১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শুরুতেই সেরেনা-শারাপোভার লড়াই

 শুরুতেই সেরেনা-শারাপোভার লড়াই

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ মৌসুমের শেষ গ্র্যান্ডস্লাম টুর্নামেন্ট ইউএস ওপেন। সোমবার পর্দা উঠবে টেনিসের মেজর এই আসরের। ইউএস ওপেনের প্রথম রাউন্ডেই এবার মুখোমুখি হবেন সেরেনা উইলিয়ামস এবং মারিয়া শারাপোভা। বৃহস্পতিবারের ড্র নিশ্চিত করেছে তা।

সেরেনা উইলিয়ামস ও মারিয়া শারাপোভা তাদের সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে ২১বার একে অপরের বিপক্ষে খেলছেন। এই লড়াইয়ে সেরেনা এগিয়ে রয়েছেন ১৯-২ ব্যবধানে। অর্থাৎ আমেরিকান তারকার বিপক্ষে মুখোমুখি লড়াইয়ে পাত্তাই পাননি শারাপোভা। এবার কী পারবেন রাশিয়ান টেনিসের এই গ্ল্যামারগার্ল? টেনিসপ্রেমীদের অপেক্ষা এখন সেটাই দেখার। তবে যে ফলাফলই আসুক না কেন এবার প্রথম রাউন্ড থেকেই যে অঘটন দেখবে টেনিসপ্রেমীরা সেটা নিশ্চিত।

২০১৬ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে সর্বশেষ একে অপরের বিপক্ষে কোর্টে নেমেছিলেন সেরেনা-শারাপোভা। এরপর আর দেখা যায়নি এই দুই তারকার লড়াই। ২০১৮ সালের ফ্রেঞ্চ ওপেনের চতুর্থ রাউন্ডে খেলার কথা ছিল তাদের। কিন্তু সেই ম্যাচের আগেই ইনজুরির কারণে টুর্নামেন্ট থেকেই নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন সেরেনা উইলিয়ামস। এর ফলে প্রায় তিন বছর পর ইউএস ওপেনের প্রথম রাউন্ডে আবারও সেরেনা-শারাপোভার লড়াই দেখার সুযোগ পাচ্ছেন ভক্ত-অনুরাগীরা।

তবে ইউএস ওপেন টেনিসে মহিলা এককে শীর্ষ বাছাই হিসেবে খেলছেন বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জাপানের নাওমি ওসাকা। গতবার যুক্তরাষ্ট্রের সেরেনা উইলিয়ামসকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো কোন গ্র্যান্ডস্লামের শিরোপা জয় করেছিলেন ওসাকা। সরাসরি সেটেই সেরেনাকে হারিয়ে দেন তিনি। ৬-২ ও ৬-৪ গেমে জয় পান ২১ বছর বয়সী ওসাকা। ইউএস ওপেন ছাড়াও চলতি বছর অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শিরোপা জিতেছেন ওসাকা। সেই সঙ্গে গড়েন টানা দুইবার গ্র্যান্ডস্লাম জয়ের অবিস্মরণীয় কীর্তিও। কিন্তু মেজর এই দুই শিরোপা ছাড়া আর কোন আসরে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি তিনি। এমনকি সদ্য সমাপ্ত সিনসিনাটি মাস্টার্সেও নিষ্প্রভ ছিলেন ওসাকা। কোর্টে নিষ্প্রভ থাকার পাশাপাশি ইনজুরির কবলেও পড়েন জাপানের তরুণ প্রতিভাবান এই খেলোয়াড়। যদিওবা বর্তমান বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বরে অবস্থান করছেন ওসাকা।

ইউএস ওপেনে দ্বিতীয় বাছাই হিসেবে কোর্টে নামবেন অস্ট্রেলিয়ার এ্যাশলে বার্টি। ইউএস ওপেনে ভাল সাফল্য নেই তার। ২০১৮ সালে চতুর্থ রাউন্ড খেলতে পারাটাই তার সেরা সাফল্য। তবে ক্যারিয়ারে একবার গ্র্যান্ডস্ল্যাম জয়ের রেকর্ড রয়েছে বার্টির। চলতি বছরই ফ্রেঞ্চ ওপেনের শিরোপা জিতেন তিনি। এরপর বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানটাও দখল করেছিলেন এই অস্ট্রেলিয়ান। কিন্তু সম্প্রতি রজার্স কাপে ব্যর্থ হওয়ার কারণে তাকে হটিয়ে শীর্ষে উঠে যান নাওমি ওসাকা। তৃতীয় বাছাই হয়েছেন চেক প্রজাতন্ত্রের কারোলিনা পিসকোভা। ২০১৬ সালে ফাইনাল খেললেও শিরোপা জিততে পারেননি তিনি। ফলে গ্র্যান্ডস্ল্যামে এটিই তার সেরা সাফল্য।

চতুর্থস্থানে রয়েছেন দু’টি গ্র্যান্ডস্লামের মালিক রোমানিয়ার সিমোনা হ্যালেপ। তবে ইউএস ওপেনে সেমিফাইনালের গ-ি পর্যন্তই যেতে পেরেছেন তিনি। তাও সেটি ২০১৫ সালে। ২০১৮ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেন ও ২০১৯ সালে উইম্বলডনের শিরোপা জয় করেন হ্যালেপ। যে কারণে এবার ফেবারিটের তকমাটা গায়ে মাখানো থাকবে তার। ২৩ গ্র্যান্ডস্লামের মালিক সেরেনা উইলিয়ামস রয়েছেন অষ্টম স্থানে। ২০১৪ সালে সর্বশেষ ইউএস ওপেনের শিরোপা জিতেছিলেন সেরেনা। এরপর এই আসরে আর সফল হতে পারেননি তিনি। সদ্য সমাপ্ত উইম্বলডনেরও ফাইনাল খেলেছিলেন সেরেনা। কিন্তু শিরোপার লড়াইয়ে সিমোনা হ্যালেপের কাছে হেরে যান তিনি। সেরেনার সামনে নতুন মাইলফলকের হাতছানি। আর মাত্র একটি গ্র্যান্ডস্লাম জিতলেই গড়বেন নতুন ইতিহাস। মার্গারেট কোর্টকে ছাড়িয়ে এককভাবে সর্বোচ্চ ২৪ গ্র্যান্ডস্লাম জয়ের নতুন নজির গড়বেন তিনি। তবে সেই পথে বড় পরীক্ষাটা প্রথম রাউন্ডেই দিতে হবে সেরেনাকে।

এই মাত্রা পাওয়া