১৯ অক্টোবর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফতুল্লায় ১২ ঘণ্টার রুদ্ধশ্বাস অভিযানে দুই জঙ্গী আটক

ফতুল্লায় ১২ ঘণ্টার রুদ্ধশ্বাস অভিযানে দুই জঙ্গী আটক
  • বোমা তৈরির ল্যাবের সন্ধান ॥ বিস্ফোরক পাওয়ার জেল ও বোমা উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ ॥ নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার তক্কা মাঠ এলাকায় ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিটসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা দীর্ঘ ১২ ঘণ্টা শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান চালিয়ে নব্য জেএমবির দুই সদস্যসহ তিনজনকে আটক করেছে। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ল্যাবসহ বোমা তৈরির কারখানার সন্ধান মিলেছে। ওই বোমা তৈরির কারখানায় অভিযান চালিয়ে বিপুল বিস্ফোরক, বিস্ফোরক তৈরির জেল, সুইসাইডাল ভেস্ট ও ডেটোনেটরসহ বোমা তৈরি সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। রবিবার রাত দুটা থেকে সোমবার দুপুর দুটা পর্যন্ত এ অভিযান চালানো হয়। বম্ব ডিসপোজাল টিম চারটি তৈরি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ধ্বংস করে। বিস্ফোরণের বিকট শব্দে পুরো এলাকা কেঁপে ওঠে। ঢাকা থেকে আটক করা হয় মিজানুর রহমানকে (২৭)। পরে নারায়ণগঞ্জে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় ফরিদ উদ্দিন রুমি (২৭), ফরিদের স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনুকে (২২)। ঢাকার কাউন্টার টেররিজম ইউনিটকে জেলা পুলিশ, সোয়াত টিম, সিআইডির ক্রাইমসিন ইউনিট, পিবিআইসহ গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন সহযোগিতা করে। সোমবার বেলা আড়াইটায় কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট প্রধান মনিরুল ইসলাম এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান, ঢাকায় পাঁচটি জঙ্গী আস্তানা থেকে সম্প্রতি উদ্ধারকৃত আলামতগুলোর সঙ্গে এই অভিযানে উদ্ধার হওয়া এক্সক্লুসিভের মিল রয়েছে। পুলিশের মনোভাব দুর্বল ও আতঙ্ক ছড়াতে পুলিশের ওপর জঙ্গীদের হামলার ষড়যন্ত্র ছিল বলে জানান তিনি। সোমবার বেলা আড়াইটায় অভিযান শেষ হয়। এ সময় তক্কা এলাকাসহ আশপাশের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অভিযানের স্থানে আশপাশে দুটি সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, রবিবার গভীর রাতে ফতুল্লার তক্কার মাঠ এলাকার জয়নাল আবেদীনের বাড়ি ঘিরে ফেলে কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, সোয়াতসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ভোরে বাড়িটি থেকে ফরিদউদ্দিন রুমি (২৭), তার স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনুকে (২২) আটক করা হয়। ফতুল্লার ওই বাড়ির মালিক জয়নাল আবেদীন বাংলাদেশ ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তিনি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ডিজিএম ছিলেন। আটক তার ছেলে ফরিদউদ্দিন রুমি ঢাকার আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেকানিক্যাল এবং প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের শিক্ষক। সোমবার বেলা এগারোটায় ঘটনাস্থলে আসে বম্ব টিসপোজাল ইউনিট। ইউনিটের সদস্যরা তৈরি বোমা ও বোমা তৈরি সরঞ্জাম ধ্বংস কার্যক্রম শুরু করেন।

বিস্ফোরক দ্রব্য ও বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ধ্বংস করার মধ্য দিয়ে সোমবার বেলা দুটোয় শেষ হয় অভিযান। আড়াইটার দিকে উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রেস ব্রিফিং করেন কাউন্টার টেররিজম ইউনিট প্রধান মনিরুল ইসলাম। তিনি জানান, ‘রবিবার রাতে ঢাকা থেকে মিজানুর রহমানকে আটক করা হয়। তার দেয়া তথ্যমতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার তক্কার মাঠ এলাকার নূর মসজিদ সংলগ্ন বাংলাদেশ ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত ডিজিএম জয়নাল আবেদীনের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ফরিদউদ্দিন রুমি ও তার স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনুকে আটক করা হয়। আটক ফরিদ উদ্দিন ও মিজানুর রহমান নব্য জেএমবির সক্রিয় সদস্য। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ফরিদের স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনুকে আটক করা হয়।’ মনিরুল ইসলাম বলেন, রুমির দেয়া তথ্য ও দেখানো অনুযায়ী ব্যাংক কর্মকর্তার মালিকাধীন আরেকটি টিম সেটবাড়িতে বোমা তৈরি ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম রাখার ল্যাবরেটরির সন্ধান পায় কাউন্টার টেররিজম ইউনিট। ভোরে থেকেই বাড়িটি ঘিরে রাখে জেলা ও কাউন্টার টেররিজমের সদস্যরা। বেলা এগারোটার দিকে বম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের সদস্যরা এসে বাড়িতে ঢুকে বিপুল বিস্ফোরক, বিস্ফোরণ তৈরির জেল, সুইাসাইডাল ভেস্ট, ডেটোনেটরসহ বোমা তৈরির সরঞ্জাম, আইডি, ডিভাইস উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, ‘অন্যান্য জঙ্গী আস্তানায় যে ধরনের ল্যাবের সন্ধান মিলেছে সেগুলোর চেয়ে এটি ব্যতিক্রম। কারন বোমা তৈরির সরঞ্জামাদি ও বিস্ফোরক রাখার জন্য নির্দিষ্ট তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। ওই বাসায় তা ছিল। এখানে সুইসাইডাল ভেস্ট, তিনটি আইডি, বিপুল বিস্ফোরক, পাওয়ার জেল, ডেটোনেটর পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে প্রায় ছয় থেকে সাত মাস ধরে এই ল্যাব থেকেই বোমা তৈরি করে তা ঢাকায় সরবরাহ করা হতো। তিনি বলেন, সম্প্রতি ঢাকার খামারবাড়ি, মালিবাগ, সায়েন্স ল্যাবে পুলিশের ওপর যে বোমা জঙ্গী হামলা হয়, তার সঙ্গে এই জঙ্গী আস্তানা থেকে উদ্ধার হওয়া বিস্ফোরকের মিল রয়েছে। ঢাকার এসব হামলার মূল টার্গেট ছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরস্ত্র পুলিশ। তারা ট্রাফিক পুলিশ ও পুলিশ বক্স লক্ষ্য করে এসব বোমার বিস্ফোরণ ঘটনায়। মূলত পুলিশের মনোবল ভেঙ্গে দেয়ার জন্যই তারা কাজটি করেছিল। তিনি বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, এই কারখানা থেকে বোমা তৈরির করে সরবরাহ, পরিকল্পনা হতে শুরু করে বাস্তবায়ন পর্যন্ত যাদের আটক করা হয়েছে তাদের সম্পৃক্ততা রয়েছে। তিনি বলেন, আটক দুজনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এই নেটওয়ার্কের আরও কয়েক সদস্যের নাম পাওয়া গেছে। তাদের আইনের আওতায় আনার জন্য কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের একাধিক ইউনিট কাজ করছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নিষ্ক্রিয় করা বোমায় খুবই উচ্চমাত্রার শক্তিশালী বিস্ফোরক। তারা ধারণা করছেন, বড় ধরনের কোন নাশকতার ষড়যন্ত্র নিয়েই জঙ্গীরা এই আস্তানা গড়ে তুলেছিল।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ভারপ্রাপ্ত এসপির দায়িত্বে থাকা) মনিরুল ইসলাম জানান, সোমবার ভোর থেকে ফতুল্লার তক্কার মাঠ এলাকার নূর মসজিদ সংলগ্ন ব্যাংক কলোনির একটি দ্বিতল ভবন ও আধা কিলোমিটার দূরে অবস্থিত একটি টিনশেড বাড়ি ঘিরে ফেলে কাউন্টার টেররিজমের সদস্যরা। রাত থেকেই জেলা পুলিশ তাদের সহযোগিতা করে। ভোরে ব্যাংক কলোনির বাসাটি থেকে জেএমবির সদস্য রুমি, তার স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনুকে আটক করা হয়। এদিকে দুপুর আড়াইটায় অভিযান শেষ হলেও বাড়ি দুটো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নজরদারি ও বেষ্টনীর আওতায় রাখা হয়েছে।

শ্বাসরুদ্ধকর ১২ ঘণ্টার অভিযান ॥ এক নারীসহ নব্য জেএমবির তিন সদস্য আটকের পর ওই বাড়িতে অভিযান চালিয়ে বিপুল বিস্ফোরক, বিস্ফোরক তৈরির জেল, সুইসাইডাল ভেস্ট ও ডেটোনেটরসহ বোমা তৈরি সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। রবিবার রাত ২টা থেকে সোমবার বেলার দুটো পর্যন্ত এ অভিযান চলে। সোমবার দুপুর বারোটা ৫৮ মিনিটে বাড়িটি থেকে প্রথমে একটি বোমা বিস্ফোরণের বিকট শব্দ শোনা যায়। দুপুর একটা ১০ মিনিটে আরও একটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটালে পুরো এলাকা কেঁপে ওঠে। এরপর দুপুর একটা ২৪ মিনিটে তৃতীয় ও দুটো ৯ মিনিটে সর্বশেষ বোমাটি বিস্ফোরণের মধ্য দিয়ে উদ্ধারকৃত বোমাগুলো নিষ্ক্রিয় করা হয়।