২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পরিবর্তন প্রত্যাশী

  • এমএইচ উল্লাহ

ঢাকা মহানগরীর উত্তর ও দক্ষিণের দু’জন নতুন মেয়র পদে নির্বাচিত হলেন- আমরা নবনির্বাচিত এই দু’জন মেয়রকে স্বাগত জানাই। নির্বাচিত এই মেয়দের কাছে ঢাকা মহানগরীর অধিবাসীদের অনেক প্রত্যাশা। বর্তমানে ঢাকা মহানগরী যে অবস্থায় আছে, জনগণ এখন তার বিপুল পরিবর্তন প্রত্যাশা করে। মহানগরীর চারপাশে যেসব নদী বেষ্টন করে আছে এই নদীগুলো হচ্ছে বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, ধলেশ্বরী, তুরাগ ও বালু নদ। নদীগুলোর সব ক’টিই এখন দূষণের শিকার। নদীর তীরসমূহে অবৈধ দখলদাররা বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করে দখল করে নিয়েছে। এখন অবশ্য অবৈধ দখলদারকে উচ্ছেদের জন্য সরকার থেকে প্রচেষ্টা নেয়া হয়েছে। এই নদীগুলোর পানি এতই দূষিত যে, জীবজন্তু ও মানুষ এই পানি ব্যবহার করতে পারে না। নবনির্বাচিত মেয়দের কর্তব্য হবে এই নদীগুলোকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করা।

তিলোত্তমা ঢাকা মহানগরী গড়ার কাজে তাদের অবশ্যই আত্মনিয়োগ করতে হবে। মহানগরী আজ নানাভাবে দূষণের শিকার হয়েছে- বায়ু দূষণ, শব্দ দূষণ, যত্রতত্র ময়লা-আবর্জনার স্তূপ, ফুটপাতে অবৈধ দখলদারদের দৌরাত্ম্য, যানজট, গণপরিবহনের অপ্রতুলতা, খাদ্যে ভেজাল, ওষুধে ভেজাল, মহানগরীর পার্কগুলোর দুর্দশা ও সেখানে ছিনতাই রাহাজানি বৃদ্ধি, অপরিকল্পিত নগরায়ন, নদীর তীরে অবৈধ স্থাপনা, গার্মেন্টসহ বহুতল ভবনে নিরাপত্তার অভাব। তার মধ্যে অগ্নি নির্বাপণের অভাব ইত্যাদি নগরবাসীর জীবনকে অসুস্থ করে তুলেছে। তাই মহানগরীর অধিবাসীদের নবনির্বাচিত দু’জন মেয়রের কাছে প্রত্যাশা তারা যেন অনতিলম্বে এসব অসুবিধা দূর করায় মনোনিবেশ করেন। ঢাকা মহানগরীতে মেট্রোরেলসহ সরকার আধুনিক আরও কিছু সুযোগ-সুবিধা দেয়ার ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে- নিরসন্দেহে এসব কাজ প্রশংসার দাবি রাখে। কিন্তু তার আগে যেসব সমস্যাগুলো জনজীবন অতিষ্ঠ করে তুলছে সর্বাগ্রে নবনির্বাচিত মেয়রদের সেইদিকে মনোনিবেশ করা দরকার। মশা, মাছির উপদ্রবে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার মতো ভয়াবহ রোগ মহামারী আকার ধারণ করে। নবনির্বাচিত মেয়ররা এদিকেও যথাযথ নজর দিবেন এটা জনগণের প্রত্যাশা। মৌসুমী বৃষ্টি পাতের আধিক্য হলে মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে যে ভয়াবহ জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয় সেসব নিরসনেও নবনির্বাচিত মেয়ররা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সমস্যাগুলোর সমাধান করবেন এটাও তাদের কাছে জনগণের প্রত্যাশা। আধুনিকতার ছোঁয়ায় ঢাকা মহানগরীকে কীভাবে গড়ে তোলা যায় এই নিয়েও যথেষ্ট চিন্তা-ভাবনার অবকাশ রয়েছে। রাস্তাঘাট সুন্দর তকতকে ঝকঝকে করার দায়িত্ব তাদের। মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে সুন্দর সুন্দর পার্ক, বড় বড় রাস্তার পাশে যাত্রী ছাউনি, সুপেয় পানির ব্যবস্থা করাও তাদের দায়িত্ব ও কর্তব্যের মধ্যে পড়ে। মহানগরীর বিদ্যমান সমস্যাগুলোর মধ্যে সর্বাগ্রে রয়েছে যানজট সমস্যা ও গণপরিবহনের অভাব। এ দুটি বিষয়েও মনোযোগ দিয়ে তারা সমস্যা গুলির দ্রুত সমাধান করবেন যাতে জনজীবনে সুখ আর শান্তি ফিরে আসে। যেখানে সেখানে ময়লা-আবর্জনার স্তূপ না হয় সেদিকেও তাদের নজর দিতে হবে। মহানগরীর বিলুপ্ত প্রায় খালগুলো পুনরুদ্ধার করে সেগুলোও সংস্কার করতে হবে যাতে জলাবদ্ধতা না হয়। নদীগুলোও পুনঃসংস্কার করে বিশুদ্ধ পানি চলাচলের ব্যবস্থা করতে হবে। নদীর উভয় তীরে চলাচলের জন্য হাঁটা পথ তৈরি করে পথের দুই ধারে সবুজ বৃক্ষাদি রোপণ করলে জনগণ নির্মল বায়ু সেবনে সমর্থ হবে। মাদকের অভিশাপ থেকে নগরবাসী তথা যুবসমাজকে রক্ষা করতে হবে। দেশের যুবসমাজের শারীরিক ও মানসিক উন্নতির জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে খেলার মাঠ তৈরি করে ছেলে মেয়েদের খেলাধুলার ব্যবস্থা করতে হবে।

কলাবাগান, ঢাকা থেকে

নির্বাচিত সংবাদ