১৬ ডিসেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯    
ADS

ধেয়ে আসছে বুলবুল ॥ ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সর্বাত্মক প্রস্তুতি

ধেয়ে আসছে বুলবুল ॥ ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সর্বাত্মক প্রস্তুতি
  • আজ মধ্যরাত নাগাদ বরিশাল, সুন্দরবনে আঘাত হানতে পারে ;###;পাঁচ থেকে সাত ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা ;###;মংলা ও পায়রায় ৭, চট্টগ্রামে ৬ ও কক্সবাজার বন্দরে ৪ নম্বর বিপদ সঙ্কেত ;###;ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উপকূলীয় এলাকাসহ সারাদেশে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া, গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি

শাহীন রহমান ॥ অতি প্রবল (ভয়ঙ্কর) রূপ ধারণ করে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের উপকূল বরাবর ধেয়ে আসছে। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বুলবুল আজ শনিবার মধ্যরাত নাগাদ বরিশাল, সুন্দরবন এবং খেপুপাড়ার স্থলভাগে আঘাত হানতে পারে। এর প্রভাবে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ওপর আঘাত হানবে। আবহাওয়া অফিস জানায়, যে গতিতে উপকূলে এগিয়ে আসছে তা বজায় থাকলে পাঁচ থেকে সাত ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা রয়েছে।

এদিকে আবহাওয়া অফিসের সর্বশেষ বুলেটিনে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে দেশে মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর, চট্টগ্রাম বন্দরকে ৬ নম্বর এবং কক্সবাজার বন্দরকে ৪ নম্বর বিপদ সঙ্কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। উপকূলীয় সাত জেলার জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করে দেয়া হয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

আবহাওয়া অফিস জানায়, শুক্রবার বিকেল থেকে বুলবুল প্রবল ঘূর্ণিঝড় থেকে অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে। প্রবল গতিতে উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে। উপকূলে পৌঁছার আগে এটি দুর্বল হওয়ার কোন লক্ষণ নেই। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ রয়েছে ১১০ কিলোমিটার। দমকা অথবা ঝড়োহাওয়া আকারের তা ১২০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ আবদুল মান্নান বলেন, ঘূর্ণিঝড়টি উত্তর-পশ্চিম উপকূলের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এটি আরেকটু ডানদিকে ঘুরতে পারে। পর্যবেক্ষণে মনে হচ্ছে, ঘূর্ণিঝড়টি খুলনা-বরিশাল উপকূলীয় অঞ্চলের ওপর আঘাত হানবে। আজ শনিবার মধ্যরাতে এটি আঘাত হানতে পারে। তিনি বলেন, বাতাসের গতিবেগ সর্বোচ্চ ১৪৪ কিলোমিটার পর্যন্ত উঠতে পারে। তবে উপকূলে চলে আসার আগে এটি কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়তে পারে। বাতাসের গতিবেগ উপকূলে আঘাত হানার সময় ১০০ থেকে ১১০ কিলোমিটার পর্যন্ত থাকতে পারে। ‘বুলবুল’-এর কারণে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকা মেঘাচ্ছন্ন থাকবে।

এদিকে এর প্রভাবে শুক্রবার বিকেল থেকেই উপকূলীয় এলাকায় হালকা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়েছে। ‘বুলবুল’ এর অগ্রবর্তী অংশের প্রভাবে শুক্রবার সকাল থেকে দেশের উপকূলীয় এলাকাসহ সারাদেশের ওপর দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া বিরাজ করছে। উপকূলে ঝড়োহাওয়া বয়ে যাওয়ার সঙ্গে দেশের অন্যত্রও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। উপকূলীয় এলাকার লোকজন আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় উপকূলীয় জেলাগুলোতে সাইক্লোন সেন্টার প্রস্তুত করা হয়েছে। আবহাওয়া অফিস জানায়, উপকূলীয় অঞ্চলের ওপর দিয়ে ঝড়টি বয়ে যাওয়ার সময় বৃষ্টির মাত্রা আরও বাড়বে। রাজধানী ঢাকায়ও ঝড়ের প্রভাবে বৃষ্টি হবে।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে উপকূলীয় সাত জেলায় ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়ার কথা জানানো হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে মন্ত্রণালয়ে এক প্রস্তুতি সভায় প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, উপকূলীয় সাত জেলার আশ্রয়কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। জেলা-উপজেলা পর্যায়ে ৫৬ হাজার স্বেচ্ছাসেবী প্রস্তুত রয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে যথাসময়ে লোকজনকে আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেয়া হবে।

উপকূলে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া ও ঘূর্ণিঝড়ের প্রস্তুতি

খুলনা ॥ বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ এর প্রভাবে উপকূলীয় জেলা খুলনায় শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে হালকা ও মাঝারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের সম্ভাব্য ক্ষতি এড়াতে খুলনা জেলা সদরসহ ৯ উপজেলায় ১০টি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে সরকারী ও বেসরকারী পর্যায়ের ৩৪৯টি সাইক্লোন শেল্টার। জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরী সভায় সব সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল এবং পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সকলকে স্ব স্ব দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেয়া হয়। উপকূলীয় বাসিন্দাদের আশ্রয় দিতে সরকারী-বেসরকারী ৩৪৯টি সাইক্লোন শেল্টারও প্রস্তুত করা হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে পর্যাপ্ত মেডিক্যাল টিম।

বরিশাল ॥ ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোবেলায় খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। জেলায় ২৩২টি সাইক্লোন শেল্টার কেন্দ্র প্রস্তুত রয়েছে। এছাড়া প্রয়োজনে বিভিন্ন বিদ্যালয় ভবন আমরা নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য ব্যবহার করব। ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচী (সিপিপি), রে ক্রিসেন্টসহ বিœ বেসরকাপ্রষ্ঠানের স্বেচ্ছাসেবকরা প্রস্তুত রয়েছেন। পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা বা, ফায়ার র্সাস ও রোভার স্কাউটের সদস্যরাও যেকোন ধরনের সহায়তা করবে। ইতোমধ্যে সিপিপক্ষ থেকে নদী তীরবর্তী এলাকায় সতর্কতামূলক প্রচার চালানো হচ্ছে। এদিকে শুক্রবার সকাল থেকে বলে গুঁগুঁবৃষ্টি হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে বৈরী আবহাওয়ার কারণে বরিশালের অভ্যন্তরীণ সকল রুটের লঞ্চ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে বিআইডব্লিউটিএ।

পটুয়াখালী॥ ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় জেলায় মোট ৪০৩ টি সাইক্লোন শেল্টার প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এ ছাড়া সার্বিক বিষয় মনিটরিং করতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। কন্ট্রোল রুমের ফোন নম্বর ০৪৪১-৬২৩৯৪ এবং মোবাইল নম্বর ০১৩১৭৩৬৫১১৩। এদিকে দুর্যোগে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ১শ’ মেট্রিকটন চাল, ২লাখ ৭৫ হাজার টাকা, ১৬৬ বান্ডিল টিন এবং ৩ হাজার ৫শ’ টি কম্বল মজুদ রাখা হয়েছে।

বাগেরহাট॥ ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ ধেয়ে আসার খবরে নদতীরবর্তী বেড়িবাঁধের বাইরে এবং বাঁধের কাছাকাছি বসবাসকারী মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার প্রস্ততি নিতে শুরু করেছে। শুক্রবার ভোর থেকে দমকা বাতাস আর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি পড়ছে। উপকূলজুড়ে সিডরের পূর্বের পরিস্থিতি বিরাজ করছে। শুক্রবার সকাল থেকে সিপিপির স্বেচ্ছাসেবকরা মাইকিং করে সতর্কতামূলক প্রচারে নেমেছেন। এদিকে, জান-মাল রক্ষায় এদিন জুমাবাদ মসজিদে মসজিদে দোয়া-মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাগেরহাট জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শুক্রবার দুপুরে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা শেষে জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ জানান, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় জেলার ২৩৪টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র, ১০টি মেডিক্যাল টিম, ১০টি কন্টোল রুম প্রস্তুত রয়েছে। জেলার সব সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে। শুকনা খাবার মজুদ রাখা হয়েছে। এছাড়া রেড ক্রিসেন্ট, ফায়ার সার্ভিস ও বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থার কয়েক শ’ স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তুত রয়েছে। জনসচেতনতায় জেলাব্যাপী মাইকিং করা হচ্ছে।

মংলা ॥ দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া বিরাজ করছে। পাশাপশি সকাল থেকে সরাদিন বৃষ্টি হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন রয়েছে। তবে বাতাসের গতিবেগ তেমন না বাড়লেও সাগর রয়েছে উত্তাল। পশুর নদীতে সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে নিরাপদে সরে আসার জন্য নির্দেশনা দিয়েছে বন বিভাগ।

ভোলা॥ ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে সাগর ও নদী বেষ্টিত দ্বীপ জেলা ভোলাসহ উপকূলীয় এলাকায় শুক্রবার সকাল থেকে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন অবস্থায় রয়েছে। সঙ্গে থেমে থেমে হালকা বৃষ্টি হচ্ছে। তবে নদী এখনও উত্তাল হয়ে ওঠেনি। এদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ এর প্রভাব মোকাবেলায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। ভোলা রেড ক্রিসেন্টের সদস্যরা স্থানীয় মানুষকে সতর্ক করতে মাইকে প্রচার চালাচ্ছেন।

পিরোজপুর॥ সারাদিন মেঘাচ্ছন্ন। থেমে থেমে হালকা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। কখন যে বেলা দুপুরে ঘনিয়েছে তা বোঝা গেল না। বিকেলের পর নেমে এলো আলো-আঁধার। আর এখন বিরাজ করছে ঘুটঘুটে অন্ধকার । বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত নি¤œচাপের কারণে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ এর প্রভাবে পিরোজপুরে আজ শুক্রবার সকাল থেকে দেখা মেলেনি সূর্যের। পাশাপাশি হচ্ছে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। রাস্তাঘাটেও কমেছে সাধারণ মানুষের চলাচল। ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানলে ক্ষতির পরিমাণ যাতে কমিয়ে আনা যায় সে জন্য সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

হাতিয়া॥ দুপুরের পর থেকে সকল ধরনের নৌ যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। রাত থেকে হাতিয়ায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। আকাশ অনেকটা মেঘলা আকার ধারণ করায় দিনেরবেলায়ও অন্ধকার নেমে এসেছে। সকল নৌযানকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন।

কলাপাড়া॥ ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে উত্তাল সাগরে মাছ শিকার শেষে কিনারে ফেরার পথে এফবি মা কুলসুম ট্রলারের জেলে বেল্লাল হোসেন সাগরে পড়ে ডুবে গেছে। শুক্রবার সকালে কুয়াকাটার ঝাউবাগান সংলগ্ন গভীর সাগরবক্ষে এ জেলে ডুবে গেছে। এখন পর্যন্ত হতভাগা জেলের কোন খোঁজ মেলেনি। প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে কলাপাড়ার গোটা উপকূলে গুঁড়ি গুঁড়ি থেকে কখনও মাঝারি ধরনের বৃষ্টি পড়ছে। গুমোট ভাব বিরাজ করছে।

পাথরঘাটা॥ প্রস্তুত রাখা হয়েছে আশ্রয়কেন্দ্র। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে উত্তাল হয়ে উঠেছে বঙ্গোপসাগর। উপজেলা প্রশাসন থেকেখোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। পাথরঘাটায় বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। আকাশ মেঘাচ্ছন্ন। জেলায় সরকারী তালিকাভুক্ত ৭৪টি সাইক্লোন শেল্টার রয়েছে। কলেজ, মাধ্যমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনগুলো খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সকল সাইক্লোন শেল্টার বাসযোগ্য করা হয়েছে। দুর্যোগের সময় আশ্রয় নেয়া সাধারণ মানুষের যাতে কোন প্রকার কষ্ট না হয়।

চট্টগ্রাম অফিস ॥ বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে শুক্রবার সকাল থেকেই চট্টগ্রামে আকাশ ছিল মেঘলা। বাতাস না বইলেও দেখা দিয়েছে উৎকণ্ঠা। জনজীবনে একধরনের উদ্বিগ্নতা পরিলক্ষিত হয়। সম্ভাব্য দুর্যোগ মোকাবেলায় সতর্ক অবস্থান নিয়েছে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো। চট্টগ্রাম বন্দর বহির্নোঙরে পণ্য লাইটারিং বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তীরে ফিরে আসছে মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার। নিম্নচাপের প্রভাবে চট্টগ্রামসহ উপকূলীয় অঞ্চলে ভারি বর্ষণের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতর।

এদিকে, আবহাওয়া অফিসের সতর্কতা জারির পর সাগর থেকে ফিরে আসছে মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার। শুক্রবারই তীরে ফিরে আসে বেশিরভাগ নৌকা। নতুন করে আর কোন মাছ ধরার নৌকা সাগর অভিমুখে যাত্রা করেনি। কর্ণফুলী নদীতে এখন শত শত নৌকা। আবহাওয়ার উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত সমুদ্রযাত্রা থেকে বিরত থাকবে মৎস্যজীবীরা।