১৪ নভেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নিশ্চিত হোক শিশু অধিকার

  • আজহার মাহমুদ

আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যত। আগামীতে দেশের উন্নয়নে এই শিশুদেরই প্রয়োজন হবে। একটি শিশুকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হলে প্রথমেই শিশুর পারিবারিক ও সামাজিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। বিশ্বব্যাপী শিশুদের অধিকার সংরক্ষণের জন্য ১৯২৪ সালে জেনেভায় এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের মাধ্যমে ‘শিশু অধিকার’ ঘোষণা করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৫৯ সালে জাতিসংঘে শিশু অধিকার সনদ ঘোষণা করা হয়। বাংলাদশে এই সনদে স্বাক্ষর করে। বর্তমান আইনে ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত শিশু হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে দিন দিন বেড়েই চলছে শিশুশ্রম। হাজার হাজার শিশু শ্রম দিচ্ছে কল-কারখানায়, গ্যারেজে, হোটেলে, রিকশা-টেম্পোর ওয়ার্কশপে। আবার অনেক শিশুকে দেখা যায় বাস ও টেম্পোর হেলপারের কাজ করতে।

জাতীয় শিশুনীতি ২০১১-এর ৮ ধারার ৮/৯ এ বলা হয়, যেসব প্রতিষ্ঠানে শিশু নিয়োজিত আছে, সেখানে শিশু যেন কোন রূপ শারীরিক, মানসিক, যৌন নির্যাতনের শিকার না হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে এবং তাদের কার্যক্রম মূল্যায়ন করতে হবে। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায় এর ভিন্ন চিত্র। এ থেকে উত্তরণে সব শিশুশ্রম বন্ধের উদ্যোগ নেয়ার পাশাপাশি প্রয়োজন সচেতনতা ও আইনের সঠিক প্রয়োগ। সারাদেশে রেলওয়ে এলাকায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে শিশুকুলির দল। এই পেশায় যুক্ত হওয়ার ফলে এদের মন মানসিকতার বিকাশ হয় না বরং কুসঙ্গে থাকার ফলে এরা বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপ বা অপরাধ চক্রে জড়িয়ে পড়ে। সিগারেট, ইয়াবা ও নানা ধরনের মাদক সেবনে এসব শিশুশ্রমিক অল্প বয়সেই অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। অনেক শিশু কাজ করতে গিয়ে চোখে আঘাত পেয়ে অন্ধ হয়ে পড়ে। অসুস্থ হয়ে পড়লে এদের কোন খোঁজখবর নেয় না মালিকপক্ষ। আমরা জানি, সরকার শিশুবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশের শিশু অধিকার পরিস্থিতির ইতিবাচক পরিবর্তনে সরকার, উন্নয়ন সংস্থা, মানবাধিকার কর্মীসহ নাগরিক সমাজের সম্মিলিত প্রচেষ্টা বিদ্যমান থাকার পরও শিশুদের সার্বিক অধিকার নিশ্চিতকরণে এখনও অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে, সেটা অস্বীকার করার উপায় নেই। শিশুদের শিক্ষার অধিকার নিশ্চিতে বিনামূল্যে বই প্রদানসহ শিক্ষাবিষয়ক অবকাঠামো উন্নয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শিশুদের সর্বোত্তম স্বার্থ রক্ষার্থে জাতীয় সব উন্নয়ন সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়ন, পরিকল্পনা গ্রহণ, কর্মসূচি বাস্তবায়ন ও বাজেট প্রণয়নের ক্ষেত্রে জাতীয় শিশু নীতিমালা গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু শিশুরা যাদের আমরা আগামী দিনের ভবিষ্যত বলি, তারা তাদের অধিকার কতটুকু ভোগ করতে পারছে? আগামী দিনের শিশুর উন্নয়নে সরকারের গৃহীত পরিকল্পনা বা বাস্তবায়ন কৌশল কতটুকু স্পষ্ট? নানাবিধ আইন থাকার পরও কেন শিশু শারীরিক নির্যাতন, ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না? এসব বিষয় গভীরভাবে ভেবে দেখার প্রয়োজন রয়েছে। শিশুদের দারিদ্র্যবিমোচন, পুষ্টি, স্বাস্থ্যসেবা, নিরাপদ আশ্রয় নিশ্চিত করাসহ হতদরিদ্র ও ছিন্নমূল শিশুর পুনর্বাসন, পর্যায়ক্রমে শিশুশ্রম নিরসন, শিশুর রাজনৈতিক কর্মকা-ে ব্যবহার বন্ধ করা ও তাদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে শিক্ষা ও বিনোদনের উপযুক্ত সুযোগ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাস্তবভিত্তিক কর্মপরিকল্পনা ও কার্যক্রম গ্রহণ করা প্রয়োজন।

খুলশী, চট্টগ্রাম

নির্বাচিত সংবাদ