১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শচীন-সৌরভকে ছাড়িয়ে কোহলি-রাহানে

  • এ্যান্টিগা টেস্টে চালকের আসনে ভারত

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিরাট কোহলি সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান। ভারতীয়রা তার মাঝে গ্রেট শচীন টেন্ডুলকরের ছায়া দেখেন। কিছুটা অফফর্মে থাকলেও অজিঙ্কা রাহানের প্রতিভা নিয়ে এতটুকু সন্দেহ নেই। সাদা পোশাকে দলের নিয়মিত সদস্য তিনি। ক্যারিয়ার শেষে দু’জনে কোথায় থামবেন সময়েই মিলবে সেই উত্তর। তবে একটি জায়গায় এখনই শচীন ও সৌরভ গাঙ্গুলীকে পেছনে ফেললেন কোহলি ও রাহানে। এ্যান্টিগায় টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৩ উইকেটে ১৮৫ রান করা ভারত ইতোমধ্যে ২৬০ রানের লিড পেয়ে গেছে। কোহলি ৫১ ও রাহানে ৫৩ রান নিয়ে ব্যাট করছেন। প্রথম ইনিংসে সফরকারীদের সংগ্রহ ছিল ২৯৭, উইন্ডিজ ২২২। ইনিংসে এ পর্যন্ত অবিচ্ছিন্ন ১০৪ রান যোগ করেছেন কোহলি-রাহানে, ভারতের হয়ে চতুর্থ উইকেটে যা সপ্তম শতরানের জুটি, ছাড়িয়ে গেছেন দুই কিংবদন্তি শচীন-সৌরভকে (অষ্টম)।

ভারতের হয়ে টেস্টে শচীন-সৌরভ চতুর্থ উইকেট জুটিতে সাতবার সেঞ্চুরি পার্টনারশিপ গড়েছিলেন ৪৪ ইনিংসে। সেখানে কোহলি-রাহানে সপ্তম সেঞ্চুরি জুটি পেলেন ৩৯ ইনিংসে। অবশ্য অবসরে যাওয়া তুখোড় দুই তারকা ক্যারিয়ারে চতুর্থ উইকেট জুটিতে মোট ২৬৯৫ রান করেছিলেন। তাদের সেই রেকর্ড ছুঁতে বিরাট-রাহানের প্রয়োজন আর ২৫৬ রান (পরিসংখ্যান এন্টিগা টেস্টের চতুর্থদিনের আগ পর্যন্ত)। এন্টিগায় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পেসারদের বোলিং তোপে এক পর্যায়ে ২৫ রানেই টপঅর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে কাঁপছিল ভারত। কঠিন সেই পরিস্থিতিতে ৮১ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলে ফর্মে ফেরা রাহানে দ্বিতীয় ইনিংসেও সমান সাবলীল। ৩ চারে ক্যারিয়ারের ১৮তম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন দারুণ স্টাইলিশ এই ব্যাটসম্যান। কোহলি ২১তম হাফ সেঞ্চুরি পেয়েছেন ২ চারে। তখনও ব্যাটিংয়ে নামার অপেক্ষায় হনুমা বিহারি, ঋষভ পন্থ এবং প্রথম ইনিংসে হাফ সেঞ্চুরি হাঁকানো জাদেজা। সুতরাং ব্যতিক্রম কিছু না ঘটলে লিডটা যে এতক্ষণে অনেক বড় হয়েছে সেটি অনুমেয়।

অভিজ্ঞ রবিচন্দ্রন অশ্বিন এবং তুখোড় কুলদীপ যাদবকে বাইরে রেখে এ্যান্টিগা টেস্টের একাদশে সুযোগ দেয়া হয়েছে রবীন্দ্র জাদেজাকে। মূলত প্রধান স্পিনার হিসেবে খেলছেন তিনি। সেখানে প্রথম ইনিংসে আট নম্বরে নেমে ৫৮ রানের দারুণ ইনিংস উপহার দেয়ার পর বল হাতে তুলে নেন মূল্যবান ২ উইকেট। তৃতীয়দিনের খেলা শেষে অভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডার জানিয়েছেন, অধিনায়ক এবং ম্যানেজমেন্টের আস্থার প্রতিদান দিতে পেরে খুশি তিনি, ‘অধিনায়ক যদি ভরসা রাখে তাহলে তো ভালই লাগে। ক্যাপ্টেনের বিশ্বাসের মর্যাদা যে আমি দিতে পেরেছি তাতেই আমি খুশি।’ টপঅর্ডারের ব্যর্থতার পর বাঁহাতি অলরাউন্ডারের হাফ সেঞ্চুরির সুবাদে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ভারত প্রথম ইনিংসে করে ২৯৭ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর পায়। পঞ্চাশ করার পরে স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে ব্যাট ঘোরান জাদেজা। অশ্বিনকে দলে অন্তর্ভুক্ত না করায় প্রশ্ন তুলেছিলেন সুনীল গাভাস্কার ও সৌরভ গাঙ্গুলীর মতো সাবেকরা। জাদেজা অবশ্য বাইরের বিষয়ে কান দিতে রাজি নন, ‘আমি নিজের ক্রিকেটে ফোকাস করতে চেয়েছিলাম। বাইরে কি চলছে, কে কি ভাবছেন বা বলছেন তা নিয়ে আমি ভাবতেই চাই না।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলিং আক্রমণের বিরুদ্ধে এক সময়ে পরপর উইকেট হারিয়ে সমস্যায় পড়ে গিয়েছিল ভারতীয় দল। কিন্তু জাদেজা ক্রিজ কামড়ে পড়ে থেকে ভারতের স্কোর নিয়ে যান ভদ্রস্থ জায়গায়। তিনি আরও বলেন, ‘আমি পার্টনারশিপ গড়ার চেষ্টা করছিলাম। টেলএন্ডারদের সঙ্গে আমাকে ব্যাট করতে হচ্ছিল। আমি নিজের ব্যাটিংয়ের দিকেই মনোযোগ দিচ্ছিলাম। নিজের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করেছিলাম।’ জাদেজা ক্রিজ কামড়ে পড়ে থেকে রান করে গেলেও ঋষভ পন্থ দ্রুত আউট হন। পন্থ ফিরে গেলে ইশান্ত শর্মা যোগ দেন জাদেজার সঙ্গে। ইশান্তের সঙ্গে জুটিতে আসে মূল্যবান ৬০ রান। তিনি বলেন, ‘আমি পার্টনারশিপ গড়তে চেয়েছিলাম। ইশান্তের সঙ্গে আমি ক্রমাগত কথা বলছিলাম। ক্রিজে আমাদের বেশিক্ষণ টিকে থাকতে হবে, এই কথাই বলছিলাম নিজেদের মধ্যে। একটা করে ওভার নিয়ে ভাবছিলাম আমরা।’

নির্বাচিত সংবাদ