২২ অক্টোবর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গোপালগঞ্জ বশেমুরবিপ্রবি’র ভিসি অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন

গোপালগঞ্জ বশেমুরবিপ্রবি’র ভিসি অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন

নিজস্ব সংবাদদাতা, গোপালগঞ্জ ॥ গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিনের অপসারণের দাবিতে আমরণ অনশনসহ শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চলছে।

আন্দোলনের ৫ম দিনে সোমবার সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থেমে থেমে চলছে শিক্ষার্থীদের ভিসি-বিরোধী মিছিল ও সমাবেশ। এক দফা এক দাবি, ভিসি তুই কবে যাবি - স্লোগানে স্লোগানে উত্তাল হচ্ছে গোটা ক্যাম্পাস। প্রশাসনিক ভবনের সামনে অনশনরত রয়েছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়েও ভিসি-বিরোধী সমাবেশ করতে দেখা গেছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাদের সমাবেশে জানিয়েছে, তাদের আন্দোলন বানচালের বিভিন্ন চেষ্টা চলছে। নানা ষড়যন্ত্র চলছে। নিজেদের মধ্যে আত্মকলহ সৃষ্টির চেষ্টা চলছে। এজন্য সাধারণ শিক্ষার্থীদেরকে সজাগ থাকার জন্য সমাবেশ থেকে আহবান জানানো হয়েছে। কেউ যেন পাতা ফাঁদে পা না দেয়, সেজন্য সতর্ক থাকার আহবান জানানো হয়েছে। অপরিচিতদের প্রবেশ ঠেকাতে শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে একটি ভলান্টিয়ার গ্রুপ তৈরী করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশদ্বারে বসানো হয়েছে। শিক্ষার্থীরা তাদের ওই এক দফা এক দাবির কথা জানিয়ে এ ভিসি’র অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলে তারা ঘোষণা দিয়ে যাচ্ছে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ইতোমধ্যে বিভিন্ন স্থান থেকে এসে যোগ দিয়েছে এ বিশ্ববিদ্যালয়েরই বেশকিছু সাবেক শিক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের একটি বড় অংশও রয়েছেন শিক্ষার্থীদের সঙ্গে। ইতোমধ্যে জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরলেই সুষ্ঠু সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন। কিন্তু সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাদের এক দফা নিয়েই শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলে ঘোষণা করেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকসহ আশপাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। র‌্যাব-সদস্যদেরকেও টহলরত অবস্থায় দেখা গেছে। গণ-মাধ্যম কর্মীরাও ক্যাম্পাসে অপেক্ষমান থেকে পেশাগত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

বিকেল পৌনে ৪ টার দিকে, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন শান্তিপূর্ণভাবে চলছে স্বীকার করে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মোঃ নূরউদ্দিন আহমেদ জনকণ্ঠকে বলেছেন, গত শনিবার আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর বহিরাগতদের হামলার ঘটনায় তিন-সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত-কমিটি করে পাঁচ-কর্মদিবসের মধ্যে রিপোর্ট প্রদানের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এরপর তার কাছে আর কোন নির্দেশনা বা আপডেট নেই।