১২ নভেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

“মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলোর উচিত ভালো করে ঘুমানো”

“মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলোর উচিত ভালো করে ঘুমানো”

অনলাইন ডেস্ক ॥ চীন-যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বিরাজমান ‘প্রযুক্তি অস্থিরতা’ কমাতে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি আহবান জানিয়েছে চীনা চিপ নির্মাতা সিংহুয়া ইউনিগ্রুপ লিমিটেড। রাষ্ট্র পরিচালিত চীনের শীর্ষ সেমিকন্ডাক্টর নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির মতে, ‘অস্থিরতা কমিয়ে চীনের বাজারে মুনাফা করা অব্যাহত রাখতে ‘আরও ভালো’ ভূমিকা রাখা উচিত মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলোর।’

‘চীনের সেমিকন্ডাক্টর ইন্ডাস্ট্রির লক্ষ্য নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ভয় পাওয়ার কিছু নেই’ -জানিয়ে শুক্রবার বেইজিংয়ের এক সম্মেলনে সিংহুয়া ইউনিগ্রুপ চেয়ারম্যান ঝাও ওয়েগুয়ো বলেন, মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলোর উচিত “আরাম করা ও ভালো করে ঘুমানো” এবং অস্থিরতা কমাতে আরও ভালো ভূমিকা রাখা। --- খবর রয়টার্সের।

চীন-যুক্তরাষ্ট্রের চলমান বাণিজ্য যুদ্ধের বেশ বড় একটি অংশ জুড়ে রয়েছে সেমিকন্ডাক্টর প্রযুক্তি। মার্কিন কর্মকর্তাদের ভাষ্যে, রাষ্ট্র পরিচালিত প্রতিষ্ঠান দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের চিপ ইন্ডাস্ট্রির ব্যবসা নষ্ট করার চেষ্টা করছে চীন। এ প্রসঙ্গে শুক্রবারের সম্মেলনে সিংহুয়া চেয়ারম্যান ঝাও ওয়েগুয়ো বলছেন, “মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলো চীনের বাজারে ব্যবসা করে মুনাফা উঠিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, আবার চীনের ব্যাপারেই ভ্রান্ত তথ্য ও মতামত প্রচার করছে।”

ঝাও ওয়েগুয়ো আরও বলেন, “অস্থিরতা কমাতে আরও ভালো ভূমিকা রাখতে পারে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলো, কিছু টেক জায়ান্ট সে কাজটি করছে, কিছু প্রতিষ্ঠান করছে না।”

রয়টার্স উল্লেখ করেছে, সেমিকন্ডাক্টর প্রযুক্তি বিষয়ে আসলেও পরিকল্পনা রয়েছে চীনের। সম্প্রতি এ খাতে শত শত কোটি ডলার বিনিয়োগ করেছে দেশটি।

এ বছরের শুরুতেই চীনের প্রথম ‘উচ্চ-মূল্যের ৬৪ ধাপসম্পন্ন থ্রিডি ন্যান্ড ফ্ল্যাশ মেমোরি চিপ’ তৈরির কাজে হাত দিয়েছে সিংহুয়া ইউনিগ্রুপ লিমিটেড। বলা হচ্ছে, সিংহুয়া’র ওই চিপ প্রযুক্তির মাধ্যমে ‘বিদেশী প্রযুক্তির’ সঙ্গে চীনা প্রযুক্তির যে ফারাক রয়েছে, তা কমিয়ে আনা হবে।

তবে, বিশ্ব বাজারে এখনও তেমন একটা সুবিধা করে উঠতে পারেনি রাষ্ট্র পরিচালিত সিংহুয়া ইউনিগ্রুপ লিমিটেড। সেখানে প্রতিষ্ঠানটিকে যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নামতে হচ্ছে।

সম্প্রতি নিজেদের বাণিজ্য চুক্তির ‘প্রথম ধাপ’ মানার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন। এতে করে দুটি দেশই একে অপরের পণ্যের উপর কর কমিয়ে আনবে। এর আগে এভাবে নিজেদের বেশ কিছু সংখ্যক পণ্যে ২৫ শতাংশ কর ছাড় পেয়েছিল চীন। সেসব পণ্যের মধ্যে সেমিকন্ডাক্টরও ছিল।

নির্বাচিত সংবাদ