২৫ আগস্ট ২০১৯

কাশ্মীর যেতে পারলেন না রাহুল, দিল্লীতে ফেরত

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ আরও ১১ রাজনীতিককে নিয়ে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী শ্রীনগর বিমানবন্দরে পৌঁছালেও তাদের সেখান থেকেই দিল্লীতে ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে বলে জানায় ভারতের কয়েকটি সংবাদমাধ্যম। সরকারী নিষেধ উপেক্ষা করে রাহুল তার সহযাত্রীদের নিয়ে শনিবার জম্মু ও কাশ্মীর রওনা হওয়ার ঘোষণা দেন। তবে রাহুলের দলকে শ্রীনগরে যাওয়ার অনুমতি দেয়া নিয়ে তখনই সংবাদমাধ্যমগুলো সন্দেহ প্রকাশ করেছিল। কারণ, বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর এখন পর্যন্ত কোন রাজনৈতিক নেতাকে কাশ্মীরে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। খবর এনডিটিপি ও আনন্দবাজারের।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সরকার গত ৫ অগাস্ট জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে রাজ্যটিকে কেন্দ্রশাসিত দুটি অঞ্চলে ভাগ করে। বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর থেকেই সেখানে বিশেষ করে রাজ্যের সবচেয়ে বড় নগরী শ্রীনগরে উত্তেজনা বিরাজ করছে এবং নানা জায়গায় প্রতিবাদ-বিক্ষোভের খবর পাওয়া যাচ্ছে।

শুক্রবার জুমার নামাজের পর শ্রীনগর উপকণ্ঠের সোউরায় শত শত বিক্ষোভকারী সড়কে নেমে বিক্ষোভ শুরু করে বলে জানায় বিবিসি। পুলিশ বিক্ষোভকারীদের বাধা দিলে তারা পুলিশের দিকে পাথর নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ টিয়ার গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করলে অন্তত দুই বিক্ষোভকারী আহত হন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত বিবিসির এক প্রতিনিধি বলেন, আহত একজনের চোখ থেকে রক্ত পড়ছিল। অন্যজন গলায় আঘাত পেয়েছেন। যদিও ঠিক কতজন আহত হয়েছেন তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। কারণ আহত অনেকে গ্রেফতার হওয়ার ভয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যাননি বলে জানায় বিবিসি। এ পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক নেতাদের কাশ্মীর সফর করা উচিত হবে না বলে এক টুইটে পরামর্শ দিয়েছেন জম্মু ও কাশ্মীর ইনফরমেশন এ্যান্ড পাবলিক রিলেশন অধিদফতর।

‘এমন একটা সময় যখন সরকার জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণকে সীমান্তের ওপার থেকে আসা সন্ত্রাসবাদ ও হামলা থেকে সুরক্ষার চেষ্টা করছেন তখন রাজনৈতিক নেতাদের শ্রীনগর সফরে যাওয়া উচিত হবে না। কারণ, তাতে অন্যান্য লোকজন অসুবিধায় পড়বেন...।’

রাহুলের আগে কংগ্রেস পার্টির জ্যেষ্ঠ নেতা গুলাম নবী আজাদ দুইবার কাশ্মীর যাওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন। দুইবারই তাকে জম্মু বিমানবন্দরে আটকে দিয়ে জোর করে দিল্লী পাঠিয়ে দেয়া হয়।

সর্বশেষ গত মঙ্গলবার তিনি এ চেষ্টা করেছিলেন বলে এনডিটিভি।