২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে উপকৃত জামালরা

প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে উপকৃত জামালরা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আর মাত্র তিন দিন বাকি। তারপরই অগ্নিপরীক্ষায় অবর্তীণ হতে হবে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলকে। পরীক্ষার প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান। আসর ২০২২ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব গ্রুপ ‘ই’ এবং ২০২৩ এশিয়ান কাপের বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ড। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ সামনে রেখে জোর প্রস্তুতি চালিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। আগামী ১০ সেপ্টেম্বর তাজিকিস্তানের দুশানবেতে (নিরপেক্ষ ভেন্যু) প্রথম লেগে আফগানদের মুখোমুখি হবে লাল-সবুজ বাহিনী।

২০২২ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে বাংলাদেশের সঙ্গে ‘ই’ গ্রুপে পড়েছে আফগানিস্তান, ভারত, ওমান ও বিশ্বকাপের স্বাগতিক কাতার। হোম এ্যান্ড এ্যাওয়ে ভিত্তিতে মোট আটটি করে ম্যাচ খেলবে প্রতিটি দল।

আফগানিস্তানের মুখোমুখি হওয়ার আগে নিজেদের আরেকটু ঝালিয়ে নিতে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ দল। প্রথম ম্যাচে তারা তাজিকিস্তানের শীর্ষ লিগের দল এএফসি কুকটশের কাছে ২-০ গোলে হেরে যায়। দ্বিতীয় ম্যাচে সিসকা পামিরের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া বলেন, ‘তাজিকিস্তানে এসে ইতোমধ্যেই আমরা দুটি প্রস্তুতি বা ফ্রেন্ডলি ম্যাচ খেলেছি আগামী ১০ সেপ্টেম্বর আফগানিস্তানের বিপক্ষে অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ উপলক্ষ্যে। প্রস্তুতি ম্যাচের একটিতে হেরেছি, অন্যটিতে ড্র করেছি।এই ম্যাচ দুটি খেলে আমরা যথেষ্ট উপকৃত হয়েছি। প্রথম ম্যাচে হেরে গেলেও ওই ম্যাচে আমরা ভালই খেলেছি। ভুলত্রুটি যা হয়েছিল, তা মোটামুটি কাটিয়ে উঠেছি দ্বিতীয় ম্যাচেই। ম্যাচগুলো খেলে আমরা অনেক কিছু শিখতে পেরেছি, যা পরে কাজে লাগবে। আশা করি আমাদের কোচ এই দুটি ম্যাচ দেখে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে কোন্ কোন্ খেলোয়াড়কে খেলাবেন।’

জামাল আরও যোগ করেন, ‘আফগানিস্তানের সঙ্গে ম্যাচটি হবে আমাদের জন্য এই বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় এবং গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। আমরা সব খেলোয়াড়রা ঐক্যবদ্ধ আছি, প্রতিনিয়ত কঠোর পরিশ্রম করছি।’

শনিবার সকালে বাংলাদেশ দল ওয়াকিং সেশন করে। বিকেলে বল নিয়ে মাঠে করে অনুশীলন।

বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজেদের সেরাটা দিতেই প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন আফগান কোচ আনোস দস্তগির। অন্যদিকে বাংলাদেশের কোচ জেমি ডেও মনে করছেন আফগানদের এই বড় হারে খুশি হবার কিছু নেই তার দলের। বরং দুর্দান্ত ফুটবল খেলেই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ভালো কিছু করতে হবে বাংলাদেশকে।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্ব একই সঙ্গে এএফসি এশিয়ান কাপেরও বাছাই। ‘ই’ গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত, ওমান ও কাতার ও আফগানিস্তান। নিজেদের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক কাতারের বিপক্ষে মাথা তুলেই দাঁড়াতে পারেনি আফগানিস্তান। মঙ্গলবার তারা মুখোমুখি হবে বাংলাদেশের। এএফসির ওয়েব সাইটে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রথম ম্যাচে ৬-০ গোলে বিধস্ত হবার কারণ জানালেন আফগান কোচ দস্তগির, ‘আমরা জানি কাতার কতটা ভালমানের দল। আমরা কাতারের সঙ্গে নিজেদের কোন তুলনা করছি না। ওই ম্যাচের প্রথম ১৫ মিনিট ছিল সবচেয়ে কঠিন সময়। ওই সময়টুকু যদি আমরা টিকে থাকতে পারতাম, তাহলে অন্তত ৬-০ গোলে ম্যাচটা আমাদের হারতে হতো না।’

বড় হার সত্তে¡ও শিষ্যদের প্রশংসা করে আফগান কোচ বলেছেন,‘যদিও আমরা বড় ব্যবধানে হেরেছি। তারপরও ম্যাচে ছেলেরা যে পারফরম্যান্স দেখিয়েছে তা নিয়ে আমি গর্বিত। আমরা ম্যাচে নিজেদের ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নিয়ে পরবর্তী ম্যাচে (বাংলাদেশের বিপক্ষে) খেলতে নামবো।’

আফগান কোচ আরও যোগ করেন, ‘ম্যাচে আমরা বেশ কিছু সুযোগও সৃষ্টি করেছিলাম। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত সেটি কাজে লাগাতে পারিনি। আমাদের পরবর্তী ম্যাচ বাংলাদেশের সঙ্গে। এখন আমরা ওই ম্যাচটি নিয়েই ভাবছি। আমাদের যা আছে সেটুকুরই উন্নতি করে ঐ ম্যাচে নিজেদের প্রমাণ করতে চাই।’ অন্যদিকে বাংলাদেশের কোচ জেমি ডেও মনে করছেন আফগানাদের এই বড় হার দেখে বাংলাদেশের উচ্ছসিত হবার কিছু নেই। এ প্রসঙ্গে জেমি বলেন, ‘আফগানিস্তানের কজন ফুটবলার ইউরোপের লিগে (জার্মানি) খেলে। এ থেকেই বোঝা যায় তারা কোন লেভেলের ফুটবল খেলে। তাদের বড় হারে আমাদের উচ্ছ্বসিত হবার কিছু নেই। তাদের বিপক্ষে জয় পেতে হলে আমাদের দুর্দান্ত ফুটবল খেলতে হবে।’

তবে চ্যালেঞ্জটা কঠিন হলেও আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে দল নিয়ে বেশ সন্তুষ্ট জেমি ডে। দুই প্রস্তুতি ম্যাচে শিষ্যদের পরখ করে দেখেছেন। সব কিছু দেখে দলের সার্বিক অবস্থা ভালো বলেই মনে করছেন বাংলাদেশ দলের কোচ, ‘চিন্তিত হবার কিছু নেই। দল ভাল অবস্থায় আছে। প্রস্তুতি ম্যাচে ছেলেদের পারফরম্যান্স ভালো ছিল। আফগানিস্তান শক্তিশালী দল। তাদের বিপক্ষে নামার আগে আমাদের আরেকটু সংগঠিত হতে হবে।’