১৯ নভেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বলিউড বাদশার চুয়ান্ন!

  • রেজাউল করিম খোকন

নবেম্বরের ১ তারিখ। দিন শেষে রাত নেমেছে মুম্বাই শহরে। বৃষ্টি হচ্ছে অবিরাম.. রাত বাড়তে শুরু করলে ‘মান্নাত’-এর সামনে মানুষজনের ভিড় বাড়তে শুরু করে। মুম্বাইয়ের উপকূলবর্তী বান্দার ব্যান্ডস্ট্যাডে বিলাসবহুল বাড়িটিতে স্ত্রী-সন্তান-পরিবার-পরিজনসহ বসবাস করেন ‘বলিউড বাদশা’, ‘বলিউড কিং’, ‘ কিং খান’ ইত্যাদি খেতাবে ভূষিত সুপারস্টার শাহরুখ খান। রাত বারোটা বাজতেই ‘মান্নাত’-এর সামনে উপস্থিত ভক্ত-অনুরাগীদের ভিড় বেশ জমে যায়। ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে তারা সবাই প্রিয় তারকার ৫৪তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে এসেছেন। বারোটা বাজার আগেই কিংখান বাড়ির ব্যালকনিতে এসে দাঁড়ান। প্রিয় তারকাকে দেখামাত্র উপস্থিত ভক্ত- অনুরাগীদের মধ্যে আনন্দ-উচ্ছ্বাসের জোয়ার জাগে। সবাই উচ্চস্বরে শাহরুখ খানকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানায়। তাদের উচ্ছ্বাসভরা শুভেচ্ছার বিনিময়ে দু’হাত উপরে তুলে নিজের ভাললাগা প্রকাশ করেন বলিউড সুপারস্টার। উপস্থিত ভক্ত-অনুরাগীদের মধ্যে আরেক দফা উচ্ছ্বাসের ঝড় বয়ে যায়। শাহরুখ তাদের নি¤œস্বরে উচ্ছ্বাস-আবেগ প্রকাশের অনুরোধ জানান। কারণ গভীররাতে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে আসা ভক্ত-অনুরাগীদের হৈচৈ শোরগোল আশপাশের প্রতিবেশীদের রাতের ঘুমে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে বলে সতর্ক করে দেন বলিউড কিং। ভক্ত- অনুরাগীর দল প্রিয় তারকার জন্মদিনের জন্য তৈরি করা বেশকিছু টি-শার্ট ততক্ষণে ছুড়ে দিয়েছে মান্নাতের ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে থাকা শাহরুখের দিকে।

৫৪তে পা রেখেছেন বলিউড কিং শাহরুখ খান। হিন্দী সিনেমায় যুগে যুগে অনেক অভিনেতার আগমন ঘটেছে। তাদের মধ্যে সবাই সমানভাবে সাফল্য, খ্যাতি ও জনপ্রিয়তা পাননি। কেউ কেউ জনপ্রিয়তা, খ্যাতি ও সাফল্যের সুবর্ণ শিখরে পৌঁছে সুপারস্টারের মর্যাদা লাভ করেছেন। শাহরুখ খান সেই সৌভাগ্যবান অভিনয় তারকাদের একজন। তিনি একনাগাড়ে দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে হিন্দী ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে দোর্দ- দাপটে নিজেকে চমৎকার উজ্জ্বল একটি অবস্থানে ধরে রেখেছেন। ছোট পর্দায় একজন সাধারণ অভিনেতা হিসেবে পথচলা শুরু করে আপন যোগ্যতায় এক সময়ে বলিউডে অভিনয়ের সুযোগ পেয়ে যান। ‘দিল আমানা হ্যায়’ ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে বলিউডে ক্যারিয়ার শুরু হলেও সাফল্য আসে। ‘দিওয়ানা’ ছবির মাধ্যমে। এক বিধবা তরুণীর প্রেমে পাগল উদ্দাম যুবকের ভূমিকায় নতুন মুখ শাহরুখ খানকে দর্শক বিপুলভাবে গ্রহণ করেছিল। রাতারাতি ঘরে ঘরে তার বিপুল জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়েছিল। এরপর আর শাহরুখ খানকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ‘ডর’ এবং ‘আনজাম’ ছবিতে নেগেটিভ রোলে অভিনয়ের দুঃসাহস দেখান ক্যারিয়ারের শুরুতে। কারণ এ সময় নায়কোচিত ইমেজ ভেঙ্গে সহজে ভিলেন রূপে পর্দায় উপস্থিত হলে দর্শকদের মধ্যে বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা ছিল। শাহরুখের আস্থা ছিল নিজের ওপর। প্রতিনায়ক হিসেবে ‘ডর,‘ আনজাম’, ‘বাজিগর’ ছবিগুলোতে বাজিমাত করেন তিনি। নিজেকে একই ধরনের রোলে কখনই সীমাবদ্ধ করে রাখেননি তিনি। বিভিন্ন মেজাজের সিনেমায় বিচিত্র ধরনের চরিত্রে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে গেছেন বার বার। ‘কাভি হ্যাঁ কাভি না’, ‘রাজু বান গ্যায়া জেন্টেলম্যান’, ‘চমৎকার’, ‘করণ অজুন’, ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া’, ‘লে জায়েঙ্গে’, ‘রাম জানে’, ‘ত্রিমূর্তি’, ‘ইংলিশ’, ‘বাবু দেশি মেম’, ‘চাহাত’, ‘কোয়ালা’, ‘ইয়েস বস’, ‘পারদেশ’, ‘ডুপ্লিকেট’, ‘দিল সে’, ‘কুচকুচ পোতা হ্যায়’, ‘বাদশা’, ‘ফির ভি দিল হ্যায় হিন্দুস্থানি’, ‘জোশ’, ‘মোহাব্বাতে’, ‘অশোকা’, ‘কাভি খুশি কাভি গাম’, ‘দেবদাস’, ‘চলতে চলতে’, ‘কাল হো না হো’, ‘ম্যায় হুনা’, ‘বীর জারা’, ‘স্বদেশ’, ‘কাভি আলবিদা না’, ‘ক্যাহনা’, ‘ডন’, ‘চাক দে ইন্ডিয়া’, ‘ওম শান্তি ওম’, ‘রাব নে বানা দি জোড়ি’, ‘বিল্ল’, ‘মাই নেম ইজ খান’, ‘রাওয়ান’, ‘জব তক হ্যায় জান’, ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’, ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’, ‘দিলওয়ালে’, ‘ডিয়ার জিন্দেগি’, ‘জব হ্যারি মিট সেজাল’, ‘জিরোÑ প্রায় আশিটি বলিউডে সিনেমায় নিজেকে বিচিত্র সব চরিত্রে সফলভাবে তুলে ধরে দর্শকদের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি কয়েক দশকের ফিল্মি ক্যারিয়ারে। ১৪টি ফিল্মফেয়ার নিজের ঝুলিতে পুরেছেন শাহরুখ। অভিনয়ে কৃতিত্বের স্বাক্ষর দিয়েছেন বার বার। ভারতের বেসামরিক খেতাব পদ্মশ্রী লাভ করেছেন তিনি। অভিনেতা হিসেবে খ্যাতি, জনপ্রিয়তা, প্রভাব, প্রতিপত্তি, অর্থবিত্ত অর্জন করেছেন। তিনি বলিউডের একজন প্রভাবশালী চলচ্চিত্র প্রযোজক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তাঁর নিজস্ব প্রযোজনা সংস্থা রেড চিলিস এন্টার টেইনমেন্ট থেকে বহু সুপারহিট সিনেমা নির্মিত হয়েছে। আজকাল তাঁর প্রযোজনায় ওয়েব সিরিজ নির্মিত হচ্ছে নেটফ্লিক্সসহ অন্যান্য স্ট্রিমিং সাইটের জন্য। ৫৪তম জন্মদিনে স্টার প্লাস টিভি চ্যানেলে তাঁর উপস্থাপনায় শুরু হয়েছে ভিন্ন ধাঁচের টিভি শো ‘ঢেউ টক ইন্ডিয়া’। বড় পর্দার পাশাপাশি ছোট পর্দায় মাঝে মধ্যে উপস্থিত হয়ে শাহরুখ প্রমাণ করেছেন, যে টিভির মাধ্যমে তার পথচলা। শুরু হয়েছিল তাকে ভুলে যাননি তিনি। টিভির জন্য তাঁর দরদ আছে এখনও। গত কয়েকটি সিনেমায় প্রত্যাশিত সাফল্য না পেলেও খানের ঔজ্জ্বল্য ম্লান হয়নি একটুও। আপন দ্যুতিতে এখনও তিনি দারুণ উজ্জ্বল।