১৮ নভেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তিন দিনব্যাপী ঢাকা লিট ফেস্টের শুরু কাল

তিন দিনব্যাপী ঢাকা লিট ফেস্টের শুরু কাল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাহিত্য নিয়ে দারুণ এক উৎসব। দেশ-বিদেশের তিন শতাধিক কবি-সাহিত্যিক জড়ো হবেন এক আঙিনায়। শহর ঢাকায় ছড়িয়ে পড়বে সাহিত্যের স্নিগ্ধতা। তিন দিনের সে আয়োজনে অনুষ্ঠিত হবে ৯০টি অধিবেশন। গদ্য-পদ্যসহ বিবিধ বিষয়ে সকাল থেকে রাত অবধি চলবে আলোচনা। আগ্রহী শ্রোতাদের সামনে লেখকরা ব্যক্ত করবেন তাদের সৃষ্টিশীল জীবনের নানা বিষয়ে।

আর সবকিছুর মাঝে থাকবে বৈশ্বিকভাবে বাংলাকে মেলে ধরার প্রয়াস। সেই প্রত্যয়ে বৃহস্পতিবার থেকে বাংলা একাডেমি আঙিনায় শুরু হচ্ছে ঢাকা লিট ফেস্ট। বৃহস্পতিবার সকালে একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে উৎসব উদ্বোধন করবেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এবং ম্যানবুকার পুরস্কারের মনোনয়নপ্রাপ্ত বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ লেখক মনিকা আলী। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় নবমবারের মতো এ উৎসবের আয়োজন করছে যাত্রিক।

মঙ্গলবার সকালে প্রেসক্লাবের জহুর আহমেদ চৌধুরী সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে উৎসবের বিস্তারিত জানান উৎসব পরিচালক সাদাফ সায্ সিদ্দিকি। এসময় উপস্থিত ছিলেন উৎসবের আরো দুই পরিচালক কাজী আনিস আহমেদ ও আহসান আকবর এবং টাইটেল স্পন্সর বাংলা ট্রিবিউনের সম্পাদক জুলফিকার রাসেল, ঢাকা ট্রিবিউনের সম্পাদক জাফর সোবহান, প্লাটিনাম স্পন্সর সিটি ব্যাংকের এমডি মাসরুর আরেফিন প্রমুখ।

সাদাফ সায্্ জানান, বিদেশী অতিথিদের মধ্যে এবারের উৎসবে মনিকা আলী ছাড়াও অংশ নেবেন পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক শংকর, পুলিৎজার পুরস্কারজয়ী লেখক জেফরি গেটলম্যান, ডিএসসি এ্যাওয়ার্ড ফর সাউথ এশিয়ান লিটেরেচার পুরস্কার বিজয়ী সাহিত্যিক এইচ এম নাকভি, স্কটিশ লেখক ও ইতিহাসবিদ উইলিয়াম ডালরিম্পল, ভারতীয় রাজনীতিবিদ ও লেখক শশী থারুর, কবি তিশানি দোশি, সাহিত্যিক স্বপ্নময় চক্রবর্তী, কবি ও সাংবাদিক মৃদুল দাশগুপ্ত, ভারতীয় সাংবাদিক প্রেয়াগ আকবর, ফিনিশ সাংবাদিক মিন্না লিন্ডগ্রেন, ব্রাজিলের কথাসাহিত্যিক ইয়ারা রড্রিগেজ প্রমুখ। দেশের কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে অংশ নেবেন আসাদ চৌধুরী, সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, ইমদাদুল হক মিলন, শাহীন আখতার প্রমুখ।

উৎসবের প্রথম দিনেই দেওয়া হবে জেমকন সাহিত্য পুরস্কার। সাদাফ সায বলেন, এবারের উৎসবে অন্যতম আর্কষণ হিসেবে থাকছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জীবনীভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘হাসিনা : অ্যা ডটারস টেল’-এর বিশেষ প্রদর্শনী এবং তা নিয়ে আলোচনা।

এ সাহিত্য উৎসবে পাঁচটি মহাদেশের ১৮টি দেশ থেকে শতাধিক বিদেশি এবং দুই শতাধিক বাংলাদেশি সাহিত্যিক, লেখক, গবেষক, সাংবাদিক, রাজনীতিক অংশ নিচ্ছেন। দেশি-বিদেশি অতিথিদের সঙ্গে সরাসরি সাহিত্যসহ সমাজের বিভিন্ন প্রসঙ্গে নিয়ে আলোচনা-পর্যালোচনার সুযোগ থাকছে জনসাধারণের জন্য।

তিনি আরো বলেন, লিট ফেস্টে শুধু যে ৯০টির বেশি সেশন অনুষ্ঠিত হবে তা নয়, এখানে রয়েছে বইয়ের সমারোহ, দেশীয় ঐতিহ্যকে তুলে ধরার উন্মুক্ত মঞ্চ। বই প্রকাশ এবং বইয়ের মোড়ক উন্মোচনও অনুষ্ঠিত হবে এ আয়োজনে। লোকশিল্পীদের উপস্থিতিও থাকবে এই আয়োজনে, থাকছেন শিল্পী চন্দনা মজুমদার, মাইজভান্ডারি শিল্পীগোষ্ঠী। আমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িকতা, গণতন্ত্র ও সাহিত্য বিশ্বের কাছে তুলে ধরা। আগামী বছরের ঢাকা লিট ফেস্ট বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করা হবে বলে জানান তিনি।

জাফর সোবাহান বলেন, বাংলাদেশের সাহিত্যকে বিশ্ব সাহিত্যের সঙ্গে এবং বিশ্ব্ সাহিত্যকে বাংলা সাহিত্যের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করতে এ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। এটি উৎসবের মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে পারি।

জুলফিকার রাসেল বলেন, উৎসবে দেশের বাইরে থেকে শুধু সাহিত্যিক নন, বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষেরা আসেন। তাদের সঙ্গে আমাদের বিভিন্ন প্রজন্মের প্রতিনিধিরা আলোচনা করার সুযোগ পান।

মাসরুর আরেফিন বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের এ যুগে মানুষকে বইয়ের কাছে ফিরিয়ে আনতে ভূমিকা রাখছে ঢাকা লিট ফেস্ট।

বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ৭ থেকে ৯ নবেম্বর সকাল নয়টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে এ উৎসব। উৎসবে যোগ দেওয়ার জন্য ঢাকা লিট ফেস্টের ওয়েবসাইটে (www.dhakalitfest.com/register) বিনামূল্যে নিবন্ধন করতে হবে।