১৫ অক্টোবর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশ ও ভারতের ট্রেড ও ব্যালেন্স কমিয়ে আনা দরকার ॥ ডেপুটি স্পিকার

বাংলাদেশ ও ভারতের ট্রেড ও ব্যালেন্স কমিয়ে আনা দরকার ॥  ডেপুটি স্পিকার

অনলাইন ডেস্ক ॥ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদানের কথা আমরা কখনো ভুলবো না। তৎকালীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী এক কোটি বাঙালিকে আশ্রয় দিয়েছিলেন। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছিল ভারত।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ১১টায় রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি, বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) মুদ্রণ প্রযুক্তিবিষয়ক আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী 'প্রিন্টেক বাংলাদেশের-’১৯ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ডেপুটি স্পিকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার।

তিনি বলেন, আমি ভারতীয় ব্যবসায়ীদের অনুরোধ করবো, বাংলাদেশ ও ভারতের ট্রেড ও ব্যালেন্স কমিয়ে আনা দরকার। এ বার্তা আপনাদের সরকারকে দেবেন।

ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, আমাদের প্রবৃদ্ধি অনেক উচ্চ। ২১ সালের মধ্যে প্রবৃদ্ধি ডাবল হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা ইতোমধ্যে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছি। ২০৩০ সালে আমরা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জন করবো। তবে আমরা কাউকে পেছনে ফেলে নয়, আমরা সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। এ অঞ্চলের মধ্যে বাংলাদেশ সবচেয়ে উদীয়মান অর্থনীতির দেশ।

ডেপুটি স্পিকার বলেন, এখন প্রিন্টিং শুধু বই ছাপানোর মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়, গার্মেন্টসসহ বিভিন্নখাতে ব্যবহৃত হচ্ছে। তাই সততার সঙ্গে ব্যবসা করে আমরা প্রিন্টিং ব্যবসা দিয়েও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে চাই।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মুদ্রণ শিল্প সমিতির চেয়ারম্যান শহিদ সেরনিয়াবাত, সাধারণ সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম, ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, পিএইচডি চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি দয়া কর ঋদ্বি, সাধারণ সম্পাদক রাকেশ সাঙ্গারি ও আস্ক অ্যান্ড এক্সিবিশন্স লিমিটেডের পরিচালক নান্দ গোপাল প্রমুখ।

পরে ডেপুটি স্পিকার আন্তর্জাতিক এ মেলার উদ্বোধন করেন এবং স্টলগুলো ঘুরে দেখেন।