২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিরোধীদলের নেতা রওশন, জিএম কাদের উপনেতা

সংসদ রিপোর্টার ॥ বিরোধী দলের বড় দুটি আসনে বসলেন ভাবি রওশন এরশাদ ও দেবর জিএম কাদের। জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদকে জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদেরকে উপনেতার চিঠি দিয়েছেন জাতীয় সংসদের স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। রবিবার রাতে সংসদ সচিবালয় থেকে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

পাল্টাপাল্টি অবস্থান ও দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়া জাতীয় পার্টিতে নাটকীয়ভাবে সমঝোতা হয়। অনেক নাটকীয়তার পর দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারমান জিএম কাদেরের পরিবর্তে ভাবি রওশন এরশাদকে ওই পদ দেয়ার জন্য রবিবার সন্ধ্যায় স্পীকারের কাছে চিঠি দেয়া হয়। আর জিএম কাদেরকে বিরোধীদলীয় উপনেতা করার জন্য স্পীকারকে অনুরোধ করা হয়। চিঠি পাওয়ার পর রবিবার রাতে স্পীকার তাতে অনুমোদন দিলে এরপর প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

সোমবার সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সংসদীয় দলের নেতা রওশন এরশাদকে (ময়মনসিংহ-৪) জাতীয় সংসদের কার্যপ্রণালী বিধি অনুযায়ী বিরোধীদলীয় নেতা এবং উপনেতা (পারিতোষিক ও বিশেষাধিকার) অধ্যাদেশ মোতাবেক (লালমনিটরহাট-৩) গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে বিরোধীদলীয় উপনেতা হিসেবে স্পীকার স্বীকৃতি দিয়েছেন। আইন অনুযায়ী বিরোধীদলীয় নেতা মন্ত্রী পদমর্যাদা এবং উপনেতা প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা ভোগ করেন।

এর আগে বিরোধীদলীয় নেতার পদ নিয়ে জাতীয় পার্টিতে প্রকাশ্য বিভেদের সৃষ্টি হয়। ভাবি-দেবরের পক্ষে প্রকাশ্য অবস্থান নেন দলটির সিনিয়র নেতা ও এমপিরা। কাজী ফিরোজ রশিদ, সৈয়দ আবুল হোসেন বাবলাসহ দলটির ১০/১২ সংসদ সদস্য জিএম কাদেরকে বিরোধীদলীয় নেতা করতে স্পীকারের কাছে চিঠি দেন।

ওইদিনই রওশন এরশাদের পক্ষ থেকে দলটির সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, ফখরুল ইমামসহ কয়েক সংসদ সদস্য রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় নেতা হিসেবে মনোনীত করার জন্য স্পীকার বরাবরে পাল্টা চিঠি দেন। এমনকি চেয়ারম্যান হিসেবে রওশন এরশাদের নাম দিয়ে নির্বাচন কমিশনেও চিঠি পাঠান তারা। এ নিয়ে পুনরায় ভাঙ্গনের মুখে পড়ে জাতীয় পার্টি।

জাতীয় পার্টিকে নিশ্চিত ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষা করতে গত শনিবার উভয় পক্ষের সিনিয়র ৮ নেতা সমঝোতা বৈঠকে মিলিত হন। তিনটি এজেন্ডা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে বৈঠক হয়েছে। তা হলো- জাপার নেতৃত্ব, রংপুর নির্বাচনের প্রার্থী এবং বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচন। দীর্ঘ আলোচনার পর উভয়পক্ষ সমঝোতায় পৌঁছতে সক্ষম হন। সিদ্ধান্ত হয়, রওশন এরশাদ বিরোধীদলীয় নেতা, জিএম কাদের উপনেতার দায়িত্ব পালন করবেন। রংপুর সদর আসনে জাপার প্রার্থী হবেন প্রয়াত এইচএম এরশাদের পুত্র শাদ এরশাদ।

স্পীকারের সম্মতি ও প্রজ্ঞাপন জারির পর রবিবার মাগরিবের নামাজের বিরতির পর সংসদ অধিবেশনে শূন্য পড়ে থাকা বিরোধীদলীয় নেতার আসনে রওশন এরশাদ ও উপনেতার আসনে জিএম কাদের বসেন। তখন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী স্পীকারের আসনে ছিলেন। তবে নতুন বিরোধীদলীয় নেতা বা উপনেতা হিসেবে তারা কোন বক্তব্য বা সংসদীয় কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেননি।