০৬ ডিসেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাতজ্বর

বাতজ্বর কি?

বাতজ্বর হলো শরীরের অস্থিসন্ধি বা গিরাগুলোর একটি প্রদাহজনিত রোগ- যার ফলে জ্বর এবং তীব্র ব্যথা হতে পারে। মূলত গলায় ব্যথা বা টনসিলের প্রদাহ বাতজ্বরের প্রধান উৎস। রোগটি সাধারণত ৫ থেকে ৫ বছরের ছেলে মেয়েদের বেশি হয়।

বাতজ্বরের কারণ

স্ট্রেপটোকক্কাস নামক এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া বা জীবাণুর আক্রমণে এ রোগটির উপসর্গ দেখা যায়। প্রথমে গলায় বা টনসিলে প্রদাহ হয় পরে তা সম্পূর্ণরূপে ও যথাযথ সুচিকিৎসা না করনোর ফলে জ্বর এবং গলা ব্যথা হতে পারে। এর ২ থেকে ৩ সপ্তাহ পরে শরীরের বড় গিড়াগুলো একটির পর একটি আক্রান্ত হতে পারে ফলে গিড়াগুলো ফুলে যায়, তীব্র ব্যথা হয় এবং চলা ফেরায় অসুবিধা হয়। স্ট্রেপটোকক্কাসে জীবাণুটির আক্রমণ অধিকাংশ দরিদ্র জনগণের মধ্যে বেশি হয় যারা ঘনবসতিপূর্ণ স্যাঁতসেঁতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বাস করে এবং নিজেদের ব্যক্তিগত জীবনে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে পারে না। এটি বাংলাদেশের অন্যতম একটি জনস্বাস্থ্য সমস্যা।

বাতজ্বরের লক্ষণ

বাতজ্বর শরীরের বড় অস্থিসন্ধি, হৃৎপি-, চামড়ার নিচে এবং ¯œায়ুকে আক্রান্ত করে। এর মুখ্য লক্ষণগুলো হলোÑ

* গিড়ায় বা অস্থিসন্ধির প্রদাহজনিত ব্যথা এবং এক গিড়া থেকে অন্য গিড়ায় সংক্রমিত হয়, ফলে গিড়াগুলো ফুলে যায়, তীব্র জ্বর হয় এবং প্রচ- ব্যথার জন্য চলাফেরা করতে অসুবিধা হয়।

* হৃৎপি- বা হার্টের প্রদাহের ফলে বুক ধড়ফড় করতে পারে, বুকে ব্যথা ও শ্বাসকষ্ট হতে পারে, সামান্য কাজেই হাঁপিয়ে উঠতে পারে। কখনও কখনও হার্টফেল করে পা ফুলে যেতে পারে এবং শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

* অল্প বয়সে রোগটি হয় তাই শরীরের স্বাভাবিক বৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হয়।

* চামড়ার নিচে প্রদাহের ফলে লালচে দাগ বা ত্বকে ছোট ছোট এক ধরনের গোট দেখা দিতে পারে।

* ¯œায়ুপেশীর জটিলতা বা ¯œায়ুর নির্দিষ্ট স্থানে প্রদাহের ফলে মনের অগোচরে নাচের মতো করে হাত ও পা এর অনিয়ন্ত্রিত নড়াচড়া হতে পারে।

বাতজ্বরের প্রতিকার

বাতজ্বর হৃদরোগের অন্যতম একটি প্রধান কারণ। বাতজ্বরের প্রতিকারের জন্য স্ট্রেপটোকক্কাস নামক জীবাণুর আক্রমণ যাতে না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে তাই-

* শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য সাধ্যমতো সুষম খাবার বাচ্চাদের খাওয়াতে হবে, ভাত-রুটির সঙ্গে মাছ, মাংস, সবজি, ফল পরিমাণমতো খাওয়ানোর চেষ্টা করতে হবে।

* বাচ্চাদের যতদূর সম্ভব পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রেখে স্বাস্থ্য সচেতন করে তুলতে হবে।

* ঘন বসতিপূর্ণ স্যাঁতসেঁতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বাস না করার সাধ্যমত চেষ্টা করতে হবে।

* সবসময় নিরাপদ পানি ব্যবহার করতে হবে। এ জন্য টিউবওয়েলের পানি অথবা পরিমিত পানি কমপক্ষে ২০ মিনিট ফুটিয়ে কিংবা পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট ব্যবহার করে প্রয়োজনে ফিল্টারের দ্বারা পানি বিশুদ্ধ করে ব্যবহার করতে পারি।

* প্রতিবার খাবার গ্রহণের আগে বিশুদ্ধ পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নিতে হবে। স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নভাবে খাবার তৈরি করে পরিবেশন করতে হবে এবং খেতে হবে।

* মলমূত্র ত্যাগ করার জন্য নিরাপদ স্যানিটারি ল্যাট্রিন ব্যবহার করতে হবে এবং মলমূত্র ত্যাগ করার পর সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিতে হবে।

* ময়লা-আবর্জনা নিরাপদ এবং নির্দিষ্ট স্থানে ফেলতে হবে।

* জ্বর এবং গলা ব্যথা হলে যথাশীঘ্র সম্ভব অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা নিতে হবে।

বাতজ্বরের কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার

ডাঃ অমর বিশ্বাস

সহযোগী অধ্যাপক

রেসপিরেটরি মেডিসিন

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

নির্বাচিত সংবাদ