২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুয়াকাটা সৈকত সুরক্ষা বাধেঁর বেহাল দশা

কুয়াকাটা সৈকত সুরক্ষা বাধেঁর বেহাল দশা

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া ॥ কুয়াকাটা সৈকতের ভাঙ্গন ঠেকাতে জরুরি সুরক্ষা প্রতিরোধের কাজ শেষ না হতেই জিও টিউবের বালু বেরিয়ে গেছে। মিশে গেছে বেলাভূমের সঙ্গে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের দাবি ৯০ শতাংশ কাজ শেষ করেছেন। কাজের মান নিয়ে স্থানীয়দের অভিযোগ রয়েছে। সিডিউল যথাযথ মানা হয়নি। টিউবে ভরা হয়েছে সৈকতের লোকাল বালু। নিম্নমানের টিউব ব্যবহার করা হয়েছে। এরই মধ্যে এই কাজ পাউবো কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেয়ার চেষ্টা চলছে বলেও কথা উঠেছে। কুয়াকাটা সৈকতে শুন্যপয়েন্টর পুর্ব পাশের জিও ব্যাগ ও টিউব স্থাপন মোটামুটি হয়েছে। কিন্তু পশ্চিম পাশে করা হয়েছে যাচ্ছে-তাই। ফলে এ বর্ষা মৌসুম আদৌ সাগরের ঢেউয়ের তান্ডব থেকে সৈকতে বেলাভূমি রক্ষা হবে কি না তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের অর্থায়নে জিও ব্যাগ দিয়ে সুরক্ষা বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ ওঠে কাজের শুরু থেকেই। প্রকাশ্যে জিও টিউবে লোকাল বালু ভরাট করা। টিউবের সামনে সৈকত থেকে বালু কেটে গর্ত করা হয়েছে। জিও টিউব ও ব্যাগে ২০০ নম্বর সিপি বালু ভরে সৈকত রক্ষার কাজ করার নিয়ম রয়েছে। সেখানে বেশির ভাগই দেয়া হয়েছে সৈকতের বালু। কাজের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় তরিঘড়ি করে দিনে ও রাতের আধারে লোকাল বালু ভরাট করা হয়। এবড়োথেবড়ো জিও টিউব স্থাপন করায় সৈকতের সৌন্দর্য হারিয়ে গেছে। জিও ব্যাগ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বিজেজিও টেক্্রটাইল লিমিটেড কোম্পানী এ কাজের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে সঠিক ভাবে কাজ করার জন্য সতর্ক করে দিয়েছেন। পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলীকে বলেছেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়া সার্কেলের নির্বাহী প্রকৌশলী খান মোহাম্মাদ অলিউজ্জামান বলেন, কাজের সময়সীমা বৃদ্ধি করা হয়েছে। যথাযথভাবে কাজ করার পরেই বুঝে নেয়া হবে। জিও টিউব থেকে বালু বের হয়ে যাওয়া প্রসংগে তিনি বলেন, পর্যটকরা টিউব কেটে ফেলার কারনে বালু বের হয়ে গেছে। এজন্য তিনি পর্যটকদের দুষলেন। সকলকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ এ প্রকৌশলীর।