২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কাপ্তাই লেকে নৌকা ডুবে ৭ পর্যটকের মৃত্যু ॥ জীবিত উদ্ধার ৬০

   কাপ্তাই লেকে নৌকা ডুবে ৭ পর্যটকের মৃত্যু ॥ জীবিত উদ্ধার ৬০

নিজস্ব সংবাদদাতা, রাঙ্গামাটি, ১৪ ফেব্রুয়ারি ॥ রাঙ্গামাটির কাপ্তাই লেকে ভ্রমণ করতে আসা পর্যটকবাহী দুটি ইঞ্জিনচালিত নৌকা ডুবে শিশু ও মহিলাসহ ৬ জনের করুণ মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে কাপ্তাই লেক ও কর্ণফুলী নদীতে এই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনার পরপর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ও নৌবাহিনীর ডুবুরি দল ডুবন্ত দুটি নৌকা থেকে ৬০ পর্যটককে জীবিত উদ্ধার ও ৬ জনের লাশ উদ্ধার করেছেন।

প্রথম দুর্ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার সকালে ডিসি বাংলো সংলগ্ন কাপ্তাই হ্রদে। এই দুর্ঘটনায় যারা প্রাণ হারিয়েছেন তারা হলেন, আসমা বেগম, শিলা, রিনা ও আফরোজা (১৪)। অপর একজনের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। রাঙ্গামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ছফিউল্লাহ ও প্রত্যক্ষদর্শী মোঃ হাসান জানান, শুক্রবার সকালে চট্টগ্রামের সিইপিজেড এলাকা থেকে ৫০ জনের একটি পর্যটক দল বাসে রাঙ্গামাটির উদ্দেশে রওনা হয়ে রাঙ্গামাটি পর্যটন এলাকায় ঝুলন্ত ব্রিজে যায়। সেখান থেকে প্রায় ৩০ জনের মতো লোক দুটি ইঞ্জিনচালিত বোটে কাপ্তাই হ্রদে ঘুরতে বের হয়। এমন সময় দুই বোট চালকের মধ্যে প্রতিযোগিতা শুরু হয়। পরে দুটি বোট ডিসি বাংলো এলাকায় পৌঁছলে একটি বোট পানিতে ডুবে যায়। এতে ঘটনাস্থলে ৫ জনের মৃত্যু হয়। ওই বোটে ১৫ জন লোক ছিল। এদের মধ্যে ১০ জন সাঁতার কেটে তীরে আসে। এই ঘটনায় লিপি বেগম নামে একজন আহত হয়। এরা সবাই চট্টগ্রামের ইপিজেড এলাকার গার্মেন্টসকর্মী বলে জানা গেছে।

বোটডুবির সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ, এলাকাবাসী ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দ্রুত পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে ১০ জনকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয় । এদের মধ্যে ৫ জনকে রাঙ্গামাটি হাসপাতালে নেয়া হয়ে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেছেন।

একইদিন রাঙ্গামাটি কাপ্তাই উপজেলায় কয়লার ডিপো সংলগ্ন কর্ণফুলী নদীতে আন্তর্জাতিক কৃষ্ণ ভাবনামৃত সংঘের (ইসকন) একটি পিকনিক বোট ডুবে গিয়ে দেবি লাল (১০) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এবং নিখোঁজ রয়েছেন, টুম্পা মজুমদার (৩০), বিজয় (১০) নামে আরও দুজন নিখোঁজ রয়েছে, ওইদিন দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে কাপ্তাই উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেল জানান। নিখোঁজ ব্যক্তিদের খোঁজতে তল্লাশি চালাচ্ছেন নৌ-বাহিনীর ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল। এরা ১৪০ জনের একটি দল কক্সবাজার থেকে ভ্রমণে এসেছিল।

এদিকে ওইদিন সকালে রাঙ্গামাটির সাপছড়ি এলাকায় পর্যটকের একটি বাস উল্টে এক হেলপারের মৃত্যু হয়েছে। বাসের যাত্রীরা কর্ণফুলী এক্সপোর্ট প্রসেসিং জোন লিমিটেড (কেইপিজেড) টেনডেক্স লিমিটেড নামে একটি চায়না ফার্নিচার কারখানয় কর্মরত রয়েছে বলে জানা যায়।

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ এবং জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ বিপাশ খীসা আহতদের দেখতে রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতালে যান। বাস দুর্ঘটনায় নিহতকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১৫ হাজার টাকা এবং ডুবে মারা যাওয়া প্রত্যক পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে আর্থিক অনুদান দিয়েছেন।