২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই ঘন্টায়    
ADS

নীলফামারীর কিশোরীগঞ্জ ইউএনও সরকারী মোবাইল নম্বর ক্লোন করে চাঁদাদাবি

নীলফামারীর কিশোরীগঞ্জ ইউএনও সরকারী মোবাইল নম্বর ক্লোন করে চাঁদাদাবি

স্টাফ রিপোর্টার, নীলফামারী ॥ জেলার কিশোরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) আবুল কালাম আজাদের সরকারী মোবাইল নম্বরটি ক্লোন করা হয়েছে। আজ রবিবার সকাল ৯ টার দিকে মোবাইল নম্বরটি ক্লোন করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন স্কুল কলেজের প্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছ থেকে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল কালাম আজাদ জানান, রবিবার সকাল ৯ টার দিকে কিশোরীগঞ্জ উপজেলার রাধারানী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ নুরে আলম সিদ্দিকি এবং কিশোরীগঞ্জ বিজনেস মেনেজমেন্ট ইনস্টিটিউট এর অধ্যক্ষ মোতাহার হোসেন ফোন করে আমাকে বলেন, স্যার আপনার সরকারী নম্বর থেকে ফোন করে আমাদের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে টাকা চাওয়া হচ্ছে। ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমি বিষয়টি তাৎক্ষনিকভাবে নিশ্চিত হয়ে জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান অবগত করে তাৎক্ষনিকভাবে কিশোরীগঞ্জ থানার জিডি করি। পাশাপাশি বিষয়টি এলাকায় প্রচারনা করে সকলকে সাবধানতা অবলম্বন করতে বলা হয়।

কিশোরীগঞ্জ রাধারানী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ নুরে আলম সিদ্দিকী বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সরকারী নম্বর থেকে রবিবার সকাল ৯ টার সময় আমাকে ফোন করে বলা হয়, আপনার কলেজে ল্যাপটপ দেওয়া হবে। সেজন্য আপনি খুব তাড়াতাড়ি ৮ হাজার টাকা বিকাশ করেন। মোবাইলে কথা বলার সময় আমার সন্দেহ হলে আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্যার কল করে বিষয়টি জানালে তিনি হতভম্ব হয়ে পড়েন।

কিশোরীগঞ্জ বিজনেস মেনেজমেন্ট ইনস্টিটিউট (বিএমআই) কলেজের অধ্যক্ষ মোতাহার হোসেন বলেন, আমি বাসা থেকে কলেজে আসার সময় সকাল ১০ টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদ্বয় স্যারের সরকারী মোবাইল নম্বর থেকে আমাকে ফোন করে ১০ হাজার টাকা বিকাশ করে চাওয়া হয় এবং আমাকে একটি বিকাশ নম্বর ০১৮৮৩১১৪৫৬৬ দিয়ে বলেন এই নম্বরে টাকা দেন ।

কিশোরগঞ্জ থানার ওসি হারুন অর রশিদ বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সরকারী নম্বরটি ক্লোন করে চাঁদা দাবির বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করছি। নম্বরটি বন্ধ করা হয়েছে।