১২ ডিসেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অব্যাহত আয় বৈষম্য ॥ সঙ্কটে ভবিষ্যত বিশ্ব

  • মিলু শামস

সামাজিক সাম্যের যে সমীকরণ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল আঠারো শ’ চৌষট্টি সালে ‘প্রথম আন্তর্জাতিক’-এ অথবা তারও আগে আঠারো শ’ আটচল্লিশে রচিত বৈষম্যহীনতার দলিলে যে বিষয়ের মীমাংসা হয়েছে তাই নতুন করে বার বার ‘রিসার্চ’-এর বিষয়বস্তু হয়ে উঠে আসছে এই বাজারি সমাজ ব্যবস্থায়। প্রচণ্ড গতিতে ছুটতে গিয়ে যা প্রায়ই আটকে যাচ্ছে আর দুরগত স্বপ্নের মতো ঝলসে উঠছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিকের স্মৃতি। সবই আপাত ব্যর্থ বা পরাজিত। তবু বর্তমান পৃথিবীর অর্থনীতি যেভাবে পথ হাঁটছে তাতে মনে হয় সমাধান খুঁজতে হবে ওখান থেকেই। ওর ত্রুটি-বিচ্যুতি, দুর্বলতাগুলো সারিয়ে যুগ ও দেশোপযোগী করে প্রতিষ্ঠা করতে পারাই সম্ভবত প্রাথমিক সমাধান। দ্য ইকোনমিস্ট ও ফ্রন্টলাইনে সম্প্রতি প্রকাশিত তথ্য পুঁজিবাদী পৃথিবীর আয়-ব্যয়ের পাহাড় সমান বৈষম্যের। যে খতিয়ান তুলে ধরেছে তাতে এমন মনে হওয়া বোধহয় অসঙ্গত নয়। অন্তত এ সিদ্ধান্তে আসা যায় যে, যেভাবে চলছে এভাবে খুব বেশি পথ আর পাড়ি দেয়া সম্ভব হবে না, পরিবর্তন আসতেই হবে।

ইকোনমিস্ট তুলে ধরেছে গোটা পৃথিবীর চিত্র। তবে তথ্য নতুন নয়, পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী দশ শতাংশ মানুষের হাতে চলে যাচ্ছে পৃথিবীর মোট আয়ের বিয়াল্লিশ শতাংশ। আর বিশ্ব জনগোষ্ঠীর দরিদ্রতম দশ শতাংশের আয় শতকরা একভাগ। বৈষম্যের এ ব্যবধান ক্রমশ বাড়ছে। আমেরিকায় সবচেয়ে ধনী এক শতাংশের হাতে রয়েছে মোট জাতীয় আয়ের শতকরা বিশ ভাগ। গত শতকের আশির দশকে যা ছিল দশ ভাগ। আর আয়-বন্টনের তালিকায় শীর্ষ দশমিক শূন্য এক ভাগ আমেরিকানের মোট জাতীয় আয়ের হার গত তিরিশ বছরে চারগুণ বেড়েছে। এর অর্থ হলো তিরিশ বছর আগে যা ছিল জাতীয় আয়ের শতকরা এক ভাগের কিছু উপরে এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে শতকরা পাঁচ ভাগে। এরা হচ্ছে আমেরিকার প্রায় ষোলো হাজার পরিবার, যাদের গড় আয় দু’কোটি চল্লিশ লাখ ডলার। আয়-বন্টনের এই চরম অসাম্য বা অসঙ্গতি শুধু আমেরিকায় নয় ব্রিটেন, কানাডা, ভারত, চীন, সুইডেনসহ বহু দেশেই রয়েছে। এসব দেশেও এক শতাংশের হাতে চলে যাওয়া জাতীয় আয়ের ভাগ ক্রমশ বাড়ছে। অতিরিক্ত ধনীর সংখ্যা সারা পৃথিবীতেই বেড়েছে। বিশ্বে বিলিয়নিয়রদের সম্মিলিত সম্পদ সাড়ে চার ট্রিলিয়ন ডলার। ইকোনমিস্টের প্রতিবেদনই বলছে আইএমএফের এক গবেষণায় দেখা গেছে, আয়-বৈষম্য প্রবৃদ্ধির গতি মন্থর করে, আর্থিক সঙ্কট ডেকে আনে এবং চাহিদা কমায়। আরেক রিপোর্টে এডিবি বলছে, গত বিশ বছরে এশিয়ার উদীয়মান দেশে সম্পদের অপেক্ষাকৃত বেশি সুষম বণ্টন হলে প্রবৃদ্ধি আরও দ্রুত বাড়ত এবং এ অঞ্চলের আরও চব্বিশ কোটি মানুষ চরম দারিদ্র্য থেকে বেরিয়ে আসতে পারত। এসব সমীক্ষা বা গবেষণা নিয়ে অনেকের দ্বিমত থাকতে পারে। কিন্তু আয়- বৈষম্য যে আগামী দিনগুলোতে অনেক বড় সমস্যা হয়ে দেখা দেবে, এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা প্রায় সবাই একমত এবং প্রায়ই এ নিয়ে মত প্রকাশ করেন। বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের এক সমীক্ষা আয়-বৈষম্যকে আগামী দশকের সবচেয়ে বড় সমস্যা বলে উল্লেখ করেছে। ক্রমশ বেড়ে চলা বৈষম্য ও এর ভবিষ্যত গতিমুখ খুবই বিপজ্জনক। ইকোনমিস্টের মন্তব্য অসাম্য সমাজে বড় ধরনের বিরূপ পরিণতি ডেকে আনে। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর বিপ্লব ও সমাজতন্ত্র নতুন করে আলোচনায় এসেছে। অন্তর্গত অনেক বিষয় নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ হচ্ছে। যে পদ্ধতিতে রাশিয়ায় সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল আজকের দিনে তা হয়ত অচল। একদিকে পুঁজিবাদ নিজেরই বৃত্তে আটকাচ্ছে, অন্যদিকে সোভিয়েত সমাজতন্ত্র মুখ থুবড়ে পড়েছে। মানব সমাজের ভবিষ্যত পথপরিক্রমা তা হলে কোনদিকে? মানবিক সমাজতন্ত্রী হিসেবে পরিচিত এরিক ফ্রম বলছেন, ‘অনুন্নত দেশগুলোর রাজনৈতিক বিকাশ আগামী শতবর্ষের চরিত্র নির্ধারণ করবে। তাদের সামনে বিকল্প পুঁজিবাদ বা সমাজতন্ত্র নয় বরং সর্বাত্মবাদী সমাজতন্ত্র অথবা মার্কসীয় মানবিক সমাজতন্ত্র। সাবেক উপনিবেশ জাতিগুলোর এই বিকাশের নেতৃত্বকে পশ্চিমের অনেক কিছু দেয়ার আছে। আর তা শুধু পুঁজি ও টেকনিক্যাল পরামর্শ নয়, পশ্চিম মানবিক ঐতিহ্য সম্ভাবনা বিকাশে শুধু বাইরের জিনিস হতে নয় কোন কিছু করতে স্বাধীন হওয়ার মানবমুক্তির পশ্চিমা ঐতিহ্য, মানব মর্যাদা ও ভ্রাতৃত্বের ঐতিহ্যও সেই সহায়তার অংশ। সমাজতন্ত্রকে কলকব্জা জোড়া লাগানো সুইচ টেপা যন্ত্রের মতো দেখার মাঝে বিপদ আছে। সমাজতন্ত্রকে যদি ‘ইতিহাসের পরিকল্পনা’র অনিবার্য ফল হিসেবে দেখা হয়, তাহলে তার সঙ্গে নিয়তিবাদের কোন তফাত থাকে না। আবার নির্ধারিত সঠিক পার্টি লাইন হলেই চলমান সমাজের মাঝে সঠিক কাজ বের হয়ে আসবে, এ কথাও সেই নিয়তিবাদের ফল। মার্কস নিজেই তাঁর ভাবনার মাঝে প্রতিনিয়ত ঘটমান নতুন বাস্তবতার জন্য জায়গা রেখেছেন। ফলে তিনি এমন কোন তত্ত্ব দিতে চাননি, যেখানে সংখ্যা বসিয়ে বোতাম চাপলেই ক্যালকুলেটরের মতো সমাধান বেরিয়ে আসবে।’ কাজেই পৃথিবীজোড়া এই আয়-বৈষম্য সমাজে যে সঙ্কট ঘনীভূত করছে তার বহির্প্রকাশ বা রূপান্তর বাস্তব পরিস্থিতির ভিত্তিতেই হবে। তবে বিকাশের এই স্তরে এসে সমাজ যেন ক্রমশ জটিল হয়ে উঠেছে। শ্রমিকশ্রেণীর চারিত্র- বৈশিষ্ট্যও আগের মতো থাকছে না। মজুরি বৈষম্য বাড়ছে, বাজার বিস্তৃতির সঙ্গে সঙ্গে প্রযুক্তিতেও বিপ্লব এসেছে। তথ্য-প্রযুক্তি অনেক কিছু বদলে দিয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ধনী দেশগুলোতে মজুরি বৈষম্যের অন্যতম কারণ দক্ষতাভিত্তিক প্রযুক্তিগত পরিবর্তন। প্রযুক্তি ও বিশ্বায়ন পরস্পর পরিপূরক হয়ে এগুনোর ফলে গত এক দশকে বিশ্ব পরিস্থিতি বেশ টালমাটাল হয়ে আছে। কোন পথই যেন ঠিক পরিষ্কার চোখে পড়ছে না। সম্পদের পাহাড় যাদের হাতের মুঠোয় রাজনৈতিক ক্ষমতা এবং রাষ্ট্রও তাদের নিয়ন্ত্রণে। রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণ যখন সামন্ত প্রভুদের হাতে ছিল তখন আইন-কানুন, রীতি, শিক্ষা, সংস্কৃৃতি সামন্ত সমাজের উপযোগী হয়েই বিকশিত হয়েছে এবং তা সামন্ত প্রথাকে সমর্থন করেছে ও তা টিকিয়ে রাখতে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছে। সময়ে সামন্ত ব্যবস্থাকে হার মানিয়ে বুর্জোয়া ব্যবস্থা রাষ্ট্রের দখল নিয়েছে। এরপর বিশ্বের বড় দুটো ভূখ-ে সমাজতন্ত্র এসেছে। শ্রমিক শ্রেণীর একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যে দেশে সে দেশে তার পতনও হয়েছে। ‘শ্রমিক শ্রেণীর একনায়কতন্ত্র’ও আজকের বাস্তবতায় প্রশ্নহীন নয়। চীনের সমাজতন্ত্র সময়ের সঙ্গে খাপ খাইয়ে প্রয়োজনীয় সংশোধন এনে বিরোধী শিবিরের সঙ্গে বলা যায় দুর্দান্ত প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু নব্বই দশকের পর থেকে বিশ্ব অর্থনীতিতে যে ঝড়ের তা-ব লেগেছে সেখানে নিজের মতাদর্শের সপক্ষে চীনও খুব কম ভূমিকা রাখতে পেরেছে।

সমাজ গতিশীল, তাই বিভিন্ন যুগে ভিন্ন ভিন্ন বাস্তবতায় তা নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট হয়েছে। এখন যে সময় যাচ্ছে এরও বিজ্ঞানভিত্তিক পরিণতি নিশ্চয়ই আছে। হয়ত তাও ভেঙ্গে যেতে পারে। অথবা স্থায়ী হতে পারে কয়েক শতাব্দী। আগে থেকে নিশ্চিত করে কিছুই বলা যায় না।

বিজ্ঞানভিত্তিক পরিবর্তনের চেষ্টা ও তার বাস্তবভিত্তিক ভেঙ্গে গেলেও এর তাত্ত্বিক বা দার্শনিক বিশ্লেষণ কিন্তু হারিয়ে যায়নি। তবে পরিবর্তন আসতে হবে গোটা পৃথিবীতে। এখন যেমন বাজারের স্রোতে ভাসছে, পরিবর্তিত পৃথিবীকেও এ রকম এক একক পদ্ধতির আওতায় আসতে হবে। তা হলেই হয়ত পরিবর্তন সুসম্পন্ন হতে পারবে। সমাজে অন্যায়, অসাম্য যত বাড়বে পরিবর্তনের সম্ভাবনাও তত বেশি ইতিবাচক হবে। বৈষম্যের বিশাল গহ্বরে দাঁড়িয়ে এই প্রতীক্ষাই আমাদের আগামী দিনগুলোকে অর্থময় করে তুলবে।