১৮ জানুয়ারী ২০২০  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

৬ মাসে প্রবাসীরা প্রণেদনা পেলেন ১৪২৭ কোটি টাকা

৬ মাসে প্রবাসীরা প্রণেদনা পেলেন ১৪২৭ কোটি টাকা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ব্যাংকিং চ্যানেলে বৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স (প্রবাসীদের আয়) প্রেরণে উৎসাহিত করতে দেশের ইতিহাসে এবারই প্রথম প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। গত ১ জুলাই থেকে ২ শতাংশ হারে অর্থাৎ ১০০ টাকা দেশে পাঠালে ২ টাকা প্রণোদনা পাচ্ছেন প্রবাসীরা। ইতোমধ্যে তফসিলি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে গত ছয় মাসে (১ জুলাই থেকে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত) মোট ১ হাজার ৪২৭ কোটি ৫১ লাখ ১৯ হাজার ৬৪৮ টাকা প্রণোদনা হিসেবে অতিরিক্ত পেয়েছেন প্রবাসীরা। প্রণোদনায় ছাড়কৃত অর্থের মধ্যে অবশিষ্ট রয়েছে মাত্র ১০২ কোটি ৪৮ লাখ ৮০ হাজার ৩৫২ টাকা।

তাই রেমিট্যান্সে প্রণোদনা অব্যাহত রাখতে বরাদ্দকৃত অর্থের তৃতীয় ও চতুর্থ কিস্তির অবশিষ্ট ১ হাজার ৫৩০ কোটি টাকার পুরোটাই একসঙ্গে অর্থবিভাগের কাছে চেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে দুই কিস্তি না দিয়ে আপাতত তৃতীয় কিস্তি অর্থাৎ ৭৬৫ কোটি টাকা ছাড় করতে সম্মতি দিয়েছে অর্থ বিভাগ। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র বলছে, চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেয়ার ঘোষণার পর তা বাস্তবায়ন করছে সরকার। বাজেটে এজন্য ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। এ বরাদ্দ থেকে ইতোমধ্যে দুই কিস্তির অর্থ ছাড় করা হয়েছে। অর্থ বিভাগের সম্মতিক্রমে তৃতীয় কিস্তির অর্থ ছাড় করার বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানায়, বৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স প্রেরণের বিপরীতে প্রণোদনার তৃতীয় ও চতুর্থ কিস্তির অর্থ একত্রে ছাড় করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ে আবেদন পাঠিয়েছে। আবেদনে বলা হয়, বৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স প্রেরণের বিপরীতে প্রণোদনা প্রদানের পরিপ্রেক্ষিতে বরাদ্দকৃত ১ হাজার ৫৩০ কোটি টাকার মধ্যে তফসিলি ব্যাংকগুলো বরাবর গত ১ জুলাই থেকে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট ১ হাজার ৪২৭ কোটি ৫১ লাখ ১৯ হাজার ৬৪৮ টাকা ছাড় করা হয়েছে। যা প্রণোদনা হিসেবে রেমিট্যান্স প্রেরণকারীদের দেয়া হয়েছে। ছাড়কৃত অর্থের মধ্যে অবশিষ্ট রয়েছে মাত্র ১০২ কোটি ৪৮ লাখ ৮০ হাজার ৩৫২ টাকা ।

নির্বাচিত সংবাদ