০৬ ডিসেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাবরি মসজিদ ভাঙ্গার রায় এপ্রিলে

অযোধ্যার বিতর্কিত জমি মামলার রায় হয়েছে। ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলার রায় এখনও বাকি। আগামী এপ্রিলে লক্ষেèৗর বিশেষ সিবিআই আদালত এ রায় দিতে পারে। সুপ্রীমকোর্টের নির্দেশে বিচারপতি এসকে যাদবের কাজের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

সেপ্টেম্বরেই তার অবসরে যাওয়ার কথা ছিল। জুলাইতেই সুপ্রীমকোর্টের নির্দেশ ছিল, আগামী ন’মাসের মধ্যে বাবরি ধ্বংস মামলার রায় দিতে হবে বিচারপতি এস কে যাদবকে। বাবরি মসজিদ ভাঙ্গার ঘটনায় অভিযুক্ত লালকৃষ্ণ আদভানি, মুরলিমনোহর জোশি, উমা ভারতী, কল্যাণ সিং, সাক্ষী মহারাজ, ব্রিজ ভূষণ সিংসহ বিজেপি ও আরএসএসের বহু নেতা। ইতোমধ্যে তারা বিচার প্রক্রিয়ার মুখোমুখি হয়েছেন। অভিযুক্ত পক্ষের আইনজীবী কে কে মিশ্রার কথায়, ‘প্রায় হাজার জন প্রত্যদর্শীর মধ্যে ৩৪৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে বিচার চলছে।’ ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর বাবরি মসজিদে ধ্বংসলীলা চলে।

নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছে পাকিস্তানের আরও সেনা মোতায়েন

নিয়ন্ত্রণ রেখায় সেনা উপস্থিতি বাড়িয়েছে পাকিস্তান। পাশাপাশি সীমান্তের কাছাকাছি এলাকায় কামানও বসানো হচ্ছে। পাক সেনাবাহিনীর এই গতিবিধি লক্ষ্য করে ভারতীয় সেনাবাহিনীর তরফ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারকে একটি প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে। ভারতের দাবি, উপত্যকা থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ তুলে নেয়ার পর থেকেই কাশ্মীরে বারবার আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা চলছে। এমনকি নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে ভারতের সাধারণ নাগরিকদের ওপরও বারবার গুলি চালানোর মতো ঘটনা ঘটেছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে কয়েক মিটার দূরের লঞ্চ প্যাডগুলো এই মুহূর্তে জঙ্গীপূর্ণ হয়ে আছে এবং সন্ত্রাসবাদীরা অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে। -এনডিটিভি

নির্বাচিত সংবাদ