২০ ফেব্রুয়ারী ২০২০  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিমানের প্রেমে পড়েছেন জার্মান নারী!

বিমানের প্রেমে পড়েছেন জার্মান নারী!

অনলাইন ডেস্ক ॥ মার্কিন কবি এমিলি ডিকিনসন একটি কথা বলেছিলেন। যার মমার্থ অনেকটা এরুপ-মন থেকে কোনো ব্যক্তি বা কোনো বস্তুর প্রেমে পড়ে গেলে তা থেকে বেরিয়ে আসা যায় না। ঠিক যেমনটি ঘটেছে জার্মান নারী মাইকেল কবকের ক্ষেত্রে। ৩০ বছর বয়সী এই নারী কোনো পুরুষের নয়, বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এর প্রেমে পড়েছেন। শুধু তাই নয়, দীর্ঘ ৬ বছর ধরে ডেটিং করছেন এই জড়বস্তুর সঙ্গে। ঘোষণা দিয়েছেন, আগামী মার্চে বিয়ে করছেন তারা।

৪০ টন ওজনের এই জাম্বো জেটের সঙ্গে কবকের প্রথম দেখা হয় ২০১৪ সালে বার্লিন টেগেল এয়ারপোর্টে। তখনই বিশালাকৃতির এই অত্যাধুনিক বিমানের প্রেমে পড়ে যান তিনি।

জার্মান এই নারীর বিমানপ্রীতির ঘটনা এ কান থেকে ও কানে যেতে সময় লাগেনি। বিমানের প্রতি একটা আগ্রহ দেখে বিমানকে স্পর্শ করার সুযোগ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। গত তিনি বিমানের পাখায় ওঠার সুযোগ পান এবং তাতে ভালোবাসার চিহ্ন এঁকে দেন। ঘোষণা দিয়েছেন, আগামী মার্চে নেদারল্যান্ডসে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হবেন তারা।

২০১৩ সালের নভেম্বরে প্রথম বিমানে আরোহন করেন এই জার্মান নারী। এরপর থেকেই মূলত বিমানের প্রতি ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ ঘটতে থাকে। সেই সময়টার কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘বিমানে থাকার মুহূর্তটা ছিল আমার জীবনের সেরা সময়। আমরা যখন একসঙ্গে ছিলাম তখন অনেক মজা করেছি, একে অপরকে চুম্বন করেছি এবং আমি তার শরীরে হাত বুলিয়ে দিয়েছে।’

কবকে ভালোবেসে বিমানবয়ফ্রেন্ডের নাম দিয়েছেন ‘স্ক্যাটজ’, যার অর্থ প্রিয়তম। কবকের দাবি, তারা ছয় বছর ধরে ডেটিং করছেন এবং তাদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক রয়েছে। তবে বোয়িংয়ের সঙ্গে সরাসরি সাক্ষাতের সুযোগ পেয়েছেন মাত্র দুইবার। তার ইচ্ছা, সুযোগ পেলে সারাদিন কাটাবেন বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে।

ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড দ্য সানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এর সঙ্গ সবসময় না পেলেও নিজের বেডরুমে বোয়িংয়ের একটি মডেল রেখে দিয়েছেন কবকে। যান্ত্রিক এই প্রেমিককে জড়িয়ে ধরেই রাত পার করেন তিনি।

মার্চে বিয়ের ঘোষণা দিয়ে নিজের পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন পেশায় বিক্রয়কর্মী এই নারী। বিশেষ ওই দিনে কোনো সাদা রঙের পোশাক পরতে চান না তিনি। তিনি বলেছেন, ‘তার বিশেষ দিনের পোশাক হবে স্মার্ট ধরনের। সেটা হলো কালো রঙের ট্রাউজার ও ব্লেজার।’

আমি চাই কেউ আমাদের বিয়ে দিয়ে দিক আর বলুক, ‘তুমি কি তোমার ৭৩৭-৮০০ কে বিয়ে করত চাও?’উত্তরে আমি বলব, ‘অবশ্যই’। আমি তাকে ভালোবাসার চিহ্ন এঁকে দেব এবং সারাজীবন অমর থাকব।

বলা হচ্ছে, বোয়িংয়ের প্রতি জার্মান এই নারীর প্রবল আকর্ষণ কোনো স্বাভাবিক ঘটনা নয়। আবার এমন ঘটনা যে আগে ঘটেনি, তা-ও কিন্তু নয়। বিশেষ বস্তর প্রতি এমন টানকে বিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় অবজেক্টোফোবিয়া। কেউ এই রোগে ভুগলে তার বিশেষ বস্তুর প্রতি অপরিসীম টান তৈরি হয়।

তবে বোয়িংয়ের প্রতি এ টানকে ব্যতিক্রম বলতে রাজি নন কবকে। তার মতে, তাদের সম্পর্ক সম্পূর্ণ স্বাভাবিক। তিনি বলেন, ‘আমরা এক সঙ্গেই (বোয়িংয়ের মডেল) সন্ধ্যায় সময় কাটাই। যখন রাতে বিছানায় যাই তখন আমরা এক অপরকে জড়িয়ে ধরি এবং ঘুমিয়ে পড়ি।’ তার মতে, ভালোবাসার কোনো সীমা নেই।

সূত্র : দ্য সান, ডেইলি মিরর, আরটি নিউজ