১৯ নভেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কাজের সন্ধানে ১৫ লাখ তরুণ-তরুণী

প্রথমবারের মতো কৃষি ও পল্লী পরিসংখ্যান জরিপ করেছে বিবিএস। ২০১৮ সালে জরিপটি করলেও তা সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে। দেশের সব জেলার পল্লী এলাকার ৫৭ হাজার ৬০০ পরিবারের ওপর জরিপ চালিয়ে এই প্রতিবেদন তৈরি করেছে বিবিএস। ছয় বছরের বেশি বয়সী পল্লীবাসীর মধ্যে কারা কাজের মধ্যে আছেন, কারা বেকার, কারা পড়াশোনা করেন জরিপে সেই তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। গ্রামের সাড়ে ৭৭ লাখ মানুষের কাজ নেই। পড়াশোনা কিংবা প্রশিক্ষণ নেই, এই সংখ্যা ৬২ লাখ। গ্রামে কর্মসংস্থানের দুই-তৃতীয়াংশই কৃষিতে এবং মজুরিহীন গৃহস্থালির কাজে আছে দুই কোটির বেশি।

বিবিএসের জরিপ বলছে, গ্রামে অর্ধেকের বেশি কাজের সুযোগ সৃষ্টি হয় কৃষি খাতে। ৩০ শতাংশের মতো কাজের সুযোগ আসে দোকানপাট, পরিবহনসহ বিভিন্ন সেবা খাতে। কলকারখানায় বাকি কর্মসংস্থান হয়। আবার কৃষি খাতের কর্মসংস্থানের মধ্যে ৭০ শতাংশ নিজে ও পরিবারের সদস্যরাই করেন। এমন কর্মজীবীর সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ৭০ লাখ। বাকি ৭২ লাখ ৯১ হাজার প্রকৃত কৃষিশ্রমিক, যাঁরা মজুরির বিনিময়ে কাজ করেন। একজন কৃষিশ্রমিকের দৈনিক গড় আয় ৩৮৬ টাকা। তাঁদের প্রতিদিন গড়ে পৌনে আট ঘণ্টা কাজ করতে হয়। অবশ্য সপ্তাহে সব দিন নয়; পাঁচ দিন তাঁরা কাজ পান। এবি মির্জা আজিজুল ইসলাম সুপারিশ করেন, কৃষি খাতে প্রযুক্তির উৎকর্ষ বন্ধ করা যাবে না। তাই উৎপাদন ও সেবা খাতে বেসরকারী বিনিয়োগ বাড়িয়ে অন্য খাতে কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়াতে হবে। বিবিএস বলছে, গ্রামে তিন কোটি পরিবার আছে, যার দুই-তৃতীয়াংশ কোন না কোনভাবে কৃষি কাজের সঙ্গে জড়িত। তবে কৃষি খাতই ওই সব পরিবারের প্রধান উৎস নয়। গ্রামের একটি পরিবার মাসে গড়ে আয় করে ১৬ হাজার ৮৯৩ টাকা। তবে এই আয়ের দুই-তৃতীয়াংশই আসে অকৃষি খাত থেকে। কৃষি খাত থেকে আসে ৩৮ শতাংশ বা সাড়ে ছয় হাজার টাকা। গ্রামের কৃষক-খামারিরা ধান-চাল, শাকসবজি, হাঁস-মুরগি, ডিমসহ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদন করে থাকেন। কিন্তু এসব পণ্য বাজারজাত করার ব্যবস্থা এখনও বেশ দুর্বল। হাটবাজারে গিয়ে বিক্রি করার সুযোগ কম। উৎপাদক ও বিক্রেতার মধ্যে ফড়িয়ারা ঢুকে পড়েন। বিবিএসের জরিপ বলছে, অর্ধেকের বেশি কৃষক পরিবারকে নিজের বাড়িতেই ধান, চালসহ বিভিন্ন ধরনের কৃষিপণ্য বিক্রি করতে হয়। মাত্র ১৮ শতাংশ পরিবার স্থানীয় হাটবাজারে গিয়ে কৃষিপণ্য বিক্রি করতে পারে। দুই-তৃতীয়াংশ কৃষক-খামারির নিজ বাড়ি থেকে অন্তত দুই কিলোমিটারের মধ্যে হাটবাজার নেই। বিবিএসের সর্বশেষ শ্রমশক্তি জরিপ অনুযায়ী, দেশে বেকারের সংখ্যা প্রায় ২৭ লাখ। আর প্রায় ৬৬ লাখ তরুণ-তরুণী পছন্দমতো কাজ পাচ্ছেন না। তাঁদের ছদ্মবেকার হিসেবে ধরা হয়।

অর্থনীতি ডেস্ক