২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রফতানি বাড়াতে রাশিয়ার বাজার ধরতে চায় সরকার

রফতানি বাড়াতে রাশিয়ার বাজার ধরতে চায় সরকার

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ রাশিয়ার বাজারে বাংলাদেশি তৈরি পোশাক, পাট ও পাটজাতপণ্য, হিমায়িত মাছ, ওষুধ, আলু ও সবজির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে বর্তমানে রাশিয়ায় কিছু তৈরি পোশাক, পাট, হিমায়িত চিংড়ি ও আলু রফতানি হচ্ছে। অন্যদিকে রাশিয়ায় উৎপাদিত গম, তুলা, ভুট্টা ইত্যাদি। এছাড়া ইউরিয়া সার, প্রাকৃতিক গ্যাস, পেট্রোলিয়াম, কেমিক্যালস ও খনিজও দেশটির রফতানিযোগ্য পণ্য। যা বাংলাদেশ আমদানি করে। সরকার ২০২১ সালের মধ্যে রফতানিবাণিজ্য ৫ হাজার কোটি মার্কিন ডলারে উন্নীত করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে।

রাশিয়ার বাজার ধরতে গেলে শুধু রাশিয়া নয়, রাশিয়াকে যুক্ত করে পূর্ব ইউরোপ ও মধ্য এশিয়ার পাঁচটি দেশ—রাশিয়া, বেলারুশ, কাজাখিস্তান, আরমেনিয়া ও কিরগিস্তানকেও এর সঙ্গে যুক্ত করতে হবে। কারণ এই পাঁচটি দেশের সমন্বয়ে ইউরেশিয়ান ইকনোমিক ইউনিয়ন (ইইইউ) গঠিত হয়, যা গত ২০১৫ সালের ০১ জানুয়ারি থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে। এই জোটের সদস্য দেশগুলো একসময় সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ ছিল। বর্তমানে কমনওয়েলথ অব ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্টেটস (সিআইএস) নামে পরিচিত। কাজেই রাশিয়ার বাজার ধরতে হলে এই জোটের সম্মতি প্রয়োজন হবে। আর এই জোটের সম্মতি পেলে রাশিয়ার সঙ্গে বাকি চার দেশের বাংলাদেশের রফতনিযোগ্য পণ্যের বাজার সৃষ্টি হবে।

প্রধানমন্ত্রীর কর্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ৯ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল নিয়ে চলতি বছরের মে মাসের শেষ সপ্তাহে মস্কো সফর করেন। প্রতিনিধি দলে বাণিজ্য, পররাষ্ট্র, ইআরডি, এফবিসিসিআই, বিজিএমইএ ও বিকেএমইএর প্রতিনিধিরা সংযুক্ত ছিলেন। মস্কো সফরের বিষয়ে পাঠানো প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৫ মে সম্মতি দেন।