২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রযোজক আব্বাসের চির বিদায়

প্রযোজক আব্বাসের চির বিদায়

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চলে গেলেন সর্বকালের ব্যবসাসফল বাংলা ছবি ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ ছবির প্রযোজক আব্বাস উল্লাহ শিকদার (ইন্নালিল্লাহি... রাজিউন)। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু জানান, শনিবার বিকেল সাড়ে৫টার দিকে বনানীর চেয়ারম্যান বাড়ির নিজ বাসভবনে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন আব্বাস উল্লাহ। মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল প্রায় ৬৫ বছর। তিনি সিনেমার চাকা সচল রাখতে নিয়মিতভাবেই টাকা লগ্নি করেছেন। নিজে অভিনয়ও করতেন। এই প্রযোজকের বাবা আব্দুল হামিদ ছিলেন বনানী পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান। তার নামেই রাজধানীর বনানীতে চেয়ারম্যান বাড়ির নামকরণ করা হয়েছে। আব্বাস উল্লাহ ছিলেন দেশীয় সিনেমার অন্যতম সফল প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আনন্দমেলা চলচ্চিত্রের একজন কর্ণধার। মতিউর রহমান পানুর সঙ্গে যৌথভাবে এই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করতেন তিনি।

আব্বাস উল্লাহ শিকদারকে চলচ্চিত্র ও নিজের সজ্জন দাবি করে ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ সিনেমার নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, একসন সৎ, উদার মানুষ ছিলেন আব্বাস উল্লাহ ভাই। পয়সাওয়ালা ছিলেন, কিন্তু কোনো অহংকার ছিল না। মানুষকে সম্মান করতেন তিনি। মেধার মূল্যায়ন করতেন তিনি। একজন সুপারস্টারকে যে স্পেসটা দিতেন রাইজিং স্টারকেও সেভাবে সম্মান দিতেন। তাকে দেখেছি বন্ধুর মতো, তাকে পাশে পেয়েছি ভাইয়ের মতো। তার মৃত্যুর খবর পেয়ে আমি খুবই মর্মাহত হয়েছি। তিনি ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ নির্মাণ করে ইতিহাস করেছেন।

বনানীর চেয়ারম্যান বাড়ির জামে মসজিদে রবিবার বাদ যোহর জানাযার পর তাকে বনানীর পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। উল্লেখ্য, আনন্দমেলা চলচ্চিত্রের ব্যানারে ‘বেদের মেয়ে জোসনা’, ‘পাগল মন’, ‘মনের মাঝে তুমি’, ‘মোল্লা বাড়ির বউ’, ‘জ্বী হুজুর’সহ অনেক দর্শকপ্রিয় ও ব্যবসাসফল বাংলা সিনেমা নির্মিত হয়েছে। ব্যক্তিগতভাবে প্রযোজনার পাশাপাশি অসংখ্য চলচ্চিত্রে অভিনয়ও করেছেন আব্বাস উল্লাহ। বছর দুই ধরে তিনি শারীরিকভাবে বেশ অসুস্থ ছিলেন।