্লাভারায়ন ফিটনেস সমস্যাকে মেলাতে নারাজ। তিনি বলেন, ‘আমি বলতে চাই না ওইটাই কারণ বা এটাই কারণ। ফিটনেসের কারণে কেউ ক্যাচ হাতছাড়া করেছে এটা বলা ঠিক না। এখানে অবশ্যই স্কিলের ব্যাপার আছে।’ মাশরাফি প্রথম দিনের ক্যাম্পে থাকলেও তিনি ফিটনেস টেস্ট দেননি। এর পরিবর্তে ইমার্জিং দলের ক্রিকেটারদের অনুপ্রাণিত করতে তাদের কিছু পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। ক্যাম্পের বাইরে থাকলেও সাইফউদ্দিন অংশ নিয়েছেন ফিটনেস টেস্টে। সৌম্য পায়ে ব্যথা থাকায় এক রাউন্ড দৌড়েছেন স্ক্রিনিংয়ের সময়। আর রিয়াদ ক্রমেই ভাল অবস্থানে চলে আসছেন। ভিল্লাভারায়ন বলেন, ‘রিয়াদ, সাইফউদ্দিনের যে কাজগুলো করতে হবে তারা সেটা ভালভাবেই সম্পন্ন করেছে। সেটা অনেকটাই সন্তোষজনক।

কিন্তু আমি আবার বলছি আমাদের অবশ্যই তাদের নিয়ে কাজ করে যাওয়ার তাগাদা দিতে হবে। নতুনদের মধ্যে আমার সঙ্গে শুধু জহুরুল ছিল, তাকে আমার ভালই লেগেছে। আর আগামী বছরের আগে আমাদের কোন ওয়ানডে ক্রিকেট খেলতে হবে না। সে কারণে মাশরাফির ফিটনেস টেস্ট নিয়ে কিছু করার প্রয়োজন আপাতত আছে বলে মনে করি না। আগামী ৬ মাসের মধ্যে হয়ত ওয়ানডে নিয়ে ভাবতে হবে। তাই আগামীতে আমরা তাকে নিয়ে কাজ শুরু করব।’