২০ নভেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অবশেষে চট্টগ্রামে গোকুলাম কেরালা, আয়োজকদের স্বস্তি

অবশেষে চট্টগ্রামে গোকুলাম কেরালা, আয়োজকদের স্বস্তি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে আজ অভিষেক হচ্ছে বসুন্ধরা কিংসের। শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে কিংসরা খেলবে ভারতের গোকুলাম কেরালার বিরুদ্ধে।

আসরের সবশেষ অর্থাৎ অষ্টম দল হিসেবে গোকুলাম চট্টগ্রাম পৌঁছেছে সোমবার সন্ধ্যায়। এরপর সোজা তারা উঠে গেছে টিম হোটেলে। খুব অল্প সময়ের ব্যবধানেই তাদের মাঠে নামতে হচ্ছে। গতকাল আসার পর কাল সকালে অনুশীলন করবে ভারতীয় দলটি। এরপর সন্ধ্যায় লড়বে শক্তিশালী বসুন্ধরার বিরুদ্ধে। গোকুলাম কেরালা আসায় স্বস্তি ফিরেছে আয়োজকদের। নিশ্চিত থাকলেও তারা না আসা পর্যন্ত সবাই দুশ্চিন্তায় ছিলেন। ঢাকা আবাহনী না খেলায় শেষ মুহূর্তে গোকুলামকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। কিন্তু শেষ মুহূর্তে নিয়মনীতি মেনে আসতে তাদের বিলম্ব হয়েছে। এ কারণে টুর্নামেন্টের সময়সূচীতে পরিবর্তন আনতে বাধ্য হয়েছেন আয়োজকরা। এরপরও শেষ পর্যন্ত গোকুলাম আসায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন শেখ কামাল ক্লাব কাপের কর্তাব্যক্তিরা।

ঘরোয়া ফুটবলে দারুণ ছন্দে থাকা বসুন্ধরা শেখ কামাল টুর্নামেন্টকেও নিয়েছে পাখির চোখে। তবে তারা শুধু এই আসর নিয়ে ভাবছেনা। দলটির লক্ষ্য সুদূরপ্রসারী। আগেরবারের চেয়ে এবার আরও ভাল দল গড়া কিংসদের লক্ষ্য অভিষেক মৌসুমের সাফল্য ছাড়িয়ে যাওয়া। দলটির কোচ অস্কার ব্রুজোন এমনই জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা মৌসুমে কোনো নির্দিষ্ট সংখ্যক শিরোপা জেতার লক্ষ্য রাখছি না। কেননা এতে দলে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। দলের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে গত মৌসুম থেকে আরও উন্নতি করা। শেষ মৌসুমটা আমাদের দারুণ কেটেছে। কিন্তু আমরা উচ্চাভিলাষী দল।’

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ ও স্বাধীনতা কাপের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে এই টুর্নামেন্টে খেলতে আসায় শিরোপা জয়কে ‘প্রেস্টিজ ইস্যু’ হিসেবে দেখছে বলে জানান বসুন্ধরা বস।

শিরোপা জয়ের পাশাপাশি নিজেদের খেলার মান আরও বাড়াতে চান অস্কার। গত মৌসুমের দলটি থেকে চলতি মৌসুমের দলটাকে আরও পরিপূর্ণ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় এবার আমাদের দলটা আরও ভালো। তাই দলে প্রচুর রোটেশন থাকবে। গতবারের দলের সঙ্গে এবারের বসুন্ধরার পার্থক্যটা হচ্ছে স্কোয়াড আর বেঞ্চের খেলোয়াড়দের মান।’ বসুন্ধরার অধিনায়ক ড্যানিয়েল কলিনড্রেসও শুধু এই আসর নিয়ে পড়ে থাকতে চান না। তার দৃষ্টিও অনেক দূরে। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে কোস্টারিকার হয়ে খেলা কলিনড্রেস বলেন, ‘আমরা সব ধরনের প্রতিযোগিতায় প্রতিদ্ব›দ্বীতা করতে চাই। আমরা ফেডারেশন কাপে খেলেছি। সামনে এএফসি কাপেও খেলবো।’

বাংলাদেশের সতীর্থদের প্রশংসায় ভাসিয়ে কিংস কান্ডারি বলেন, ‘আমাদের নতুন খেলোয়াড় আছে। খুব ভালো খেলোয়াড় ও বিদেশি খেলোয়াড়রা আছে। জালাল, বিপলু, বিশ্বনাথ, ইয়াসিন খানদের মতো খেলোয়াড়রা আছে। আমরা প্রতিযোগিতা করতে চাই ও জিততে চাই। আমরা খুবই আশাবাদী। আমরা সামনের দিকে তাকাতে চাই।’

নির্বাচিত সংবাদ