২২ অক্টোবর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সীমান্ত সজলের বিশেষ নাটক ‘দুর্গা ও বন জ্যোৎস্নার গল্প’

সীমান্ত সজলের বিশেষ নাটক ‘দুর্গা ও বন জ্যোৎস্নার গল্প’

স্টাফ রিপোর্টার ॥ এই সময়ের অত্যন্ত মেধাবী নির্মাতা সীমান্ত সজল। ব্যতিক্রমী গল্প ও সুনিপুণ নির্মাণশৈলীর কারণে পরিচালক হিসেবে ইতোমধ্যে বেশ সুনাম অর্জন করেছেন তরুণ এই নির্মাতা। বিশেষ করে বিভিন্ন দিবসে নাটক নির্মাণ করে প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। এরই ধারাবাহিকতায় শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে তিনি নির্মাণ করেছেন বিশেষ নাটক ‘দুর্গা ও বন জ্যোৎস্নার গল্প’। অনুরূপ আইচের রচনায় নাটকটির চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন সীমান্ত সজল। নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন- ইরফান সাজ্জাদ, তানজিন তিশা, শর্মিলী আহমেদ, জিয়াউল হাসান কিসলু প্রমুখ। আগামী ৮ অক্টোবর দশমীর রাত ৯-০৫ মিনিটে বিশেষ এই নাটকটি স্যাটেলাইট চ্যানেল এনটিভিতে প্রচার হবে বলে জানা গেছে।

‘দুর্গা ও বন জ্যোৎস্নার গল্প’ নাটকের কাহিনীতে দেখা যাবে লেখক স্বাগতম নতুন লেখার খোঁজে শহর থেকে খানিক দূরে নির্জন বনাঞ্চল সুন্দরপুর ডাক বাংলোয় এসে ওঠে। বয়োবৃদ্ধ কেয়ারটেকার হরিপদ স্বাগতম বাবুর দেখাশোনা ও যতœআত্তীর জন্য মেয়ে দুর্গাকে দায়িত্ব দেন। দুর্গা নিয়ম করে স্বাগতম বাবুর রান্নাবান্না করে দেয়, মাঝে মধ্যে চা করে দেয়। স্বাগতম লিখতে বসে মনের ভেতর নতুন লেখা হাতড়ে বেড়ায়। কিন্তু ভাবতে গিয়ে ভাল কিছু খুঁজে পায় না। দুর্গাকে স্বাগতম জিজ্ঞেস করে, এ বনে কি কি পাওয়া যায়। দুর্গা বলে চলে, সবুজের গন্ধ পাওয়া যায়, অদৃশ্য আনন্দ পাওয়া যায়, পাওয়া যায় জীবনের ছন্দ। আরও বলে, বাবু তোমাকে পদ্ম পুকুরে বনজ্যোৎস্না দেখাতে নিয়ে যাব। একদিন দুর্গা স্বাগতমের জন্য বনে স্থাপিত পূজাম-পে মা দুর্গার চরণতলে মিনতি করে মুক্তি প্রার্থনা করে। স্বাগতম মনে মনে বলে, এ তো সাক্ষাত মা দুর্গা। সে উপলব্ধি করে, জ্যোৎস্না আসলে বনে নয়; জ্যোৎস্না থাকে মানুষের মনে।