১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নওগাঁ পৌরসভার রাস্তাঘাটের বেহালদশায় জনদুর্ভোগ

নওগাঁ পৌরসভার রাস্তাঘাটের বেহালদশায় জনদুর্ভোগ

নিজস্ব সংবাদদাতা নওগাঁ ॥ নওগাঁ শহরে পৌরসভার গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাগুলির এখন বেহালদশা। দীর্ঘদিন এসব রাস্তা সংস্কার না করায় পিচ উঠে গেছে। চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে অধিকাংশ সড়কগুলি। সড়কগুলো দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে দুর্ভোগ পোহাতে হয় যাত্রী ও পথচারীদের।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শহরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থান নওগাঁ সরকারি কলেজ মোড়। কলেজে প্রায় ২০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থী রয়েছেন। কলেজ মোড় থেকে থানার মোড় এবং কলেজ মোড় থেকে রুবির মোড় পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ। দুটি সড়কের পিচ উঠে ইট-পাথর বেরিয়ে গেছে। কোথাও কোথাও আবার ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। কলেজের আশপাশে শিক্ষার্থী ও স্থানীয় বাসিন্দাসহ প্রায় ৪০-৫০ হাজার মানুষের বসবাস। এ সড়ক দিয়ে শিক্ষার্থীদের নিয়মিত কলেজে আসা-যাওয়া করতে হয়। দীর্ঘদিন থেকে সংস্কার না হওয়ায় সড়কের বেহাল অবস্থা।

কলেজে আসা-যাওয়া করতে গিয়ে কাদা পানিতে ভেজে ছাত্র/ ছাত্রীদের বেশি বিব্রতের মধ্যে পড়তে হয়। কলেজের প্রধান গেট থেকে থানার মোড় পর্যন্ত এক কিলোমিটার সড়কে খানাখন্দ হওয়ায় পুরনো ইট বিছিয়ে দেয়া হয়েছে। অপরদিকে, কলেজ মোড় থেকে সদর হাসপাতাল হয়ে রুবির মোড় পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশা। ওই সড়কের পাশেই অবস্থিত নওগাঁ আধুনিক সদর হাসপাতাল, মেডিক্যাল কলেজ, নার্সিং ইনস্টিটিউট, সিভিল সার্জন অফিস, পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়, সরকারী স্টাফ কোয়ার্টার, সড়ক ও জনপথের উপবিভাগীয় প্রকৌশলীর কার্যালয় এবং খাদ্য বিভাগ।

এছাড়া সড়কের দু’পাশে অন্তত ২০টি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। সড়কের দুই কিলোমিটার অংশের ইটের খোয়া, বালু ও বিটুমিন উঠে গেছে। বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। অল্প বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। বৃষ্টির পর পথচারীদের হেঁটে যাওয়া কষ্টকর হয়ে পড়ে। এ পথ দিয়ে গর্ভবতী রোগী নিয়ে যেতে রোগীদের কষ্ট হয় এবং অনেক গর্ভবতী রোগী এ পথ দিয়ে হাসপাতালে সেবা নিতে গিয়ে গর্ভপাত হয়েছে বলে এমন অভিযোগ রয়েছে। সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাসপাতাল, ক্লিনিকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ চলাচল করে। রিক্সা ও ভ্যানে উঠে আসা-যাওয়া করতে গিয়ে মানুষের শরীর ব্যথা হয়ে যায়।

কয়েকটি রিক্সা উল্টে দুর্ঘটনাও ঘটেছে। গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি প্রায় দুই বছর ধরে বেহাল হয়ে রয়েছে। নওগাঁ সরকারি কলেজের ভূগোল বিভাগের শিক্ষার্থী শাহজালাল বলেন, কলেজের মূল গেটের সামনের সড়কে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে পানি জমে থাকে। ছাত্রাবাস থেকে ৪শ’ মিটার দূরে কলেজ। সড়ক দিয়ে হেঁটে চলতে জামাকাপড় নষ্ট হয়ে যায়। কয়েকটি স্থানে পানি জমে থাকায় চলাচল করা যায় না। দুর্ভোগের শেষ নেই।

স্থানীয় বাসিন্দা শুভ বলেন, কলেজ মোড় থেকে রুবির মোড় সড়কে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ চলাচল করে। হাসপাতালে প্রতিদিন প্রায় ১০-১৫ হাজার মানুষ আসা-যাওয়া করে। রিক্সা ও ভ্যানে উঠলে ঝাঁকুনি খেতে খেতে শরীর ব্যথা হয়ে সুস্থ মানুষ অসুস্থ হয়ে যায়। রোগীদের জরুরি ভিত্তিতে হাসপাতালে নেয়া সম্ভব হয় না। দীর্ঘদিন থেকে সড়কটি সংস্কার না করায় চলাচলের অনুপযোগী।

এছাড়া শহরের পুরনো জনতা ব্যাংক মোড় থেকে বইপট্টির মোড় পর্যন্ত গত অর্থ বছরে সংস্কার করা হলেও ইতোমধ্যেই তার পিচ-খোয়া উঠে গিয়ে ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সরিষাহাটির মোড় থেকে জনকল্যানপাড়া এবং দূর্গাপুর পর্যন্ত সড়কের বেহালদশা। শহরের কাপড়পট্টি, সুপারীপট্টি, চুড়িপট্টি রাস্তা খানা-খন্দে পরিপূর্ণ।

এব্যাপারে নওগাঁ পৌরসভার মেয়র মোঃ নজমুল হক সনি বলেন, জনগুরুত্বপূর্ণ সড়ক গুলির সংস্কার কাজের জন্য সবকিছু সম্পন্ন হয়ে আছে। কাজ শুরুর অপেক্ষা। এই সড়ক গুলো শহরের সবচেয়ে ভালো সড়ক করা হবে বলে জানান তিনি।

নির্বাচিত সংবাদ