১৯ নভেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দোয়েলের দুই সিনেমা ॥ ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব

  • সব্যসাচী দাশ

দিলরুবা হোসেন দোয়েল। শেবিজে দোয়েল ম্যাস নামে পরিচিত। চলচ্চিত্র, নাটক, বিজ্ঞাপন, ফ্যাশনসোসহ শিল্পের বহুমাত্রিকতায় দোয়েলের কাজের অভিজ্ঞতা দীর্ঘদিনের না হলেও গত কয়েক বছরের মধ্যে নিজেকে বেশ উজ্জ্বল করে তুলেছেন। বিশেষ করে অভিনীত চলচ্চিত্র ‘আলফা’ তাকে অন্যন্য পরিচয় দিয়েছে। নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু পরিচালিত এই সিনেমায় জীবন ঘনিষ্ঠ চরিত্রে অভিনয় করে নিজেকে ভীষণ আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছে। আলফার পাশাপাশি এন রাশেদ পরিচালিত ‘চন্দ্রাবতী’ চলচ্চিত্র মুক্তির অপেক্ষায় ছিল। অবশেষে ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে দোয়েল অভিনীত এই সিনেমা প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে সঙ্গে নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুর পরিচালিত ‘আলফা’। এমন একটি আন্তর্জাতিক উৎসবে বলতে গেলে তার মতো একজন নবীন অভিনয় শিল্পীর অভিনীত দুটো সিনেমা নির্বাচিত হবে এটা বোধকরি নিজেও কল্পনা করতে পারেনি। এই বিষয়ে ব্যক্তিগত অনুভূতি এবং বর্তমান হাল নিয়ে দোয়েলের সঙ্গে কথা হয় আনন্দকণ্ঠের। শুরুতেই কেমন আছেন? আমি ভাল আছি। খবর তো জানেন নিশ্চই এবারের কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশ থেকে দুটো সিনেমা যাচ্ছে, দুটোই আপনার অভিনীত সিনেমা, বলেন তো কিভাবে সম্ভব হলো আর কেমন লাগছে এমন ঘটনায়? দোয়েল, আমি ভীষণ আনন্দিত। প্রথমে ভাবতেই পারিনি আমার এই অল্প সময়ের ক্যারিয়ারে এতবড় সাফল্যের দেখা মিলবে। চলচ্চিত্র আলফা চলতি বছর বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে। কিন্তু চন্দ্রাবতী এখনও হলে মুক্তি পায়নি। এই উৎসবে প্রদর্শিত হবে। বছর তিনেক আগে এই চলচ্চিত্রে কাজ করেছিলাম কিশোরগঞ্জে। বাংলা সাহিত্যের প্রথম নারীবাদী কবি চন্দ্রাবতীর জীবন অনুপ্রেরণায় নির্মিত চলচ্চিত্র। চন্দ্রাবতীর গল্পে যখন কাজ করছিলাম তখন থেকে অপেক্ষায় ছিলাম পর্দায় চরিত্রটি কিভাবে উঠে আসবে! নিজের অভিনীত চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে আপনি কি উৎসবে যাচ্ছেন? না আমার যাওয়া হচ্ছে না। জানেন তো আমার একটা সন্তান আছে, ও এখন স্কুলে যায় এবং সামনে ওর পরীক্ষা। কাজেই এই সময় আমি ওর পাশে না থাকলে কিভাবে হয়। কার কাছেই বা ওকে রেখে যাব? সব মিলিয়ে আমার কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে যাওয়া হচ্ছে না। বর্তমান সময়ে কি নিয়ে ব্যস্ত আছেন? আমি এখন চলচ্চিত্র ‘আজব কারখানা’ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছি। ছবির কাজ প্রায় শেষের দিকে। কবে নাগাদ মুক্তি পেতে পারে? এটা আমি নিশ্চত করে বলতে পারছি না। পরিচালক বা ব্যবস্থাপনায় যারা আছেন তারা বলতে পারবেন। আজব কারখানায় আপনার সহশিল্পী কে? কলকাতার পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। পাশাপাশি মামুনুর রশিদ স্যারের পরিচালনায় ‘কালের যাত্রা’ নামে একটি নাটকে কাজ করছি। আপনার অভিনীত ‘ইতি, তোমারই ঢাকা’ সম্পর্কে বলুন? ‘ইতি, তোমারই ঢাকা’ হল বাংলাদেশের অমনিবাস চলচ্চিত্র। এগারোজন চলচ্চিত্র নির্মাতার গল্পে নির্মিত। এখানে প্রতিটি গল্পের দৈর্ঘ্য ১০ থেকে ১২ মিনিট। সব মিলিয়ে দুই ঘণ্টা ১৫ মিনিটের চলচ্চিত্র। আমি এই চলচ্চিত্রের একটা গল্পে অভিনয় করেছি। আপনার অভিনীত গল্পটা সম্পর্কে একটু বলুন। আমার এই গল্পে মূলত রাতের ঢাকার একটা অংশকে দেখানো হয়েছে। একজন সাধারণ চাকরিজীবী যে কিনা ভুল করে অফিসে চাবি রেখে আসে। সঙ্গে চাবি না থাকায় মানুষটি বাড়িতে ঢুকতে পারে না। শেষে উপায় অন্ত না পেয়ে মানুষটিকে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরতে হয়। রাতের ঢাকায় চলতে গেলে কতকিছুর সম্মুখীন হতে হয়- এমন একটা অভিজ্ঞতাকে কেন্দ্র করে আমার অংশের গল্প। এই সিনেমায় আর কে কে অভিনয় করেছেন? নুসরত ইমরোজ তিশা, ফজলুর রহমান বাবু, অর্চিতা স্পর্শিয়া, ইরেশ যাকের, মোস্তফা মনোয়ার, মনোজ প্রামাণিক, শতাব্দী ওয়াদুদ, ইয়াশ রোহানসহ আরও অনেকে অভিনয় করেছেন। আবার আসি ‘চন্দ্রাবতী’র কথায়। বাংলাদেশের দর্শক কবে নাগাত দেখতে পারবে এই সিনেমা। দোয়েল, আশা করছি সামনের জানুয়ারিতে দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে। আপনার এক সাক্ষাতকারে বলেছিলেন ভীষণ কষ্টসাধ্য ছিল এই সিনেমায় অভিজ্ঞতা, কেমন লাগছে এই চলচ্চিত্রটি অন্তর্জাতিক উৎসবে নির্বাচিত যাওয়ায়। হ্যাঁ আমি বলেছিলাম, সত্যিই ভীষণ কষ্টসাধ্য ছিল। আঞ্চলিক ভাষা শেখা, ভরা কুয়াশা ও কনকনে শীতের মধ্যে গরম পোশাক ছাড়া সেই সময়ের নারী পোশাক কেবল শাড়ি পরে দীর্ঘ সময় ক্যামেরার সামনে শট দেয়া পাশাপাশি একটি ঐতিহাসিক চরিত্রে রূপদান, মোটেই সহজসাধ্য ছিল না।

যখন জানলাম ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের জন্য ‘চন্দ্রাবতী’ নির্বাচিত হয়েছে তখন নিজের পরিশ্রম সার্থক মনে হয়েছে। দোয়েল তার ক্যারিয়ারে টিভি নাটক বা র‌্যাম্পের হাঁটার জন্য যতটা আলোচিত হয়েছেন তার চেয়ে ঢের বেশি আলোচিত হয়েছেন অভিনীত পূর্ণ এবং স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্যমে।