১৯ নভেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টুকরো খবর

সম্ভাবনাময় খাতের তালিকা প্রকাশ ॥ ইউএসএআইডির

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় বেসরকারী খাতের তালিকা প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি)। ৫ নবেম্বর ইউএসএআইডি কর্তৃক প্রকাশিত সমীক্ষায় কৃষিভিত্তিক ব্যবসা (খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ), স্বাস্থ্যসেবা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এবং আউটসোর্সিং, ওষুধ শিল্প, পর্যটন, ক্ষুদ্র প্রকৌশলসহ বেশ কয়েকটি বেসরকারী খাতকে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সবচেয়ে উদীয়মান খাত হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা বিষয়ক এক অনুষ্ঠানে এই সমীক্ষা প্রকাশ করা হয়। ইউএসএআইডি কর্তৃক পরিচালিত ‘বিস্তৃত বেসরকারী খাত মূল্যায়ন’ শীর্ষক সমীক্ষার সময়কাল ছিল ২০১৮ সালের অক্টোবর থেকে চলতি বছরের জুলাই পর্যন্ত। সমীক্ষায় মোট ১৬টি বেসরকারী খাত চিহ্নিত করা হয়। এই খাতগুলো হলো কৃষিভিত্তিক ব্যবসা (খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ), স্বাস্থ্যসেবা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এবং আউটসোর্সিং, ওষুধ শিল্প, পর্যটন, ক্ষুদ্র প্রকৌশল সিরামিক, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, চিকিৎসা সরঞ্জাম, প্লাস্টিক, নবায়নযোগ্য শক্তি ও জ্বালানি দক্ষতা, জাহাজ নির্মাণ, চিংড়ি এবং মৎস্য উৎপাদন ও টেলিযোগাযোগ।

সমীক্ষায় চিহ্নিত খাতগুলো হতে পারে ভবিষ্যতের বাংলাদেশে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য খাত। যা বাংলাদেশের অর্থনীতির বহুমুখীকরণে সহায়তা করবে। পাশাপাশি বেসরকারী খাতকে সরকার এবং অন্যান্য সহযোগীদের সঙ্গে আরও নিবিড়ভাবে কাজ করতে সহায়তা করবে। ফলে সার্বিকভাবে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়বে।

ট্যাক্স কার্ড পাচ্ছেন ১৪১ করদাতা

সেরা করদাতা হিসেবে ১৪১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ট্যাক্স কার্ড দেবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এদের মধ্যে ব্যক্তি রয়েছেন ৭৪ জন, বাকিগুলো প্রতিষ্ঠান। সবার নামের তালিকা উল্লেখ করে ৫ নবেম্বর গেজেট প্রকাশ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ।

ব্যক্তি পর্যায়ে ট্যাক্স কার্ড দিতে ‘বিশেষ শ্রেণী’ এবং ‘আয়ের উৎস বা পেশা’ নামের দুটি শ্রেণী করা হয়েছে। বিশেষ শ্রেণির মধ্যে রয়েছে সিনিয়র সিটিজেন, গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, প্রতিবন্ধী, নারী এবং তরুণ।

আয়ের উৎস বা পেশার মধ্যে রয়েছে ১৩টি শ্রেণী। এগুলো হচ্ছে ব্যবসায়ী, বেতনভোগী, ডাক্তার, সাংবাদিক, আইনজীবী, প্রকৌশলী, স্থপতি, হিসাবরক্ষক, নতুন করদাতা, খেলোয়াড়, অভিনেতা-অভিনেত্রী, শিল্পী (গায়ক-গায়িকা) এবং অন্যান্য। এছাড়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে কোম্পানি পর্যায়ে ট্যাক্স কার্ড পাচ্ছে ৫৭টি কোম্পানি।

যোগ্য করদাতা হিসেবে সবাইকে চলতি মাসেই আনুষ্ঠানিকভাবে ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা দেবে সরকার। নীতিমালা অনুযায়ী, ট্যাক্স কার্ডধারীদের সরকার বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠান এবং সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভাসহ স্থানীয় সরকার আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় আমন্ত্রণ জানাবে। যে কোন ভ্রমণে সড়ক, বিমান বা জলপথে টিকেট পাওয়ার ক্ষেত্রে তারা অগ্রাধিকার পাবেন।

স্ত্রী-স্বামী, নির্ভরশীল পুত্র-কন্যা নিজেদের চিকিৎসার জন্য সরকারী হাসপাতালে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কেবিন সুবিধাও দেয়া হবে। এছাড়া বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহার এবং তারকা হোটেলসহ সব আবাসিক হোটেলে বুকিং পাওয়ার ক্ষেত্রে তারা অগ্রাধিকার পাবেন। ট্যাক্স কার্ড দেয়ার পর থেকে এর মেয়াদ থাকবে এক বছর।

নিকেল আকরিক রফতানি শুরু করছে ইন্দোনেশিয়া

নিকেল আকরিক রফতানি সাময়িক বন্ধ ঘোষণার পর সেটি আবার রফতানি শুরু করতে যাচ্ছে ইন্দোনেশিয়া। আগামী বছর থেকে রফতানি বন্ধকে সামনে রেখে রফতানি ব্যাপক হারে বৃদ্ধির জেরে গত ২৮ অক্টোবর সাময়িক রফতানি বন্ধ করে ইন্দোনেশিয়া সরকার। সংশ্লিষ্ট রফতানিকারকদের সঙ্গে বৈঠকের পর এ সংক্রান্ত নিয়ম মেনে চলার প্রতিশ্রুতিতে সম্প্রতি সাময়িক রফতানি বন্ধ প্রত্যাহার করে দেশটির সরকার। খবর রয়টার্স ও ব্লুমবার্গ। নিকেলের শীর্ষ রফতানিকারক দেশ ইন্দোনেশিয়া। অভ্যন্তরীণ মজুদ বাড়াতে এবং রফতানির পরিবর্তে খাত সংশ্লিষ্ট শিল্প প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে গত সেপ্টেম্বরে ২০২০ সাল থেকে নিকেল আকরিক রফতানি বন্ধ ঘোষণা করে দেশটির প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো। যদিও এর আগে ২০২২ সাল থেকে রফতানি বন্ধ করতে চেয়েছিল দেশটি। কিন্তু আগাম রফতানি বন্ধের ঘোষণা আসার পর দেশটি থেকে নিকেল আকরিকের রফতানি ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পায়। সরবরাহ বাড়িয়ে প্রতি মাসে ১০০ থেকে ১৩০টি কার্গো রফতানি করতে শুরু করেন ব্যবসায়ীরা। যদিও নিকেল আকরিক রফতানি আগে থেকে সীমিত করে আনতে চায় দেশটি। এমনকি রফতানির যে বিধিনিষেধ, সেটিও লঙ্ঘন করার অভিযোগ ওঠে রফতানিকারকদের বিরুদ্ধে। নিয়ম লঙ্ঘন করে আকরিকের সঙ্গে ১ দশমিক ৭ শতাংশ নিকেল ধাতু রফতানিরও অভিযোগ ওঠে। এ পরিপ্রেক্ষিতে রফতানি সাময়িক বন্ধ করে তদন্ত শুরু“করে দেশটি। ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট সেপ্টেম্বরে আগাম নিকেল আকরিক রফতানি বন্ধ ঘোষণার পর সরবরাহ সঙ্কটে সেপ্টেম্বরে ধাতুটির দাম ২০১৪ সালের পর সর্বোচ্চে পৌঁছায়। আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এ নিষেধাজ্ঞার আগেই রফতানি বাড়াতে ব্যবসায়ীরা বেশ তাড়াহুড়ো শুরু করেন।

অর্থনীতি ডেস্ক