১৭ অক্টোবর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডিআরইউ স্পোর্টস সমাপ্ত, জনকণ্ঠের রুমেলের দুটি সাফল্য

 ডিআরইউ স্পোর্টস সমাপ্ত, জনকণ্ঠের রুমেলের দুটি সাফল্য

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) আয়োজিত ওয়ালটন-ডিআরইউ ক্রীড়া উৎসব শেষ হয়েছে। সোমবার ঢাকার সেগুনবাগিচায় অবস্থিত ডিআরইউর সাগর-রুনি মিলনায়তনে এই ক্রীড়া আসরের পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়। এই ক্রীড়া উৎসবে দৈনিক জনকন্ঠের মুখ উজ্জ্বল করেছেন স্পোর্টস রিপোর্টার রুমেল খান। তিনি টেবিল টেনিসের এককে চ্যাম্পিয়ন এবং ১০০ মিটার স্প্রিন্টে তৃতীয় স্থান অধিকার করেন। এছাড়া জনকন্ঠের বিশেষ প্রতিনিধি তপন বিশ্বাস দাবায় রানারআপ হন।

টিটিতে এটা রুমেলের দ্বিতীয় শিরোপা এবং সার্বিকভাবে চতুর্থ পদক। ২০১৬ সালের পর এই ইভেন্টে শিরোপা পুনরুদ্ধার করেন তিনি। এই ইভেন্টে ২০১৭ সালে রানারআপ এবং ২০১৪ সালে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছিলেন তিনি। এছাড়া দৌড় প্রতিযোগিতায় এ নিয়ে তিনবার পদক জিতলেন রুমেল। এর আগে ২০১৪ সালে ৪০০ মিটারে রানারআপ এবং ২০১৬ সালে ৮০০ মিটারে তৃতীয় হয়েছিলেন।

গত ৬ আগস্ট ঢাকার পল্টনের শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ ইনডোর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত টেবিল টেনিস প্রতিযোগিতার ফাইনালে ১২-১০, ১১-২ পয়েন্টে রুমেল হারান দৈনিক সংগ্রামের জাফর ইকবালকে। এই জাফরের কাছেই ২০১৭ আসরের ফাইনালে হেরেছিলেন রুমেল। জাফর নিজেও দু’বারের চ্যাম্পিয়ন।

ডিআরইউ টিটিতে (একক) এ নিয়ে চার আসরে রুমেল খেলেছেন মোট ১৫ ম্যাচ (২০১৪ আসরে ৪, ২০১৬ আসরে ৪, ২০১৭ আসরে ৪ এবং ২০১৯ আসরে ৩ ম্যাচ (২০১৫ ও ২০১৮ সালে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়নি)। জেতেন ১৩ এবং হারেন ২ ম্যাচে।

গত ১৯ আগস্ট ১০০ মিটার স্প্রিন্টে রুমেল তৃতীয় হন। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এই ইভেন্টে বাংলাদেশের খবরের মাহমুদুন্নবী চঞ্চল এবং চ্যানেল আই’র তরিকুল ইসলাম মাসুমের পরে দৌড় শেষ করেন তিনি। এবার রুমেল গোলক নিক্ষেপেও অংশ নেন। এতে তিনি পঞ্চম হন। এই ইভেন্টে অবশ্য ২০১৭ সালে রানারআপ হয়েছিলেন রুমেল।

২০০৯ সালে জনকন্ঠে যোগ দেয়া রুমেল ডিআরইউর সদস্য হন ২০১২ সালে। ডিআরইউ ক্রীড়ায় সার্বিকভাবে মোট দশটি পদক জিতেছেন তিনি। উল্লেখ্য, গত ১৭ সেপ্টেম্বর ৪৩ বছর পূর্ণ করা রুমেল খানের একটি বিরল কীর্তি আছে টেবিল টেনিসে। তাহলো- একই বছরে সাংবাদিকদের দুটি সংগঠনে আয়োজিত টেবিল টেনিস টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হওয়া (২০১৬ সালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এবং বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতিতে)।

সোমবার ডিআরইউ সাগর-রুনী মিলনায়তনে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, এমপি। ডিআরইউ’র সহ-সভাপতি খোন্দকার কাওছার হোসেনের সভাপতিত্বে এবং ক্রীড়া সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শামীমের সঞ্চালনায় পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), ডিআরইউ’র সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ খান, অর্থ সম্পাদক জিয়াউল হক সবুজ, নারী বিষয়ক সম্পাদক সাজিদা ইসলাম পারুল, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শেখ মাহমুদ এ রিয়াত, তথ্য প্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক আবদুল হাই তুহিন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক এমদাদুল হক খান, আপ্যায়ন সম্পাদক এইচএম আকতার ও কার্যনির্বাহী সদস্য খালিদ সাইফুল্লাহ।

এবারের ক্রীড়া উৎসবে পুরুষ সদস্যদের ৯টি এবং নারী সদস্যদের ৫টি ইভেন্টে ৪৭টি পুরস্কার প্রদান করা হয়। বিজয়ীদের ক্রেস্ট ও সৌজন্য পুরস্কার দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, এবারের ডিআরইউ স্পোটসে মোট ক্রীড়া ইভেন্ট ছিল ৯টি। এগুলোর মধ্যে টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন, ক্যারম, সাঁতার, দাবা, গোলক নিক্ষেপ, ব্রিজ ইভেন্ট আয়োজিত হলেও শূটিং এবং আরচারি এই দুটি ইভেন্ট পূর্ব ঘোষণা দিয়েও আয়োজন করতে ব্যর্থ হন ক্রীড়া সম্পাদক।

এক নজরে ডিআরউ স্পোর্টসে রুমেল খানের ১০ পদকের খতিয়ান (২০১২-২০১৯) ॥ ২০১২ সালে ক্রিকেটে জনকণ্ঠের হয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ, ২০১৩ সালে ক্রিকেটে জনকণ্ঠের হয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ, ২০১৪ সালে টেবিল টেনিসে তৃতীয় স্থান, ২০১৪ সালে ৪০০ মিটার দৌড়ে রানারআপ, ২০১৬ সালে টেবিল টেনিস চ্যাম্পিয়ন, ২০১৬ সালে ৮০০ মিটার দৌড়ে তৃতীয় স্থান, ২০১৭ সালে টেবিল টেনিসে রানারআপ, ২০১৭ সালে গোলক নিক্ষেপে রানারআপ, ২০১৯ সালে টেবিল টেনিসে চ্যাম্পিয়ন এবং ২০১৯ সালে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে তৃতীয় স্থান।