২৪ জানুয়ারী ২০২০  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অভিনেত্রী কাজী নওশাবার বিরুদ্ধে বিলুপ্ত ৫৭ ধারায় মামলা আপীলে স্থগিত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদের বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের বিলুপ্ত ৫৭ ধারায় মামলার কার্যক্রম স্থগিত রেখেছে আপীল বিভাগ। ফেসবুকসহ সব ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে অভিনেত্রী মিথিলা ও পরিচালক ইফতেখার আহমেদ ফাহমির ‘অন্তরঙ্গ’সহ ব্যক্তিগত ছবি দ্রুত সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। একই সঙ্গে সিদ্ধেশ্বরী থেকে উদ্ধার স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির ছাত্রী রুম্পার ব্যক্তিগত ছবিও অনলাইন থেকে সরাতে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। এদিকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় দুই সন্তানের জননী গৃহবধূর চুলকাটার ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রশিদের বিরুদ্ধে কী এ্যাকশন নেয়া হয়েছে তা জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট। রবিবার আপীল বিভাগ ও হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চ এসব আদেশ দেয়।

অন্যদিকে ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এ্যান্ড মিডওয়াইফারি কোর্সে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করা হয়েছে। সময়সূচী অনুযায়ী নির্ধারিত তারিখে ভর্তি পরীক্ষা বাতিল বিজ্ঞপ্তিতে যেসব শর্ত রয়েছে তার মধ্যে চারটি শর্ত বাতিল চাওয়া হয়েছে রিটে। বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার জামিনের শুনানিতে আপীল বিভাগে হট্টগোলকারী আইনজীবীদের বিরুদ্ধে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবস্থা নিতে আইনী নোটিস পাঠানো হয়েছে।

ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদের বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের বিলুপ্ত ৫৭ ধারায় মামলার কার্যক্রম স্থগিত রেখেছে আপীল বিভাগ। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের আপীল বেঞ্চ কোন আদেশ দেয়নি। এর ফলে হাইকোর্ট বিভাগের স্থগিতাদেশ বহাল থাকছে বলে জানিয়েছেন নওশাবার আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। তিনি বলেন, হাইকোর্ট বিভাগ রুল জারির পাশাপাশি মামলার কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেছিল। এই আদেশ স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করেছিল। আপীল বিভাগ সে আবেদনে সাড়া দেয়নি, নো অর্ডার দিয়েছে। তার মানে, মামলার কার্যক্রম স্থগিত এবং হাইকোর্ট বিভাগের আদেশ বহাল থাকছে। তথ্যপ্রযুক্তি আইনে ’১৮ সালের ৫ আগস্ট নওশাবার বিরুদ্ধে মামলা হয়। ওই বছরের ৮ অক্টোবর তথ্যপ্রযুক্তি আইন বিলুপ্ত করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার্যকর করা হয়। নতুন আইনের ৬১ ধারা মতে, তথ্যপ্রযুক্তি আইনের কোন মামলা বিচারাধীন থাকলে তা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে চলবে। নওশাবার মামলায় অভিযোগপত্র দেয়া হয় গত ৩০ এপ্রিল। আদালত অভিযোগ আমলে নেয় ৩ সেপ্টেম্বর। তাই এ মামলার কার্যক্রম অবৈধ বলে মনে করছেন আসামিপক্ষের আইনজীবী। নওশাবার আবেদন নিয়ে গত ২০ নবেম্বর বিচারপতি রেজাউল হক ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর হাইকোর্ট বেঞ্চ রুল জারি করে। পাশাপাশি মামলার কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে।

মিথিলা-ফাহমির ছবি সরানোর নির্দেশ

ফেসবুকসহ সব ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে অভিনেত্রী মিথিলা ও পরিচালক ইফতেখার আহমেদ ফাহমির ‘অন্তরঙ্গ’সহ ব্যক্তিগত ছবি দ্রুত সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। একই সঙ্গে সিদ্ধেশ্বরী থেকে উদ্ধার স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির ছাত্রী রুম্পার ব্যক্তিগত ছবিও অনলাইন থেকে সরিয়ে ফেলতে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) এই নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলেছেন বিচারপতিরা। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার তাহসিনা তাসনিম মৃদু। এর আগে, গত বৃহস্পতিবার ফেসবুক, ইন্টারনেট ও অনলাইন নিউজ পোর্টাল থেকে অভিনেত্রী মিথিলা ও ফাহমির সব অন্তরঙ্গ ছবি না সরানোর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করা হয়। জনস্বার্থে রিটটি দায়ের করেন ব্যারিস্টার তাহসিনা তাসনিম।

নির্বাচিত সংবাদ