২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দুই শতাংশ পুন:তফসিল সুবিধায় অসন্তুস্ট এবি ব্যাংক এমডি

দুই শতাংশ পুন:তফসিল সুবিধায় অসন্তুস্ট এবি ব্যাংক এমডি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়ে ১০ বছর মেয়াদি পুন:তফসিল ব্যবস্থায় সন্তুষ্ট নন এবি ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তারিক আফজাল। যদি অন্য কোনো কঠোর ব্যবস্থা টাকা আদায় করা যায় তাহলে দশ বছর অপেক্ষা করার কোন প্রয়োজন নেই বলে মনে করেন তিনি। দেশের অর্থনীতি শক্ত ভিতের উপর দাঁড়িয়ে আছে উল্লেখ করে এ সময় তিনি বলেন, গত ২ বছর ধরে ব্যাংক খাতের ঋণ খেলাপি নিয়ে সমালোচনা চলছে। কিছু জায়গায় অনিয়ম, দুর্নীতির অভিয়োগ রয়েছে। ব্যাংকের সদিচ্ছা থাকলে কোনো গ্রাহক টাকা নিয়ে পালাতে পারবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

গ্রাহকের জীবনযাত্রায় নতুন মাত্রা যোগ করতে ‘এবি হাইট’ নামে নতুন সেবা নিয়ে এসেছে এবি ব্যাংক। বুধবার রাজধানীর ঢাকা ক্লাবে ‘এবি হাইটের’ উন্মোচন করে ব্যাংকটি। এ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তারিক আফজাল। এ সময় রিটেইল ব্যাংকিং বিভাগের প্রধান ও ডিএমডি আবদুর রহমান, অন্যান্য ডিএমডি, ব্যাংকের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ এবং বিভিন্ন প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে ব্যাংকের নতুন এ সেবার বিস্তারিত তুলে ধরেন ডিএমডি আবদুর রহমান।

নতুন পণ্যের উদ্বোধন শেষে তারিক আফজাল বলেন, বর্তমানে আমাদের ব্যাংকের অবস্থা আগের তুলনায় অনেক ভালো। যারা খেলাপি হয়ে পড়েছে কিন্তু ইচ্ছাকৃতভাবেই টাকা ফেরত দিচ্ছে না তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। যেসব খেলাপির বয়স বেশি সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। পর্যায়ক্রমে সবার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যেই বাছাইকৃত খেলাপিদের বিরুদ্ধে মামলা শুধু করেছি এবং ফলাফলও পাচ্ছি। এ প্রক্রিয়া ভবিষ্যতেও চলতে থাকবে বলে জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে এবি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ও এমডি তারিক আফজাল বলেন, ২০১৮ সালে এবি ব্যাংকের মন্দঋণ পুরোটাই খেলাপি হয়ে যায়। ওই সময এ ঋণের হার ছিল ৩৩ শতাংশ। কিন্তু গেল বছরে খেলাপিদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযানের ফলে শ্রেনীকৃত ঋণ কমে ১৪ শতাংশে দাড়িয়েছে। মন্দ ঋণের বিরুদ্ধে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। আর শুদ্ধি অভিযান শুধু মন্দ ঋণের বিরুদ্ধে নয়, ব্যাংকের কর্মকর্তাদেরও বিরুদ্ধেও হবে’। ঋণের সুদ এক অঙ্গে বাস্তবায়নের বিষয়ে তিনি বলেন, ১ এপ্রিল থেকে এটি কার্যকরের জন্য এবি ব্যাংক কাজ করে যাচ্ছে।

নির্বাচিত সংবাদ