১৪ ডিসেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গণবিরোধী পরিবহন ধর্মঘট শক্তহাতে প্রতিহত করুন : জাতীয় কমিটি

 গণবিরোধী পরিবহন ধর্মঘট শক্তহাতে প্রতিহত করুন : জাতীয় কমিটি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সরকারের সঙ্গে বৈঠকে পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়ার পরও শ্রমিকদের স্বেচ্ছায় কর্মবিরতির নামে সড়কে নৈরাজ্য ও সাধারণ জনগণের দুর্ভোগে ফেলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটি।

একইসঙ্গে সড়ক পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের অযৌক্তিক দাবির কাছে নতি স্বীকার না করে গণবিরোধী এই ধর্মঘট শক্তহাতে প্রতিহত করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বেসরকারি সংগঠনটি।

বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে জাতীয় কমিটির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ শহীদ মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে বলেন, বুধবার রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের বৈঠকে উভয়পক্ষ থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা আসে। অথচ খুলনা, সাতক্ষীরা, কুষ্টিয়া, টাঙ্গাইল ও বগুড়াসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বৃহস্পতিবারও ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে।

এর ফলে একদিকে সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন, অন্যদিকে পণ্য পরিবহন বন্ধ থাকায় ঢাকাসহ বড় শহরগুলো মাছ ও শাকসব্জিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের সংকট সৃষ্টি এবং মূল্য বেড়ে যাচ্ছে।

১৪ মাস আগে জাতীয় সংসদে পাস হওয়া নতুন সড়ক আইন নিয়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের এমন আচরণের কঠোর সমালোচনা করে বিবৃতিতে বলা হয়, সরকারের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সাধারণ জনগণকে জিম্মি করে অন্যায্য দাবি আদায় মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়।

জাতীয় কমিটির নেতারা এ ধরনের গণবিরোধী তৎপরতা থেকে পিছিয়ে আসার জন্য পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান। একইসঙ্গে সড়কে নৈরাজ্য বন্ধ ও জনদুর্ভোগ লাঘবে কঠোর অবস্থান নেয়ার জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানান তাঁরা।

সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাসসহ গণপরিবহন খাতে বিশৃঙ্খলা ও নৈরাজ্য ঠেকাতে বিভিন্ন মহলের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের সেপ্টেম্বরে জাতীয় সংসদে নতুন আইন তথা ‘সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮’ পাস হয়। গত ১ নবেম্বর থেকে আইনটি বাস্তবায়নের ঘোষণা দিয়ে এর ১৫ দিন আগে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার।

এরপর নতুন আইন সম্পর্কে সকল মহলের সচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্রথম দফায় এক সপ্তাহ ও পরে আরো কিছুদিন সময় দিয়ে ১৮ নবেম্বর থেকে আইনটি কার্যকর করা হয়। আর ওইদিন থেকেই দেশের বিভিন্ন স্থানে শুরু হয় অঘোষিত সড়ক পরিবহন ধর্মঘট; যা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক ও প্রচলিত শ্রম আইন পরিপন্থী।