০৮ ডিসেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রত্যাশার চাপ অনুভব করছি ॥ বাশার

প্রত্যাশার চাপ অনুভব করছি ॥ বাশার

রুমেল খান, কাঠমান্ডু, নেপাল থেকে ॥ ‘২০১০ সালে যখন এসএ গেমসে ক্রিকেট অন্তর্ভুক্ত হয়, তার কয়েক বছর আগেই আমি অবসর নিয়েছিলাম। ২০১০ সালে এসএ গেমসে বাংলাদেশ যখন ক্রিকেটে স্বর্ণপদক জেতে, তখন আমি বিসিবির সঙ্গে যুক্ত ছিলাম না। তাই ক্রিকেট দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকতে না পারার আক্ষেপ ছিলই। তবে এবার সেই আক্ষেপ দূর হয়েছে। বিসিবির নির্বাচক তো আছিই, সেই সঙ্গে এবারের এসএ গেমসে আমাকে নেপালে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সঙ্গে ম্যানেজার হিসেবে পাঠানো হয়েছে। এই নতুন ভূমিকায় আমি দারুণ রোমাঞ্চিত। আশা করি আমরা নয় বছর আগের সাফল্যের পুনরাবৃত্তি করতে পারবো।’ কথাগুলো হাবিবুল বাশার সুমনের। একসময়ের ডাকসাইটে, তারকা ব্যাটসম্যান। ক্রিকেটের হিসেবে অনেক দেশে ঘুরেছেন। কিন্তু ক্রিকেট ম্যানেজার হিসেবে বিদেশ ঘুরছেন, তাও আবার এসএ গেমসের মতো দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় ক্রীড়া আসরে; এ নিয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত তিনি। এ প্রসঙ্গে তার ভাষ্য, ‘আমার অনেকদিনের স্বপ্ন ছিল কোন গেমসে যাব, ঘুরবো, দেখবো, এবার সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। রবিবার দশরথের রঙ্গশালায় যখন মার্চপাস্টে পুরো বাংলাদেশ দলের সঙ্গে হাঁটছিলাম, তখন যে অদ্ভুত আবেগ কাজ করছিল মনে, তা বলে বোঝাতে পারবো না।’

এসএ গেমসে স্বর্ণজয়ের অভিলাষ থাকলেও একটা বিষয় নিয়ে কিঞ্চিৎ চিন্তিত ‘মিস্টার ফিফটি’ খ্যাত বাশার, ‘রাতে এখানে অনেক ঠান্ডা। তবে দিনের বেলায় মনে হয় না খেলার সময় কোন সমস্যা হবে। ঠাণ্ডা কিংবা উচ্চতা নিয়ে নয়, আমাদের বড় দুশ্চিন্তা উইকেট নিয়ে। এরকম আবহাওয়ায় আমরা অনেক খেলেছি। আসলে উইকেটটা কেমন হয়, এটা নিয়েই ভাবনা। যেহেতু এটা টি২০ খেলা, আর টানা কয়েকটি ম্যাচ খেলতে হবে। ভাল উইকেট পাব কি না, সেটা নিয়েই একটু চিন্তিত আমরা। যখন উইকেট ভাল থাকে না তখন বড়-ছোট দলের মধ্যে পার্থ্যকটা কমে যায়। উইকেট ছাড়া আর কোন চিন্তা নেই আমাদের।’

রবিবার দুপুরে কাঠমান্ডু পৌঁছানোর পর বিশ্রামে ছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। হোটেলে জিম এবং সুইমিং করেছিলেন সৌম্য-নাজমুলরা। সোমবার ত্রিভূবন ইউনিভার্সিটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট গ্রাউন্ডে প্রথম অনুশীলন করে ক্রিকেটাররা। মঙ্গলবার মালদ্বীপের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ।

মালদ্বীপের বিপক্ষে ম্যাচের পর একদিন বিরতি। এরপর টানা তিনদিন-ভুটান, নেপাল এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ। টানা ম্যাচ খেললে ক্রিকেটারদের ইনজুরিতে পড়ার শংকাও আছে। তবে এ নিয়ে কোন অভিযোগ করছেন না বাশার, ‘গেমসে অংশগ্রহণ করেই আমরা সবাই রোমাঞ্চিত।’

এবারের আসরে ভারত-পাকিস্তান নেই। ফলে সাফল্য অক্ষুণ্ন রাখাটা লাল-সবুজ বাহিনীর জন্য বেশ সহজই বলে মনে করছেন অনেকে।তবে এতে ভিন্নমত পোষণ করেন সুমন, ‘ভারত-পাকিস্তান নেই বলে যে স্বর্ণ জেতা সহজ, তা ঠিক নয়। আসলে ক্রিকেটে সহজ বলতে কিছু নেই। শ্রীলঙ্কা ভাল দল নিয়ে আসছে। নেপালে তাদের ঘরের মাঠে খেলবে। কাজেই আমরা কাউকে সহজভাবে নিচ্ছি না। এটা ঠিক ভারত-পাকিস্তান থাকলে খেলাটা আরও আকর্ষনীয় হতো। যখণ এস এ গেমসে নিশ্চিত হয়েছে যে বাংলাদেশ দল যাবে, তখন থেকেই একটাই চিন্তা কাজ করেছিল যে কে খেলবে বা না খেলবে তা নয়। আমরা সোনা জিততে চাই।’

উইকেট নিয়ে অন্ধকারে থাকলেও এসএ গেমস ক্রিকেটে স্পিনাররাই পার্থক্য গড়ে দিতে পারেন বলে মনে করেন বাশার, ‘আমরা এখনো উইকেটটা দেখি না। তবে যখণ প্রতিদিন একই উইকেটে খেলা হয়, তখন এটা স্পিনারদের জন্য সহায়তা হয়। বল উইকেটে স্লো হয়, টার্ন করে। আমার মনে হয় স্পিনাররা সুবিধা পাবে।’ এটা মাথায় রেখেই তিন স্পিনারকে নিয়ে নেপালে এসেছে বাংলাদেশ। আমরা মেহেদীকে নিয়ে এসেছি। সে ইমার্জিং কাপে ভাল বল করেছে। ইনজুরির কারণে অপ্রত্যাশিতভাবে বিপ্লব আসতে পারেনি, তার জায়গায় নিয়েছি মিনহাজুল আবেদিন আফ্রিদিকে। লেগ স্পিনার তানভীর আছে। এই তিনজনের প্রতিই আমার আস্থা আছে’।

* আজ মহিলা টি২০ ক্রিকেটে বাংলাদেশ মুখোমুখি শ্রীলঙ্কার ॥ এসএ গেমসে এবারই প্রথম মহিলা ক্রিকেট অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এতে আছে বাংলাদেশও। আজ মঙ্গলবার পোখরা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় সকাল সোয়া ১১টায় নিজেদের প্রথম ম্যাচে খেলতে নামবে বাংলাদেশের মেয়েরা। তাদের প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা। খেলা হবে রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতিতে। অপর দুই দল হলো : নেপাল, মালদ্বীপ।

বাংলাদেশ দল ॥ সালমা খাতুন (অধিনায়ক), নিগার সুলতানা জ্যোতি, জাহানারা আলম, আয়েশা রহমান শুকতারা, ফারজানা হক পিঙ্কি, মুর্শিদা খাতুন, সানজিদা ইসলাম, শবনম মোস্তারি, ফাহিমা খাতুন, শামীমা সুলতানা, নাহিদা আক্তার, খাদিজাতুল কুবরা, রিতু মনি, পুজা চক্রবর্তী, রাবেয়া।