২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

খাদ্যে বিষ মনে বিষ

  • আজিজ আহমেদ

জীবন ধারণের জন্য খাদ্য প্রয়োজন, ওষুধ প্রয়োজন রোগ হলে। অথচ কি’না সেই খাদ্যে এবং ওষুধেও ভেজাল! আমাদের দেশের শহুরে কিংবা গ্রামের বাজারে ভেজাল এমনভাবে ঢুকে গেছে যে, আমরা যেন এখন ওতেই অভ্যস্ত হয়ে গেছি। বাজারের ফলমূল, শাক-সবজি, মাছ, মাংসসহ দৈনন্দিন জীবনের প্রত্যেকটি খাদ্যেই ভেজাল মিশিয়ে থাকে অসাধু ব্যবসায়ীরা। এছাড়াও শিশুখাদ্যের মধ্যেও ভেজাল মেশানো হচ্ছে। ফলে শিশুরা বেড়েই উঠছে মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে দিয়ে। আর এই ভেজাল খাদ্য গ্রহণের ফলে আমাদের স্বাস্থ্যের মারাত্মক ক্ষতি সাধন হচ্ছে। একদল অসাধু ব্যবসায়ী নিজেদের অধিক মুনাফার জন্য আমাদের বিষ খাওয়াচ্ছে। আর এতে আমাদের শরীরে এমনভাবে ক্ষতি হচ্ছে যে বিভিন্ন ধরনের রোগব্যাধির আক্রমণ হচ্ছে। ফলে অকালে প্রাণ হারাচ্ছে অনেক মানুষ। আমাদের দৈনন্দিন বাজারের প্রত্যেকটি খাদ্যজাতীয় দ্রব্যের মধ্যেই ভেজালে ছেয়ে গেছে। ফরমালিন, কার্বাইড, ইউরিয়া সার, হাইড্রোজসহ নানারকম ক্ষতিকর ও রাসায়নিক পদার্থ খাদ্যে ব্যবহার বন্ধ করা যাচ্ছে না কোনভাবেই। বছরের পর বছর ধরে খাদ্যে ভেজাল দেয়াসহ বিষ মেশানো হচ্ছে। আর এ নিয়ে গণমাধ্যমে খবর আসে। কালেভদ্রে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানও চলে। কিন্তু অপরাধীরা শেষ অবধি ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যায়। এর একটি কারণ তা হচ্ছে আইন প্রয়োগে উদাসীনতা। খাদ্যে ভেজালের জন্য শাস্তির বিধান থাকলেও তা প্রয়োগে আইন প্রয়োগকারী ব্যক্তিদের যথেষ্ট কার্পণ্য হতে দেখা যায়। যার ফলে অসাধু ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফার লোভে খাদ্যে ভেজাল মিশিয়ে থাকে। আর সেসব খাদ্যদ্রব্য গ্রহণ করা মানেই কিডনি, লিভার সিরোসিস, জন্ডিস আর ক্যান্সারকে স্বাগত জানানো। ফলে এসব সমস্যার কারণে জীবনের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়ে থাকে এবং জীবনের ঝুঁকি থাকে।

এ থেকে মুক্তি পেতে হলে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। আমাদের দেশের প্রচলিত আইনে খাদ্যে ভেজাল মেশানো সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রয়েছে। অথচ অজ্ঞাত কারণেই ওই আইনটি প্রয়োগ করা হচ্ছে না। খাদ্যে ভেজালকারীদের আইনে নির্ধারিত সর্বোচ্চ শাস্তি দেয়ার কোন নজির এই দেশে নেই। অথচ উন্নত দেশগুলোতে খাদ্যে ভেজাল মেশানোর অপরাধে যথোপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে সে দেশের আইন অনুসরণের মাধ্যমে। ফলে ওই সব এই সমস্যা অনেকটা লাঘব হয়েছে। যতদূর জানা যায় খাদ্যে ভেজাল মেশানোর অপরাধে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে যাবজ্জীবন, চীনে মৃত্যুদণ্ড, যুক্তরাষ্ট্রে দশ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড বিধান রয়েছে। এসব দেশে বর্তমানে এই কঠোর আইনেই বিচার হচ্ছে। ফলে অসাধুরা খাদ্যে কিংবা ওষুধে ভেজাল দিতে সাহস পায় না।

টাঙ্গাইল থেকে